• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • BANGADESH KOLKATA DHAKA MAITREE TRAIN WILL FINISH JOURNEY IN 3 HOURS CLAIMS BANGLADESH RAILWAYS SANJ

Bangladesh : কলকাতা থেকে ঢাকা আরও দ্রুত! ট্রেনে এবার মাত্র সাড়ে ৩ ঘণ্টায় বাংলাদেশ...

আরও সহজ যাতায়াত প্রতীকী ছবি

পদ্মা নদীর (Padma River) উপরে তৈরি করা হচ্ছে সেতু (Rail Bridge)। আর তাতেই দুই নিকটতম প্রতিবেশীর দূরত্ব কমবে প্রায় দু'গুণ। অন্তত তেমনই দাবি করছেন বাংলাদেশ (Bangladesh Railways) রেলওয়ের কর্মকর্তারা।

  • Share this:

    #কলকাতা : এবার ঢাকা (Dhaka) থেকে আসা যাবে কলকাতা (Kolkata)। সময় লাগবে মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টা। শুনতে অবিশ্বাস্য লাগলেও এটাই হতে চলেছে। তবে এর জন্য অপেক্ষা করতে হবে আর মাত্র বছর তিনেক। পদ্মা নদীর (Padma River) উপরে তৈরি করা হচ্ছে সেতু (Rail Bridge)। আর তাতেই দুই নিকটতম প্রতিবেশীর দূরত্ব কমবে প্রায় দু'গুণ। অন্তত তেমনই দাবি করছেন বাংলাদেশ (Bangladesh Railways) রেলওয়ের কর্মকর্তারা।

    বর্তমানে ‘মৈত্রী এক্সপ্রেসে’ (Maitree Express) কলকাতা থেকে ঢাকা যাতায়াতে সময় লাগে কমপক্ষে ১০ ঘণ্টা। এই সময়সীমা কমাতেই পদ্মা নদীর উপরে তৈরি করা হচ্ছে সেতু। বাংলাদেশ রেলওয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, পদ্মা সেতুর রেল সংযোগ প্রকল্প চালুর পর ঢাকা-কলকাতার যোগাযোগে অভূতপূর্ব উন্নয়ন ঘটবে। এখন যেখানে ১০ ঘণ্টা সময় লাগে তিন বছর পর সেখানে মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টায় ঢাকা থেকে কলকাতায় পৌঁছানো যাবে। বর্তমানে কলকাতা থেকে গেদে এবং গেদে হয়ে বাংলাদেশের সীমান্ত স্টেশন দর্শনা পার হয়ে ঢাকায় অবস্থিত ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনে পৌঁছয় মৈত্রী এক্সপ্রেস। এই রুটে প্রায় ৪০০ কিলোমিটার রেলপথ পাড়ি দিতে হয়।

    পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হলে কলকাতা স্টেশন থেকে বনগাঁ জংশন হয়ে হরিদাসপুর সীমান্ত দিয়ে বেনাপোল হয়ে যশোর, নড়াইল, ফরিদপুরের ভাঙা হয়ে ঢাকা পৌঁছতে পারবে ট্রেনটি। এই রুটের দূরত্ব দাঁড়াবে প্রায় ২৫১ কিলোমিটার। যা পার করতে মৈত্রী এক্সপ্রেসের গতিতে সাড়ে তিন ঘণ্টার বেশি সময় লাগার কথা নয় বলেই দাবি করছেন রেল কর্তারা।

    বাংলাদেশের রেলমন্ত্রী মহম্মদ নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, ‘পদ্মা নদীর ওপরে রেল সেতু নির্মাণ কাজ শেষ হবে ২০২৪ সালের মার্চে।' সেইসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা থেকে ঢাকা হয়ে কলকাতা যেতে ট্রেনে সময় লাগবে মাত্র ছয় ঘণ্টা’। বর্তমানে ট্রেনে আগরতলা থেকে কলকাতা যেতে সময় লাগে ৩০ ঘণ্টারও বেশি।

    বাংলাদেশ সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গিয়েছে, মাওয়া-জাজিরার মধ্যে অবস্থিত মূল সেতুর কাজ এগিয়েছে প্রায় ৯৩ শতাংশ। প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৮৬ শতাংশ। দোতলা মূল পদ্মা সেতুর নীচ দিয়ে হচ্ছে রেলপথ। প্রকল্পে ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকা।

    মূলত চিকিৎসার কারণে বাংলাদেশ থেকে অনেক মানুষ আসেন কলকাতা। এছাড়াও আরও নানা কারণেই আসতে হয় ওপার বাংলার বাসিন্দাদের। ঢাকা থেকে কলকাতা বাস থাকলেও, বেশিরভাগ মানুষের পছন্দ রেলপথ। কারণ, সড়কপথে যেতে প্রায় সারাদিন লেগে যায়। সঙ্গে থাকে পদ্মাতীরে ফেরির জন্য দীর্ঘ লাইনের অপেক্ষা। পদ্মা সেতু চালু হলে সেইসব মানুষের যাতায়াত সমস্যা অনেকটাই মিটবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ মহল।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: