Atlantic Croaker Fish: ৪৮ কেজির একটি মাছ বিক্রি ৭২ লক্ষ টাকায়! কী কারণে ভাগ্যবদল মৎস্যজীবীর?

এই সেই মাছ

Atlantic Croaker Fish: পাকিস্তানের সেই মৎস্যজীবীর জালে ধরা পড়ল বিরল প্রজাতির আটলান্টিক ক্রুকার মাছ। একে বিরল, তার মধ্যে মাছটির ওজন প্রায় ৪৮ কেজি।

  • Share this:

    পাকিস্তান: কথায় আছে, আজ যে রাজা, কাল সে ফকির। কিন্তু উল্টোটাও যে কখনও ঘটতে পারে জীবনে, তা কি কখনও ভেবেছেন! হ্যাঁ, হয়, মুহূর্তে বদলে যায় ভাগ্যের চাকা। যেভাবে বদলে গেল সাজিদ হাজি আবাবাকরের। পাকিস্তানের বালুচিস্তান প্রদেশের গোয়াদার উপকূলে আর পাঁচটা দিনের মতোই নৌকায় মাছ ধরছিলেন সাজিদ। অপেক্ষাতেই কেটে যাচ্ছিল সময়। কিন্তু হঠাৎই ভাগ্যবদল। যে সে মাছ নয়, পাকিস্তানের সেই মৎস্যজীবীর জালে ধরা পড়ল বিরল প্রজাতির আটলান্টিক ক্রুকার মাছ। একে বিরল, তার মধ্যে মাছটির ওজন প্রায় ৪৮ কেজি।

    কী করবেন এই মাছ দিয়ে, এই ভাবনা যখন সাজিদকে ভাবাচ্ছে, তখনই তিনি জানতে পারেন এই বিরল প্রজাতির মাছটির দাম পড়বে অন্তত ৪৬,৭০৬ মার্কিন ডলার। ভারতীয় মুদ্রায় যা দাঁড়াচ্ছে প্রায় ৩৪ লক্ষ টাকা। আর পাকিস্তানী মুদ্রায়? বিরল ওই মাছ বিক্রি করে ওই মৎস্যজীবী পেয়েছেন প্রায় ৭২ লক্ষ টাকা। রীতিমত নিলামের পর এই মাছ বিক্রি হয়েছে।

    স্থানীয় মাছের বাজারের নিয়মমাফিক ছাড়ের পর শেষ পর্যন্ত ৭২ লক্ষ টাকাতে মাছটি বিক্রি করেন ওই মৎস্যজীবী। অনেকেই বলছেন, পাকিস্তানে এত দামে এর আগে কোনও মাছ বিক্রি করা হয়নি। প্রসঙ্গত বলে রাখা যাক, এই বিরল প্রজাতির আটলান্টিক ক্রুকার মাছের চাহিদা ইউরোপ ও চিনের বাজারে অত্যন্ত বেশি। এই মাছ শুধু স্বাদের জন্য নয়, এর হাড় ও চামড়া চিকিৎসা বিজ্ঞানের গবেষণার জন্যেও খুবই জরুরি।

    প্রসঙ্গত, দিনকয়েক আগেই এই গোয়াদার উপকূলেই আরও একটি আটলান্টিক ক্রুকার মাছ পাওয়া গিয়েছিল। সেই মাছটিও প্রায় ৭ লক্ষ ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছিলেন স্থানীয় এক মৎস্যজীবী। মৎস্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই আটলান্টিক ক্রুকার মাছের ওজন সাধারণত ১ কেজি থেকে দেড় কেজি হয়ে থাকে। কিন্তু এই মাছেরই একটি বিশেষ প্রকৃতি ২০-৯০ কেজি পর্যন্ত হয়ে থাকে। মাছের বাজারে এই ধরনের মাছের চাহিদাই সবচেয়ে বেশি।

    Published by:Suman Biswas
    First published: