Home /News /international /

বিছানার সঙ্গে সারাদিন শিকল দিয়ে বাঁধা, বাবা মায়ের হাতেই নির্যাতিত ১৩টি শিশু

বিছানার সঙ্গে সারাদিন শিকল দিয়ে বাঁধা, বাবা মায়ের হাতেই নির্যাতিত ১৩টি শিশু

Representational Image

Representational Image

বিছানার সঙ্গে সারাদিন বেঁধে রাখা হত শিকল দিয়ে, বাবা মায়ের হাতেই নির্যাতিত ১৩টি শিশু

  • Share this:

    #ক্যালিফোর্নিয়া: বিদেশে শিশুদের উপর একের পর এক নিষ্ঠুরতার ঘটনা সংবাদ শিরোনামে ৷ কখনও যৌন নিগ্রহ তো অভিভাবকদের নিষ্ঠুরতা ৷ সাগরপাড়ে শিরিনের মতো ছোট্ট শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর মতো আরও একটি নৃশংস ঘটনা প্রকাশ্যে এল ৷ নিজের সন্তানদেরই সারাদিন বিছানার সঙ্গে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখতেন বাবা-মা ৷

    ইংরেজি দৈনিকে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সানবার্নাডিনো শহরের একটি বাড়ি থেকে ১৩টি নির্যাতিত শিশুকে উদ্ধার করেছে পুলিশ ৷ অভিযোগ, ছোট ছোট শিশুগুলিকে সারাক্ষণ বিছানার সঙ্গে শিকল-চেন দিয়ে বেঁধে রাখত তাদের বাবা-মা ৷ শিশু নিগ্রহের অভিযোগে ডেভিড অ্যলেন ও তাঁর স্ত্রী লুইস অ্যান টারপিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷

    Louise Anna Turpin and David Allen Turpin have been booked on torture and child endangerment charges. (Image courtesy: Riverside County Sheriff Dept) Louise Anna Turpin and David Allen Turpin have been booked on torture and child endangerment charges. (Image courtesy: Riverside County Sheriff Dept)

    এই উদ্ধার হওয়া সন্তানদের মধ্যে সবচেয়ে ছোটটির বয়স দুই বছর ও বড়জন এখন ২৯-এর তরুণী ৷ বয়স নির্বিশেষে তাদের সকলের সঙ্গেই একই ব্যবহার করতেন তাদের জন্মদাতা ৷ জন্মানোর পর থেকেই তাদের প্রত্যেকে সারাদিন বিছানার সঙ্গে বেঁধে রাখা হত ৷ ঘরের বাইরে এমনকী শৌচালয় যাওয়ার সুযোগও পেতেন না কেউ ৷ প্রস্রাব চাপতে না পেরে বিছানার পাশেই শৌচকর্ম করতে বাধ্য হত ওই বন্দি শিশুগুলি ৷ বাবা-মা তাদের ঠিকমতো খেতেও দিতেন না বলে অভিযোগ করেছেন তারা ৷

    জন্ম থেকে বন্দি এই ১৩টি শিশুর মধ্যে থেকে একটি ১৭ বছরের মেয়ে ফাঁক পেয়ে পালিয়ে যায় ৷ রাস্তার পথচারীদের সাহায্য নিয়ে নিকটবর্তী পুলিশ স্টেশনে পৌঁছে সমস্ত ঘটনা জানান ৷ মেয়েটির মুখে সব শুনে তৎক্ষণাৎ ওই বাড়িতে গিয়ে বন্দি বাকি শিশুদের উদ্ধার করে পুলিশ ৷

    পুলিশ সূত্রে খবর, দীর্ঘদিনের বন্দি দশা এবং ঠিক মতো খেতে না পাওয়ায় শিশুরা অপুষ্টিতে ভুগছে ৷ নিজেদের মল-মূত্রের মধ্যেই দীর্ঘদিন ধরে বাস করায় তাদের শরীরে বিভিন্ন সংক্রমণের প্রকোপ ঘটেছে ৷

    কেন শিশুগুলির সঙ্গে এমন ব্যবহার করত তা জানতে অভিযুক্তদের জেরা করছে পুলিশ ৷ ডেভিড ও লুইসের বন্ধু-বান্ধব, জীবিকা ও আত্মীয়দের সম্বন্ধেও খোঁজ নিচ্ছে পুলিশ ৷

    First published:

    Tags: California, Child Abuse, Tortured Child

    পরবর্তী খবর