corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘‌চিন মিথ্যে বলছে, ওখানে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা অনেক ', বিস্ফোরক অভিযোগ মার্কিন রাজনীতিকের

‘‌চিন মিথ্যে বলছে, ওখানে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা অনেক ', বিস্ফোরক অভিযোগ মার্কিন রাজনীতিকের

ভুলে গেলে চলবে না, চিনই এই ভাইরাস প্রথম ছড়াতে শুরু করেছিল।

  • Share this:

#‌ওয়াশিংটন:‌ ‘‌নিজের সুখ্যাতি ধরে রাখতে ব্যস্ত চিন। করোনা ভাইরাসে কতজন আক্রান্ত হয়েছেন, কতজন মারা গিয়েছেন সে সম্পর্কে যে তথ্য চীনের প্রশাসন দিয়েছে তাতে বিশ্বাস করার কোন কারণ নেই’‌, এমনই মত প্রকাশ করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন রাজনীতিবিদ নিকি হ্যালে। তিনি মনে করেন চিন একেবারেই সঠিক দিচ্ছে না। বুধবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, চিন আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা নিয়ে সঠিক তথ্য দিচ্ছে না। পৃথিবীজোড়া করার বিরুদ্ধে লড়াইকে ব্যর্থ করে দিতে পারে চিনের এই ব্যবহার। বৃহস্পতিবার বিকেলে নিকি হ্যালে বললেন, ‘‌চিনে এখনও পর্যন্ত ৮২ হাজার মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ৩৩০০ মৃত্যু হয়েছে। এদিকে চিনের জনসংখ্যা প্রায় দেড়শ কোটির কাছাকাছি। বোঝাই যাচ্ছে এটি সঠিক তথ্য নয়।’‌

চিনের থেকে আমেরিকাতে আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি। এখনও পর্যন্ত মার্কিন মুলুকে আক্রান্ত হয়েছেন দু’‌লক্ষ ৪০ হাজার মানুষ, মারা গিয়েছেন প্রায় তিন হাজার ৮১৬ জন। ‘‌চিন নিজের সুখ্যাতি রক্ষা করতেই বেশি ব্যস্ত। ভাইরাস মোকাবিলায় সাহায্য করার বদলে তারা নিজের ইচ্ছে মতো চলছে। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না, চিনই এই ভাইরাস প্রথম ছড়াতে শুরু করেছিল।’‌ আর সেই কারণেই তিনি জানিয়েছেন সিআইএ স্বাধীনভাবে চিনে আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃতের সংখ্যা নির্ধারণ করার জন্য তদন্ত চালাচ্ছে। সেই সংখ্যাটি আসল সংখ্যা হিসাবে প্রকাশিত হবে। চিনের সরকারি তথ্যকে বাতিল করে সেই তথ্যকে মান্য হিসেবে ধরবে আমেরিকা। চিনে আক্রান্তের সংখ্যার সঠিক তথ্য যদি পাওয়া যায় তাহলে বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা মৃতের সংখ্যার সঙ্গে একটা তুলনামূলক আলোচনা করা যাবে। যার ফলে আরও সহজে বোঝা যাবে সোশ্যাল ডিস্ট্যাংন্সিয়ের মতো বিষয়গুলি কতটা গ্রহণযোগ্য।

চিনের সরকারি তথ্য মোতাবেক এখনো পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮১ হাজার ৪৮৯ এবং মৃতের সংখ্যা ৩৩১৮। মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ও ব্রায়েন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, কোনওভাবেই চিনের সংখ্যার নিশ্চয়তা পাওয়ার এখনও পর্যন্ত উপায় নেই। চিন থেকেই অনেক রিপোর্টিং পাওয়া গিয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে সংখ্যা যথেষ্ট কম। আমরা সেই সমস্ত রিপোর্টগুলি গুরুত্ব দিয়ে খতিয়ে দেখছি। চিনের সংবাদমাধ্যম এবং কয়েকজন সিনিয়র সাংবাদিকের কাছ থেকে আমরা সঠিক তথ্য জোগাড়ের চেষ্টা চালাচ্ছি, জানিয়েছেন ও'ব্রায়েন।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: April 3, 2020, 11:25 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर