বিদেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

গোয়েন্দা তথ্য দিচ্ছেন না ট্রাম্প, অসহযোগিতা প্রসঙ্গে বোমা ফাটালেন বাইডেন

গোয়েন্দা তথ্য দিচ্ছেন না ট্রাম্প, অসহযোগিতা প্রসঙ্গে বোমা ফাটালেন বাইডেন
Photo source/the sun

বাইডেন বলেছেন, তাঁর দল প্রতিরক্ষা বিভাগসহ অন্য যারা ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত, তাদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য পাচ্ছে না।

  • Share this:

#ওয়াশিংটন: সময় অত্যন্ত কম। কাজ সেই তুলনায় অনেক বেশি। সাধারণত হোয়াইট হাউস ছেড়ে যাওয়ার সময় প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এবং তাঁর দল নতুন প্রেসিডেন্ট এবং তাঁর দলকে দায়িত্বভার বুঝিয়ে দিয়ে যান। এটাই শিষ্টাচার বা নিয়ম। কিন্তু জো বাইডেন সরাসরি ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ হানলেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনের হাতে মার্কিন নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর চরম ক্ষতি হয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। বাইডেন বলেছেন, তাঁর দল প্রতিরক্ষা বিভাগসহ অন্য যারা ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত, তাদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য পাচ্ছে না।

২০২১ সালের ২০ জানুয়ারি ৪৬ তম মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণ করবেন জো বাইডেন। তবে এখনপর্যন্ত গত নভেম্বরের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল মেনে নেননি ডোনাল্ড ট্রাম্প।৩ নভেম্বরের নির্বাচনের চার সপ্তাহ পর বাইডেনকে গোয়েন্দা তথ্য দেওয়া আটকে দেওয়া হয়েছে। অথচ প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা হস্তান্তরের অংশ হিসেবেই এসব তথ্য পাওয়ার কথা জো বাইডেনের। বাইডেনের বক্তব্যের পর ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী ক্রিস্টোফার মিলার বলেন, "পেশাদারিত্ব মেনে, সংবিধান মেনে ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় সহায়তার জন্য কর্মকর্তারা চেষ্টা করছেন। নির্দিষ্ট সময় মত সব তথ্য তুলে দেওয়া হবে"।

অতীতে বারাক ওবামার আমলে দীর্ঘদিন ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেছেন। এখন তিনি ৭৮ । কিন্তু চ্যালেঞ্জ নিতে পিছপা হতে রাজি নন। এমন একটি সময় দেশের দায়িত্ব নিতে চলেছেন যখন করোনা, বেকারত্ব, জলবায়ু পরিবর্তন এবং বর্ণবৈষম্যের মত ব্যাপার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মাথাচাড়া দিয়েছে। শেষপর্যন্ত ডোনাল্ড ট্রাম্প অনেক টালবাহানার পর করোনা সহায়ক বিলে সই করেছেন বটে, কিন্তু বিদায়ী প্রেসিডেন্ট জেনে শুনেই বাইডেনকে ঝামেলায় ফেলতে চান বলেই এমনটা করেছেন মনে করছেন কেউ কেউ। নতুন প্রেসিডেন্টের রাস্তায় যতটা সম্ভব কাঁটা ছড়িয়ে যেতে চান ট্রাম্প।

আগামী দিনে আমেরিকায় সমস্যা বাড়তে পারে বলেই আগেই মন্তব্য করেছিলেন সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডক্টর ফাউচি। ছুটির সময় অতিমারি আরও ভয়ঙ্কর রূপ নেবে বলেছেন তিনি। বাইডেন প্রকাশ্যে ভ্যাকসিন নিয়েছেন। দেশের মানুষকে একশো দিন মাস্ক ব্যবহারের আবেদন আগেই করেছেন তিনি। তবে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নতুন প্রেসিডেন্টের এই অসহযোগিতার অভিযোগ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। দেশপ্রেম বলে কি কিছু থাকতে নেই? পুরোটাই কি নিজের গদি এবং অস্তিত্ব বাঁচানোর লড়াই? বিদায় বেলাতেও বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ট্রাম্পের।

Published by: Rohan Chowdhury
First published: December 29, 2020, 6:11 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर