করোনায় মৃত্যু হয়েছে বোনের, বাড়িতে মৃতদেহর সঙ্গে আটকে দাদা, ফেসবুক ভিডিওয়ে কাতর বার্তা

করোনায় মৃত্যু হয়েছে বোনের, বাড়িতে মৃতদেহর সঙ্গে আটকে দাদা, ফেসবুক ভিডিওয়ে কাতর বার্তা
নিজস্ব ভাষায় ভয়াবহ বার্তা দিয়েছেন লুকা, এবং ভিডিওতে স্পষ্ট দেখা গিয়েছে খাটের ওপর পড়ে রয়েছে তার বোনের মরদেহ৷

নিজস্ব ভাষায় ভয়াবহ বার্তা দিয়েছেন লুকা, এবং ভিডিওতে স্পষ্ট দেখা গিয়েছে খাটের ওপর পড়ে রয়েছে তার বোনের মরদেহ৷

  • Share this:

#রোম: দেশ আমাদের বঞ্চিত করেছে, এই বার্তা দিয়েই ফেসবুকে ভিডিও পোস্ট করেছেন এক শোকার্ত লুকা৷ ইতালির বাসিন্দা লুকা গৃহবন্দী এবং তার বোন টেরেসার মৃত্যু হয়েছে করোনায়৷ এতটাই খারাপ তাদের দেশের পরিস্থিতি যে সেই বোনের শেষকৃত্যের জন্য ঘর থেকে বাইরে আসতে পারছেন না লুকা৷ কান্নাই তার একমাত্র সম্বল৷ ইতালির নেপলসের বাসিন্দা লুকা ও তার পরিবার৷ এই মুহূর্তে করোনার জেরে ফাঁকা হয়ে গিয়েছেন এলাকা৷ কেউ ঘর থেকে বেরচ্ছেন না৷ ভীষণ আতঙ্কে কাটছে দিন৷ খুবই তাড়াতাড়ি ছড়িয়ে পড়ছে মারণ করোনা৷ একের পর এক মৃত্যু হচ্ছে করোনা আক্রান্তদের৷ ভয়ে বাড়ি থেকে কেউ বাইরে যাচ্ছেন না৷ পাছে করোনার থাবা বসায় শরীরে৷ রাস্তাঘাট শুনশান, জনমানব শূন্য এলাকা৷

এই অবস্থায় বোনের মৃতদেহ আগলে বাড়িতেই রয়েছেন লুকা৷ বাইরে আসতে পারছেন না৷ বোনের দেহের সৎকার করাতেও পারছেন না৷ লুকার অভিযোগ যে কাউকেই ফোন করে কোনও রকম সাহায্য পাচ্ছেন না তিনি৷ বাড়ি থেকেই ফেসবুকে ভিডিও পোস্ট করেন তিনি৷ বলেন যে তিনি পুরোপুরি আটকে পড়েছেন৷ ভিডিওতে দেখা যায় যে খাটের ওপর লুকার বোন টেরেসার মৃতদেহ পড়ে রয়েছে৷ লুকা নিজেও করোনা আক্রান্ত হয়েছেন৷ তাই নিজেও তিনি আইসোলেশনে রয়েছেন৷ বোনের মৃতদেহ দেখিয়ে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন৷ কোনও উপায় না পেয়ে ফেসবুককেই হাতিয়ার করেন লুকা৷

এই সোশ্যাল মিডিয়ায় মাধ্যমে তিনি বোনের মৃত্যুর খবরটি ছড়িয়ে দেন, সঙ্গে এটাও জানিয়ে দেন যে এখন ইতালি জুড়ে কী ভয়াবহ পরিস্থিতি৷ খবরটি চড়াও হতেই এগিয়ে আসে প্রশাসন৷ ৩৬ ঘণ্টা পর তার বাড়ি থেকে টেরেসার দেহ নিয়ে যাওয়া হয়৷ সরাসরি মরদেহ কবর দেওয়া হয়েছে৷ তবে বোনের কোনও রকম শেষকৃত্য করা সম্ভব হয়নি, কারণ লুকা নিজেও বাইরে আসতে পারেননি সংক্রমণের ভয়ে৷ নিজস্ব ভাষায় ভয়াবহ বার্তা দিয়েছেন লুকা, এবং ভিডিওতে স্পষ্ট দেখা গিয়েছে খাটের ওপর পড়ে রয়েছে তার বোনের মরদেহ৷

ইতালিতে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা৷ প্রায় ১২ বাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন করোনা ভাইরাসে৷ পাশাপাশি ৮০০র ওপর মৃত্যু হয়েছে এই সংক্রমণে৷ দোকানপাঠ, স্কুল-কলেজ সব বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে৷ শুধুমাত্র খাবার দোকান এবং ওষুধের দোকান বন্ধ হয়েছে৷

First published: March 14, 2020, 10:12 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर