Home /News /international /
হিন্দু ধর্মের ঐতিহ্য পেল রূপ!‌ ২০ বছর বাদে আয়ারল্যান্ডে তৈরি হল হিন্দু মন্দির

হিন্দু ধর্মের ঐতিহ্য পেল রূপ!‌ ২০ বছর বাদে আয়ারল্যান্ডে তৈরি হল হিন্দু মন্দির

Image: Twitter @ scribesoldier

Image: Twitter @ scribesoldier

সেখানকার হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা জানাচ্ছেন, এর আগে এমন কোনও নির্দিষ্ট পূজার জায়গা ছিল না, যেখানে ধর্মপ্রাণ মানুষেরা এক হয়ে পূজা করতে পারতেন বা কোনও ধর্মীয় অনুষ্ঠান আয়োজন করতে পারতেন।

  • Share this:

    #‌ডাবলিন:‌ পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম ধর্ম হিন্দু ধর্ম। সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে থাকা অসংখ্য মানুষ এই ধর্মে বিশ্বাস করেন। আর সেই বিশ্বাসই নতুন রূপ পেল আয়ারল্যান্ডের রাজধানী ডাবলিন শহরে। সেখানে তৈরি হল প্রথম হিন্দু মন্দির। ২২ অগাস্ট এই হিন্দু মন্দিরের উদ্বোধন হল। এটি সে দেশের প্রথম হিন্দু মন্দির। ইউরোপের এই ছোট্ট দেশে বাড়তে থাকা হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য এ এক আশ্চর্য উপহার বলে মনে করছেন সে দেশের হিন্দুরা। কারণ, রোজই সে দেশে একটু একটু করে বাড়ছে হিন্দু ধর্মবিশ্বাসী মানুষের সংখ্যা। তাঁদের উপাসনার একটা জায়গা তৈরি হওয়ায় বেজায় খুশি তাঁরা।

    সেখানকার হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা জানাচ্ছেন, এর আগে এমন কোনও নির্দিষ্ট পূজার জায়গা ছিল না, যেখানে ধর্মপ্রাণ মানুষেরা এক হয়ে পূজা করতে পারতেন বা কোনও ধর্মীয় অনুষ্ঠান আয়োজন করতে পারতেন। আয়ারল্যান্ডে প্রবাসী হিন্দু ও সেখানকার বাসিন্দাদের ক্ষেত্রে এটা একটা অসুবিধাই ছিল। তাই তখন তাঁদের ভরসা করতে হত সাধারণ কমিউনিটি হলের ওপরেই। কিন্তু এই মন্দির তৈরি হওয়ায় এবার থেকে পুজো ইত্যাদি সব এখানেই করা যাবে জেনে সকলেই খুব আনন্দিত।

    আয়ারল্যান্ডের বৈদিক হিন্দু কালচার সেন্টারের ডিরেক্টর সুধাংশু ভর্মা জানিয়েছেন, প্রায় দুই যুগ ধরে তাঁরা মন্দির তৈরির বিষয়ে ভাবছেন। কিন্তু এতদিন বাদে তাঁদের স্বপ্ন পূরণ হল। রবিনন্দন প্রতাপ সিং নামে এক প্রবাসী ভারতীয় জানিয়েছেন, ‘‌আমাদের কাছে এ এক গর্বের মুহূর্ত। আমরা বাড়ির থেকে দূরে থেকেও এখন একখণ্ড জমি পেয়েছি, যেখানে আমরা আমাদের মতো করে নিজেদের ধর্মপালন করতে পারব।’‌ মন্দির কর্তৃপক্ষ এখন থেকেই সামনের দিনগুলির পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছেন। তাঁরা চাইছেন, এখানেই একটি আবাসন গড়ে তুলতে যেখানে গরীব, গৃহহীন মানুষের থাকার জায়গা হবে। এখনও পর্যন্ত আয়ারল্যান্ডের সরকারি হিসাবে ২৫ হাজার হিন্দু সেখানে বসবাস করেন।

    Published by:Uddalak Bhattacharya
    First published:

    Tags: Hindu Temple

    পরবর্তী খবর