নাবালিকা বিয়ে ঠেকাতে নজিরবিহীন উদ্যোগ মালদহের স্কুলের

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Dec 19, 2017 10:45 AM IST
নাবালিকা বিয়ে ঠেকাতে নজিরবিহীন উদ্যোগ মালদহের স্কুলের
Representational Image
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Dec 19, 2017 10:45 AM IST

#মালদহ:  দাল্লা চন্দ্রমোহন হাইস্কুলের। মেয়েকে ক্লাস ফাইভে ভর্তি করাতে এলেই দিতে হবে মুচলেকা। মেয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে নয়। এই মর্মে অঙ্গীকার করল তবেই মিলবে স্কুলে পড়ার ছাড়পত্র। স্কুলের এহেন উদ্যোগকে সাধুবাদ দিচ্ছেন অভিভাবকরা।

আর্থিক অনটন, সচেতনতার অভাব। মূলত এইসব কারণেই মালদহ জেলার বিভিন্ন প্রান্তে আকছাড় ঘটছে বাল্য বিবাহ। বাদ নেই হবিবপুরের দাল্লা-সহ বেশ কয়েকটি গ্রামও। আগাম খবর পেয়ে গত পাঁচ বছরে ষাটটিরও বেশি নাবালিকা বিয়ে আটকে দিয়েছে দাল্লা চন্দ্রমোহন হাইস্কুল। কখনও অনুরোধ করে, কখনও পুলিশ-প্রশাসনের সাহায্যে মিলেছে সাফল্য। তবে সারানো যায়নি রোগ। সামাজিক এই ব্যাধি দূর করতে এবার অভিনব দাওয়াই স্কুল কর্তৃপক্ষের। ক্লাস ফাইভের ভরতির ফর্মে থাকছে একটি বিশেষ কলাম। যাতে অভিভাবকদের অঙ্গীকার করতে হবে যে, ১৮ বছরের আগে তাঁরা মেয়ের বিয়ে দেবেন না। মুচলেকা দিলে তবেই পড়াশোনার সুযোগ মিলবে।

মালদহের বাংলাদেশ সীমান্ত ঘেঁষা দাল্লা গ্রামের এই স্কুলে প্রায় এগারোশো ছাত্রী পড়াশোনা করে। আশপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের মেয়েরাও এখানে পড়তে আসে। তবে মাধ্যমিকের গণ্ডি পেরনোর আগেই মেয়েকে পাত্রস্থ করাই ছিল দস্তুর। পরিস্থিতি বদলাতে স্কুলের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাচ্ছেন অভিভাবকরা।

স্কুলে মুচলেকার ব্যবস্থা চালু হওয়ায়, অনেকেরই ভবিষ্যৎ নিশ্চিত হলে বলে মত ছাত্রীদের।

এখানেই শেষ নয়। পঞ্চম শ্রেণিতে সাফল্য মিললে একাদশ শ্রেণিতেও একই পন্থা অবলম্বনের চিন্তাভাবনা স্কুল কর্তৃপক্ষের। তাদের আশা, নতুন দাওয়াইয়ে ফল মিলবে।

First published: 10:45:11 AM Dec 19, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर