হোম /খবর /হাওড়া /
বদলে যাচ্ছে নলেন গুড়, বহু খুঁজেও মিলছে না পুরনো স্বাদ-গন্ধ, কারণ কারণ জানুন

Howrah News|| ক্রমেই বদলে যাচ্ছে নলেন গুড়, বহু খুঁজেও মিলছে না সেই পুরনো স্বাদ-গন্ধ, অবাক করা কারণ!

X
title=

বাঙালির শীত জমে না নলেন গুড় ছাড়া, তবে এই নলেন গুড় তৈরি বাঙালিকে অস্বস্তিতে ফেলেছে, ইদানিং দেখা যাচ্ছি গুড় তৈরির রস সংগ্রহ মাটির ভাঁড়ের বদলে টিনের পাত্র ব্যবহার হচ্ছে এতে কোন সমস্যা থাকছে না তো, প্রশ্ন সাধারণ মানুষের মনে...

  • Hyperlocal
  • Last Updated :
  • Share this:

#হাওড়া: স্বাদে অতুলনীয় নলেন গুড়,শীতের আমেজে নলেন গুড় না হলে-কি বাঙালির শীত জমে! নলেন গুড়ের মিষ্টি, নলেন গুড় আর পিঠে, আবার শীতের মোয়া তৈরিতে নলেন গুড়, সবমিলিয়ে নলেন গুড়ের চাহিদা দারুন। নলেন গুরের চাহিদা মেটাতে শীতের শুরুতেই জেলায় দলে দলে হাজির শিউলি। প্রায় অধিকাংশ গ্রামে দেখা মিলবে শিউলিদের গুড় তৈরি।

খেজুর গাছ কাটার পর ভার বেঁধে দেওয়া হয়, সেই ভাঁড়ে প্রতিদিন জমে খেজুর গাছের রস, সেই রস ফুটিয়ে তৈরি হয় নলেন গুড়। প্রতিদিন সন্ধার আগে গাছে ভাড় বাঁধা হয়। সকালের আলো ফুটলে সেই ভার নামিয়ে রস সংগ্রহ করা হয়। সাধারণত খেজুর রস বা তাল গাছ থেকে রস সংগ্রহ করতে সাধারনত যুগ যুগ ধরে মাটির ভাঁড় ব্যবহার হচ্ছে। তবে ইদানিং দেখা মিলছে, মাটির ভাঁড়ের পরিবর্তে করকেটের টিন বা পাত্র দেখা যাচ্ছে গাছে ঝুলতে। কিছু এলাকাতে মাটির ভাঁড়ের পরিবর্তে এই কর্কেট বা টিনে গাছ থেকে রস সংগ্রহ করা হচ্ছে বেশি, মাটির ভাঁড়ের পরিবর্তে টিনের পাত্র কেন? এই প্রশ্ন গজ গজ করছে বহু সাধারণ মানুষের মনে, এই টিন ব্যবহারে কোন সমস্যা থাকছে না তো ? দ্বন্দ্বে রয়েছে মানুষ।

আরও পড়ুনঃ মাছের জন্য বাজারে গিয়েছিলেন, কী ঘটল আচমকা! বাড়ি ফিরে চক্ষু চড়কগাছ যুবকের

তবে এই টিন ব্যবহার কেন? সমস্যা কি? সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানালেন রবিন দাস। তিনি দীর্ঘ কয়েক বছর এই গুড় তৈরির সঙ্গে যুক্ত। রবিন জানিয়েছেন, তিনি বহু বছর ধরে মাটির ভাঁড় ব্যবহার করে আসছেন, তবে ইদানিং কিছু পরিমাণ টিন গাছে বাঁধছেন রস সংগ্রহ করছেন। কারণ, প্রথমত মাটির ভাঁড়ের দাম প্রায় দ্বিগুণ। এক একটি মাটির ভাঁড়ের দাম ৭০ টাকা। আবার কিছু এলাকায় মাটির ভাঁড় ভেঙে দেয়ার প্রবণতা দেখা দিচ্ছে, সেই গাছে ভেঙে দেওয়া আটকাতে টিনের পাত্র বেঁধে দেওয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে, টিন ব্যবহারের সুবিধা রয়েছে মাটির পাত্র ব্যবহার করতে হলে প্রথমত মাটির পাত্রকে ভালো করে রস ঝাড়াই করে মাটির ভাঁড়কে গরম করতে হবে গরম করে শুকিয়ে রেখে তবেই গাছে বাঁধা যাবে ওই ভাঁড়, একটু অসতর্ক হলে রস নষ্ট হবার সম্ভাবনা থাকে। তবে টিনের পাত্রের ক্ষেত্রে পাত্র জলে ধুয়ে নিয়ে উপর করে রাখলেই সহজে শুকিয়ে নেওয়া যায়। টিনের ক্ষেত্রে রস বয়ে নিয়ে আসা, মাটির ভাঁড়ের থেকে অনেকটা সুবিধা জনক।

তবে টিন ব্যবহারে একটু সতর্কতা রয়েছে, টিন ব্যবহার করার সময় লক্ষ্য রাখতে হবে, নিকেল উঠে মরচে পড়ার আগে পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে টিন। সে দিক লক্ষ্য রাখলে টিন ব্যবহারেও কোন অসুবিধা নেই বলেই জানান, শিউলি রবিন দাস।

রাকেশ মাইতি

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Howrah