Home /News /international /
‘ফেসবুকের ভুল থাকতে পারে’, ফেসবুকে তথ্য ফাঁসের দায় নিলেন জুকেরবার্গ

‘ফেসবুকের ভুল থাকতে পারে’, ফেসবুকে তথ্য ফাঁসের দায় নিলেন জুকেরবার্গ

Photo: Reuters

Photo: Reuters

ফেসবুকে তথ্য ফাঁস নিয়ে গত কয়েকদিন থেকেই উত্তাল গোটা বিশ্ব ৷

  • Share this:

    #ক্যালিফোর্নিয়া: ফেসবুকে তথ্য ফাঁস নিয়ে গত কয়েকদিন থেকেই উত্তাল গোটা বিশ্ব ৷ এমনকী, #DeleteFacebook হ্যাশট্যাগ নিয়ে রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল নেটওয়ার্কে ৷ হোয়াটসঅ্যাপের প্রতিষ্ঠাতা বিরেইন অ্যাক্টনের এক ট্যুইট থেকেই প্রশ্ন জেগেছে ফেসবুকে তথ্য ফাঁস নিয়ে ৷ তবে ফেসবুক বিতর্ক নিয়ে এতদিন কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে শোনা যায়নি ফেসবুকের সিইও জুকেরবার্গকে ৷ অবশেষে মুখ খুললেন জুকেরবার্গ ৷ দায় নিলেন ফেসবুকে তথ্য ফাঁসের ৷

    জুকেরবার্গ ফেসবুকেই জানালেন, ‘ফেসবুকের ভুল থাকতে পারে ৷ কারও উপর দায় চাপাবে না ফেসবুক ৷ তথ্য ফাঁস রুখতে নতুন পদক্ষেপ ৷ বেশ কিছু পদক্ষেপ করা হবে ৷ ’ তবে নানা মহলে প্রশ্ন উঠছে দায় নিলেও, গোটা ঘটনায় ক্ষমা চাননি ফেসবুকের সিইও ৷

    #DeleteFacebook ৷ এই হ্যাশট্যাগ রীতিমত হইচই ফেলে দিয়েছে টুইটারে ৷ ফেসবুক বন্ধ করার দাবিতে উঠেপড়ে লেগেছেন সকলে ৷ এমনকী, টুইটার ট্রেন্ডেও একেবারে প্রথমের সারিতে উঠে এসেছে এই হ্যাশট্যাগ বিপ্লব ৷ কিন্তু এই বিপ্লব ঘটনোর আসল কারণটি ঠিক কি ?

    বিপ্লবের সূত্রপাত বিরেইন অ্যাক্টনের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ৷ ভারতীয় সময় অনুযায়ী, ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ হোয়াটসঅ্যাপের সহ প্রতিষ্ঠাতা বিরেইন টুইটারে ‘It is time. #deletefacebook’ পোস্ট করেন ৷ বেরেইন টুইটারে তাঁর ফলোয়ারদের উদ্দেশে বলেন, এটিই সঠিক সময় ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ডিলিট করার ৷

    সম্প্রতি ফেসবুক নিয়ে একটি সমীক্ষা প্রকাশ্যে আসে ৷ কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা নামে একটি সংস্থা সোশ্যাল নেটওয়ার্ক থেকে সাধারণ মানুষের ব্যক্তিগত তথ্যের অপব্যবহার করছে ৷ গত দু’দিন ধরে একাধিক নিউজ চ্যানেলের স্টিং অপারেশনে উঠে এসেছে এই তথ্য ৷ প্রায় ৫০ মিলিয়ন মানুষের তথ্য নিয়ে নয়ছয় করেছে ওই সংস্থাটি ৷

    একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা রিসার্চের প্রধান ক্রিস্টোফার উইলি সম্পূর্ণ বিষয়টি ফাঁস করেন ৷ কীভাবে আপনার ব্যক্তিগত তথ্যই আপনার প্রতি বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলবে তা শুনলে হতবাক হবেন ৷

    First published:

    Tags: #DeleteFacebook, Facebook, Mark Zuckerberg, Socail Network

    পরবর্তী খবর