বিদেশ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

আবার সবুজ হচ্ছে উত্তর মেরু! ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা আর উষ্ণ মাটি ডেকে আনছে বিপদ!

আবার সবুজ হচ্ছে উত্তর মেরু! ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা আর উষ্ণ মাটি ডেকে আনছে বিপদ!

তুন্দ্রা ও তার আশেপাশের অঞ্চলের ৫০,০০০ সাইট বেছে নিয়ে কাজ করেছেন বার্নার ও তাঁর সহকর্মীরা।

  • Share this:

এত দিন ধরে সমস্যার কারণ ছিল উত্তর মেরুর বরফ গলে যাওয়া! তবে কয়েক দশক ধরে সামগ্রিক তুন্দ্রা বাস্তুতন্ত্রের উপগ্রহ মারফত পাওয়া কিছু ছবি বলছে অন্য কথা। দেখা যাচ্ছে উষ্ণ বায়ু ও মাটির কারণে উত্তর মেরুর কিছু অংশে বেশ ভালই গাছপালা জন্ম নিচ্ছে।

নাসা এবং ইউএস জিওলজিকাল সার্ভে বা ইউএসজিএসের যৌথ প্রকল্পে ল্যান্ডস্যাটের উপগ্রহ ব্যবহার করে দেখা গিয়েছে- উত্তর মেরুর বিস্তীর্ণ অঞ্চল যেমন আর্কটিক তুন্দ্রা, আলাস্কা থেকে কানাডা হয়ে সাইবেরিয়া পর্যন্ত গাছপালার কিছু পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। গবেষণাটি প্রবন্ধের আকারে প্রকাশিত হয়েছে নেচার কমিউনিকেশন পত্রিকায়।

আমেরিকার ফ্ল্যাগস্টাফের উত্তর আরিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান গবেষক লোগান বার্নার বলেছেন, এই অঞ্চল খুব দ্রুত উষ্ণ হচ্ছে। ফলে উত্তর মেরু সবুজ হয়ে উঠছে। অর্থাৎ এখানে হয় অনেক গাছপালা জন্মাচ্ছে বা ঘন হচ্ছে অথবা তুন্দ্রার বিশেষ ঘাস ও মসকে ছাপিয়ে গজিয়ে উঠছে ঝোপঝাড়।

তুন্দ্রা অঞ্চলের গাছপালা যদি বদলে যায়, তবে এর সরাসরি প্রভাব পড়বে সেখানকার তৃণভোজী প্রাণীদের উপরে। কেন না, তারা বিশেষ কয়েকটি উদ্ভিদের উপরেই জীবনধারণের জন্য নির্ভরশীল। প্রভাব পড়বে সেখানকার মানুষদের উপরেও কারণ তাঁরাও খাবারের জন্য তুন্দ্রার স্থানীয় বাস্তুতন্ত্রের উপর নির্ভরশীল।

এ ছাড়া যত বেশি গাছপালা বাড়বে, তত বায়ুমণ্ডলে কার্বনের পরিমাণও বাড়বে। ফলে তাপমাত্রা বেড়ে যাবে এবং বরফ ফের গলে গিয়ে গ্রিনহাউজ গ্যাসের পরিমাণ বাড়িয়ে দেবে।

তুন্দ্রা ও তার আশেপাশের অঞ্চলের ৫০,০০০ সাইট বেছে নিয়ে কাজ করেছেন বার্নার ও তাঁর সহকর্মীরা। ল্যান্ডস্যাট ডেটা ও বাড়তি কিছু গাণিতিক হিসেব দিয়ে তাঁরা বোঝার চেষ্টা করেছেন কী ভাবে এবং কত দ্রুত এই সবুজায়ন গ্রাস করছে আর্কটিক অঞ্চলকে।

পরিসংখ্যান মতে, ১৯৮৫ থেকে ২০১৬-র মধ্যে আলাস্কা, কানাডা ও পশ্চিম ইউরেশিয়ায় মাত্র ৩৮% সবুজ দেখা গিয়েছিল। মাত্র ৩ শতাংশে খয়েরি ছোপ দেখা গিয়েছিল। যার অর্থ হল এই সব অঞ্চলে সবুজের বিকাশ ঘটেনি। পূর্ব ইউরেশিয়ান অঞ্চলকে এর সঙ্গে যোগ করা হয় ২০০০ সালে যখন ল্যান্ডস্যাট থেকে নিয়মিত ছবি আসতে শুরু করেছিল। বিশ্বব্যাপী ছবি নিয়ে দেখা গিয়েছিল যে ২০০০ থেকে ২০১৬-র মধ্যে ২২ শতাংশ সবুজ এবং ৪ শতাংশ খয়েরি হয়ে আছে। আর্কটিকের আশেপাশে বিভিন্ন সাইট থেকে পাওয়া গাছপালার বৃদ্ধিও তাঁদের এই বক্তব্যকে সমর্থন করছে।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: September 23, 2020, 6:24 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर