Home /News /hooghly /
Hooghly News: মোবাইল গেম খেলায় বাধা মায়ের! তাতেই চরম কাণ্ড ঘটাল ছেলে! জানলে শিউরে উঠবেন !

Hooghly News: মোবাইল গেম খেলায় বাধা মায়ের! তাতেই চরম কাণ্ড ঘটাল ছেলে! জানলে শিউরে উঠবেন !

Hooghly News: ছেলেকে গেম খেলায় বাধা দিলেন মা! আর তাতেই ঘটে গেল সর্বনাশ!

  • Share this:

    #হুগলি : বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে মোবাইলের প্রতি আসক্ত গোটা একটা জেনারেশন। পড়াশোনা থেকে শুরু করে কোনও তথ্য জানা , সবের জন্য প্রয়োজন স্মার্ট ফোন । তবে মোবাইলের ব্যাবহার কিছুটা কয়েনের হেড আর টেলের মতো। ভালো খারাপ দুই দিক রয়েছে। একদিকে জেনারেশন ওয়াই যেমন পড়াশোনার জন্য ব্যবহার করছে মোবাইল ফোন তেমনি আসক্ত হয়ে পড়ছে মোবাইল ফোনে গেম খেলার প্রতি অন্য এক দল। পাড়ার মোড় থেকে শুরু করে রকের আড্ডা সব জায়গাতেই এখন চলে এসেছে মোবাইল ফোন ও তার গেমগুলি।

    এমন একটি গেম রয়েছে যার প্রতি জেনারেশন ওয়াই খুব বেশি পরিমাণে আসক্ত তার নাম 'ফ্রী ফায়ার।' যেখানে একটি ভার্চুয়াল ওয়ার্ল্ডের মধ্যে ওই গেমের ভার্চুয়াল মানুষ এবং তার সঙ্গীরা লড়াই করে অন্য ভার্চুয়াল ক্যারেক্টারের সঙ্গে। এবং এই গেমগুলি আফিমের নেশার মত আসক্ত করে তুলেছে তরুণ প্রজন্মকে।

    পান্ডুয়ার নগরডাঙ্গা এলাকার বাসিন্দা বছর ১৯ এর রাহুল ও আসক্ত হয়ে পড়েছিল একই রকম ভাবে। তার পরিবারের দাবি, গেম খেলার জন্য পড়াশোনা ছেড়ে দিয়েছিল রাহুল। বাড়ি থেকে দীর্ঘদিন ধরে কোন কাজের খোঁজ করতে বললেও কর্ণপাত করত না সে। মা ও রাহুল পরিবারে দু'জন মাত্র। সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে থেকেই মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ত গেম খেলার জন্য। সোমবার সকালেও ঘটে একই ঘটনা। রাহুলের মা, গেম খেলার জন্য রাহুলকে তিরস্কার করলে অভিমানের বসে কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে সে। বাড়ির লোকের নজরে ঘটনাটি আসার সঙ্গে সঙ্গেই তাকে নিয়ে যাওয়া হয় পান্ডুয়া গ্রামীণ হাসপাতালে। হাসপাতালে বর্তমানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে রাহুল।

    এই বিষয়ে চিকিৎসক মিথিলেশ কুমার জানান, মোবাইলের প্রতি যে আসক্তি সেটি ছোট থেকেই তৈরি হয়ে চলে আসছে বাচ্চাদের মানসিক অবচেতন মনের মধ্যে। এর জন্য প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে পিতা-মাতাদেরও কাঠগড়ায় তোলেন তিনি। ডাক্তারবাবু বলেন, ' অনেক সময় দেখা যায় বাচ্চারা না খেলে তাদের হাতে মোবাইল তুলে দেওয়া হয় যাতে তারা খেয়ে নেয়' এভাবেই সূত্রপাত ঘটে মোবাইলের সঙ্গে শিশু মস্তিষ্কের আসক্তির। এর থেকে প্রতিকার পাওয়ার জন্য তিনি বলেন বাচ্চাদের প্রথম থেকে প্রয়োজনের বেশি মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে না দেওয়াই শ্রেয়। রাহুলের বিষয়ে তিনি জানান, বর্তমানে রাহুল বিপদ সীমার বাইরে রয়েছে। তবুও তাকে এখনো পর্যবেক্ষণের জন্য রাখা হচ্ছে হাসপাতালেই।

    রাহী হালদার

    Published by:Piya Banerjee
    First published:

    Tags: Hooghly, Hooghly news

    পরবর্তী খবর