Football World Cup 2018

মাটির গভীরের জল চাষের কাজে লাগাতে ইজরায়েলীয় সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া কলকাতার সংস্থার

Siddhartha Sarkar
Updated:Mar 04, 2018 11:50 AM IST
মাটির গভীরের জল চাষের কাজে লাগাতে ইজরায়েলীয় সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া কলকাতার সংস্থার
Representational Image
Siddhartha Sarkar
Updated:Mar 04, 2018 11:50 AM IST

#কলকাতা: বৃষ্টি না হলেও জলের অভাবে চাষের কাজ আটকাবে না। বিশেষ প্রযুক্তিতে মাটির গভীরে জল তুলে এনে লাগানো হবে চাষের কাজে। এই ব্যবস্থার নাম ‘ড্রিপ ইরিগেশন সিস্টেম’। ওয়াটার ক্রিপসন অর্থাৎ মাটির ভিতরে জল ছেঁচে সেচের ব্যবস্থা করারই নাম ড্রিপ ইরিগেশন সিস্টেম। প্রবল জলসঙ্কটের মোকাবিলায় ইজরায়েলকে পথ দেখিয়েছে এই প্রযুক্তি। এবার ড্রিপ ইরিগেশন সিস্টেমের সুযোগ নিতে পারবে ভারতও। এজন্য ইজরায়েলের ড্রিপ ইরিগেশন সংস্থা মেটজারপ্লাসের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধল কলকাতার সংস্থা স্কিপার।

দুই সংস্থার যৌথ উদ্যোগে তৈরি হয়েছে স্কিপার-মেটজার ইন্ডিয়া। চাষের জন্য প্রয়োজনীয় ড্রিপ ইরিগেশন প্রযুক্তি সরবরাহ করবে এই সংস্থা। নতুন সংস্থায় স্কিপার ও মেটজারের ৫০ শতাংশ করে মালিকানা থাকছে। এজন্য ৫৫০ কোটি টাকা সমান ভাগে বিনিয়োগ করেছে দুই সংস্থা। হায়দরাবাদে স্কিপারের কারখানার কাছেই গড়ে তোলা হচ্ছে নতুন সংস্থার কারখানা। সংস্থার ডিরেক্টর দেবেশ বনশলের দাবি, চলতি বছরের আগেই এই কারখানায় কাজ শুরু হবে। বাজার পেলে ২০২০ সালে দ্বিতীয় কারখানা তৈরির কাজে হাত দেওয়ারও পরিকল্পনা সংস্থার।

viewimage

বিশেষ প্রযুক্তি ড্রিপ ইরিগেশন সিস্টেম ব্যবহারের জন্যই বিশ্বজোড়া খ্যাতি মেটজারের। খরাপ্রবণ অঞ্চলেও নিজস্ব প্রযুক্তিতে নিয়মিত ফসল ফলানোর সাফল্য রয়েছে ইজরায়েলের এই সংস্থার। ভারতের ৫২ শতাংশ কৃষিজমিতেই চাষের কাজ বৃষ্টির ওপর নির্ভরশীল। প্রতি বছর জলের অভাবে নষ্ট হয় কয়েক হাজার কোটি টাকার ফসল। বিশেষত দেশের উত্তর ও পশ্চিম অংশে এই সঙ্কট আরও তীব্র। পশ্চিমবঙ্গেও এই কারণে ফসল নষ্টের পরিমাণ নেহাৎ কম নয়। দেবেশের দাবি, ভারতীয় আবহাওয়ায় ডিপ-ইরিগেশন সিস্টেমই সেরা বিকল্প। প্রধানমন্ত্রী কৃষি সিচাই যোজনার মাধ্যমে দেশের ৫০ শতাংশ জমিকে সেচের আওতায় আনার পরিকল্পনা কেন্দ্রের। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ড্রিপ ইরিগেশন প্রযুক্তিকে আরও ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সংস্থার।

First published: 11:50:11 AM Mar 04, 2018
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर