• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • সব্বাইকে টেক্কা! YouTube থেকে ২২০ কোটির বিপুল অর্থ আয় ৯ বছরের ছোট্ট রায়ান!

সব্বাইকে টেক্কা! YouTube থেকে ২২০ কোটির বিপুল অর্থ আয় ৯ বছরের ছোট্ট রায়ান!

এর আগে শ্যাম্পু থেকে নতুন বই, বাজারে আসা এমন অনেক জিনিসের রিভিউ আমরা দেখেছি। কিন্তু ছোটরাও যে অনেক বুঝে শুনে মাথা খাটিয়ে খেলনা কেনে, সেটা রায়ান প্রমাণ করে দিয়েছে। আর তাই সে হয়ে উঠেছে এক নম্বর।

এর আগে শ্যাম্পু থেকে নতুন বই, বাজারে আসা এমন অনেক জিনিসের রিভিউ আমরা দেখেছি। কিন্তু ছোটরাও যে অনেক বুঝে শুনে মাথা খাটিয়ে খেলনা কেনে, সেটা রায়ান প্রমাণ করে দিয়েছে। আর তাই সে হয়ে উঠেছে এক নম্বর।

এর আগে শ্যাম্পু থেকে নতুন বই, বাজারে আসা এমন অনেক জিনিসের রিভিউ আমরা দেখেছি। কিন্তু ছোটরাও যে অনেক বুঝে শুনে মাথা খাটিয়ে খেলনা কেনে, সেটা রায়ান প্রমাণ করে দিয়েছে। আর তাই সে হয়ে উঠেছে এক নম্বর।

  • Share this:

#টেক্সাস: নতুন খেলনা বাড়িতে এলেই নয় বছরের ছোট্ট রায়ান কাজি চঞ্চল হয়ে ওঠে। সেই খেলনার বাক্স খুলে না দেখা পর্যন্ত তার শান্তি নেই। তার সঙ্গে সঙ্গে চলতে থাকে তার নকল স্কুল, বিজ্ঞানের নানা পরীক্ষা, মিউজিক ভিডিও বা ছোটখাটো বক্তৃতাও। তবে এ সব ভাণ্ডার নিয়ে সে একা বসে থাকে না। তার সারা দিনের খুঁটিনাটি সে ভাগ করে নেয় কয়েক লক্ষ দর্শকের সঙ্গে। মাধ্যম হল YouTube। আর এই সহজ-সরল কাজগুলো করেই সে বিশ্বের তাবড় YouTuber-কে টেক্কা দিয়ে পৌঁছে গিয়েছে এক নম্বরে। YouTube থেকে রায়ানের আয় হয় ভারতীয় মুদ্রায় ২২০ কোটি টাকা! আর তাই এখন সে হল এই বিশ্বের হায়েস্ট পেড ইউটিউবার।

রায়ান কিন্তু যা করে, তা নিজে মাথা খাটিয়েই করে! অর্থাৎ তাকে কেউ শিখিয়ে-পড়িয়ে তোতাপাখির মতো বুলি আওড়াতে শেখায়নি। আর সারল্যই হল রায়ানের ইউএসপি। তাই তো রায়ানের YouTube চ্যানেলের নাম হল রায়ান’স ওয়ার্ল্ড। ২০১৫ সালে এই চ্যানেলটি শুরু হয়। সে যা যা করতে ভালোবাসে, সহজ ভাষায় সেটাই হল এই চ্যানেলের বর্ণনা।

সম্প্রতি দেখা গিয়েছে যে এই নিয়ে তৃতীয়বার এক নম্বর স্থানে এল রায়ান। বাক্স থেকে খেলনা বের করে তার পর নিজস্ব কায়দায় সেটার রিভিউ করা দেখে দর্শকরা এত খুশি হয়েছে যে বলার নয়! আর তাই রায়ানের পিছনে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে বিশ্বের জনপ্রিয়তম অনলাইন সেলিং প্ল্যাটফর্ম যেমন অ্যামাজন (Amazon), ওয়ালমার্ট (Walmart) থেকে শুরু করে নিকেলেডনের (Nickelodeon) মতো ব্র্যান্ড। এই বাক্স থেকে খেলনা বের করা বা রায়ানের ভাষায় আনবক্সিং ভিডিওই রায়ানকে মূলত খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে দিয়েছে।

ফোর্বস পত্রিকা দ্বারা এই রিভিউ করা হয়েছে। রায়ানের পরে দ্বিতীয় স্থানে আছে মিস্টার বিস্ট (MrBeast)। ডুড পারফেক্ট (Dude Perfect) তৃতীয়, রেট অ্যান্ড লিঙ্ক (Rhett and Link) চতুর্থ এবং মারকিপ্লায়ার (Markiplier) পঞ্চম স্থান দখল করতে পেরেছে।

এর আগে শ্যাম্পু থেকে নতুন বই, বাজারে আসা এমন অনেক জিনিসের রিভিউ আমরা দেখেছি। কিন্তু ছোটরাও যে অনেক বুঝে শুনে মাথা খাটিয়ে খেলনা কেনে, সেটা রায়ান প্রমাণ করে দিয়েছে। আর তাই সে হয়ে উঠেছে এক নম্বর।

Published by:Pooja Basu
First published: