Home /News /international /
Afghanistan Crisis: অস্ত্র তুলে নিচ্ছে আফগান যোদ্ধারা, রক্ত ঝরিয়ে তিনটি জেলা তালিবানমুক্ত

Afghanistan Crisis: অস্ত্র তুলে নিচ্ছে আফগান যোদ্ধারা, রক্ত ঝরিয়ে তিনটি জেলা তালিবানমুক্ত

তালিবান আধিপত্যমুক্ত আফগানিস্তানের তিন জেলা। ছবি ট্যুইটার থেকে প্রাপ্ত।

তালিবান আধিপত্যমুক্ত আফগানিস্তানের তিন জেলা। ছবি ট্যুইটার থেকে প্রাপ্ত।

Afghanistan Crisis: সূত্রের খবর, অন্তত ৬০ তালিবানি যোদ্ধার মৃত্যু হয়েছে এই যুদ্ধে। এই সংঘর্ষের বহু ছবি এবং ভিডিও ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে।

  • Share this:

#কাবুল: স্বপ্নের মৃত্যু নেই বুঝিয়ে দিচ্ছে আফগানিস্তান। দেশের সিংহভাগ অঞ্চলে যখন আধিপত্য কায়েম করেছে তালিবান ঠিক তখনই বানু, পোল এ হেসার, দে সালা-বাঘলান উপত্যকার এই তিনটি জেলাকে আফগান যোদ্ধারা তালিবান মুক্ত করতে পেরেছে করতে পেরেছে বলে খবর। তালিবানের সঙ্গে লড়াই করে পাল্টা এই তিন জেলা দখল করতে রক্ত ঝরেছে বিস্তর। সূত্রের খবর, অন্তত ৬০ তালিবানি যোদ্ধার মৃত্যু হয়েছে এই যুদ্ধে। এই সংঘর্ষের বহু ছবি এবং ভিডিও ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। স্থানীয় যোদ্ধারা বলছেন অচিরেই গোটা বাঘলান প্রদেশের দখল নেবেন তারা।

এক প্রাক্তন আফগান সরকারি উচ্চপদস্থ কর্তাকে উদ্ধৃত করে এক ব্রিটিশ টিভি চ্যানেল প্রতিনিধি তাজউদ্দিন সোরোউস টুইটারে লিখেছেন, স্থানীয় প্রতিরোধ গড়ে উঠেছে বাঘলান এলাকায়। তালিবানের বিরুদ্ধে লড়াই করে বানু ও পোল এ হেসার জেলা দখল সম্ভব হয়েছে। এখন তালিবানবিরোধী যোদ্ধারা দে সালা জেলার দিকে অগ্রসর হচ্ছেন। অন্তত৬০ জন তালিবানি এই যুদ্ধে মারা গিয়েছে অথবা আহত হয়েছে। এই সংঘর্ষের বেশ কয়েকটি ছবিও টুইট করেছেন তিনি।

এ দিকে সূত্রের খবর, রবিবার থেকে কাবুল বিমানবন্দরে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১২ জনের। আপাতত এই বিমানবন্দর চত্বর অনেকটাই ঠান্ডা। জানা গিয়েছে ক্রমেই পঞ্চশির ভ্যালিতে প্রতিরোধের দেওয়াল শক্ত হচ্ছে। এর নেপথ্যে রয়েছেন আমরুল্লাহ সালে এবং আহমদ মাসুদ। আহমদ মাসুদ আফগানিস্তানের অন্যতম তালিবানবিরোধী যোদ্ধা আহমেদ শাহ মাসুদের পুত্র। আহমদ মাসুদ বলেছেন, বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করতে তিনি তৈরি। বাড়ি বাড়ি গিয়ে যোদ্ধাদের ফের মাঠে নামতে ডাক দিচ্ছেন তিনি। তবে পর্যবেক্ষকদের মত, কাবুলে প্রত্যাঘাত হানতে এখনও তৈরি নয় আহমদ মাসুদের দলবল। বরং ইসলামী গোষ্ঠী আঘাত হানলে পিছিয়ে পড়তে হবে আহমদকে। তাই আপাতত শক্তি সঞ্চয়ে মন দিচ্ছে তারা। প্রত্যাঘাতের  দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে হিন্দুকুশ পর্বত ঘেরা পঞ্চসির অঞ্চলের। বলা চলে এই মুহূর্তে তালিবানি আফগানিস্তানের একমাত্র অঞ্চল এটাই যা পুরোপুরি স্বাধীন রয়েছে। সালেহ ইতিমধ্যেই বলে দিয়েছেন, আমি কখনওই তালিবানের কাছে মাথা নোয়াবে না।

গত এক সপ্তাহ ধরে আফগানিস্তানের বিভিন্ন অঞ্চলে কালো লাল সবুজ পতাকার ছড়াছড়ি। স্বাধীন আফগানিস্তানের দাবিতে ছোট করে হলেও বেশ কয়েকটি প্রতিবাদ নজরে এসেছে। এমনকি বোরখা পরে প্রতিবাদের নেমে পড়েছেন মহিলারাও। জালালাবাদে প্রতিরোধের আগুন থামাতে গুলিও চালাতে হয়েছে তালিবানকে। তালিবানের আধিপত্য কায়েম করার পর শুক্রবার ছিল আফগানিস্তানের প্রথম প্রার্থনার দিন সেখানে তালিবানরা আফগানিদের নতুন তালিবানকে সময় দিতে অনুরোধ করেছে। এদিকে আগুনে বক্তৃতা দেওয়ার সময় এক ইসলামিক পন্ডিতকে কাবুল মসজিদে ঘিরে ফেলে বন্দুকধারীরা।

Published by:Arka Deb
First published:

Tags: Afghanistan