মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে গুরুত্ব দিতে হবে! ভারত সরকারের টুইটার ব্লক প্রসঙ্গে সরব মার্কিন প্রশাসন

মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে গুরুত্ব দিতে হবে! ভারত সরকারের টুইটার ব্লক প্রসঙ্গে সরব মার্কিন প্রশাসন
ভারত সরকারের আবেদনে একাধিক কড়া পদক্ষেপ করা হয়েছে Twitter-এর তরফে। ৫০০-এর বেশি অ্যাকাউন্টকে পুরোপুরি ভাবে সাসপেন্ড করে দেওয়া হয়েছে। এবার এই বিষয়ে মতামত পোষণ করল মার্কিন প্রশাসন।

ভারত সরকারের আবেদনে একাধিক কড়া পদক্ষেপ করা হয়েছে Twitter-এর তরফে। ৫০০-এর বেশি অ্যাকাউন্টকে পুরোপুরি ভাবে সাসপেন্ড করে দেওয়া হয়েছে। এবার এই বিষয়ে মতামত পোষণ করল মার্কিন প্রশাসন।

  • Share this:

কৃষক আন্দোলন ও সমকালীন রাজনৈতিক নানা ঘটনা নিয়ে সরগরম দেশের ট্যুইট মহল। এই পরিস্থিতিতে সম্প্রতি একটি খবর প্রকাশ্যে এসেছে। জানা গিয়েছে, ভারত সরকারের আবেদনে একাধিক কড়া পদক্ষেপ করা হয়েছে Twitter-এর তরফে। ৫০০-এর বেশি অ্যাকাউন্টকে পুরোপুরি ভাবে সাসপেন্ড করে দেওয়া হয়েছে। এবার এই বিষয়ে মতামত পোষণ করল মার্কিন প্রশাসন। এ নিয়ে আমেরিকার ডিপার্টমেন্ট অফ স্টেটের মুখপাত্র নেড প্রাইসের (Ned Price) স্পষ্ট বার্তা- চারদিকে যা হচ্ছে, তা নিয়ে শুধু একটাই কথা বলার রয়েছে। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে গুরুত্ব দিতে হবে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিয়ে সর্বদা যত্নশীল থাকতে হবে। আমার মনে হয় যখন Twitter-এর নিয়ম-নীতি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে, তখন তা পুরোপুরি ভাবে Twitter-এর উপরেই ছেড়ে দেওয়া ভালো!

বুধবারই এক বিবৃতিতে Twitter-এর তরফে জানানো হয়, গত দিন দশেকের মধ্যে ভারত সরকারের তরফে একাধিক নির্দেশ জারি করা হয়েছে। প্রতিটি বিজ্ঞপ্তিতে আলাদা আলাদা ভাবে ট্যুইটের একাধিক হ্যাশট্যাগ, অ্যাকাউন্ট ও পোস্ট ব্লক করার কথা বলা হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তি আইনের 69A ধারার অধীনে দেশের তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফেই এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আর সেই সূত্র ধরে সংস্থার তরফে বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ করা হয়েছে। বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে পুরোপুরি ভাবে অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড করা হয়েছে। ৫০০টির বেশি অ্যাকাউন্টের উপরে নজরদারি চলছে। আর ঠিক তার পরই আমেরিকার ডিপার্টমেন্ট অফ স্টেটের তরফে এই বক্তব্য সামনে আসে।

প্রসঙ্গত, দিনকয়েক আগে দেশে কৃষক আন্দোলন চলাকালীন টুলকিট (Toolkit) বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। আর ঠিক এর মাাঝেই Twitter-এর তরফে জানানো হয়, ক্ষতিকর বা নেতিবাচক কোনও বিষয়ের হ্যাশট্যাগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য পদক্ষেপ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে ট্যুইট ট্রেন্ড থেকে এই হ্যাশট্যাগগুলি যাতে সরানো যায়, সেই মর্মেও একাধিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।


সূত্রে খবর, এই ক্রমবর্ধমান বিতর্কের মাঝেই না কি সোমবার কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে Twitter কর্তৃপক্ষের উপরে আরও একটি নির্দেশ জারি করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, কৃষকদের প্রতিবাদকে কেন্দ্র করে কয়েকজন ভুল ও প্ররোচনামূলক তথ্য ছড়াচ্ছে। সেই জন্য Twitter থেকে মোট ১,১৭৮টি পাকিস্তানি-খালিস্তানি অ্যাকাউন্ট সরিয়ে দিতে হবে। বিশেষজ্ঞদের একাংশের প্রশ্ন, তাহলে কি দেশের সরকার সোশ্যাল মিডিয়া ও গণমাধ্যমগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করতে শুরু করেছে? ক্রমেই বাড়ছে জল্পনা, আপাতত শুধু জারি বিতর্ক!

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

লেটেস্ট খবর