হিন্দু সংস্কারকে অপমান, নাকছবি পরে স্কুলে গিয়েছিল ছাত্রী, তারপর যা হল...

News18 Bangla
Updated:Feb 08, 2019 03:07 PM IST
হিন্দু সংস্কারকে অপমান, নাকছবি পরে স্কুলে গিয়েছিল ছাত্রী, তারপর যা হল...
Source: YouTube screengrab
News18 Bangla
Updated:Feb 08, 2019 03:07 PM IST

#পারথ: এআর রহমান মেয়ে বোরখা পরবেন না পরবেন এই নিয়ে জোর বিতর্ক চলছে দেশ জুড়ে ৷ তারমধ্যেই  ফের বড় বিতর্ক ৷ যেখানে আবার কোনও ধর্মের মানা রীতিকে জোর করে না করে দেওয়া হল ৷

অস্ট্রেলিয়ায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের নিজেদের সংস্কার করতে দেওয়া হচ্ছে না এই অভিযোগে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া ৷ বিষয়টি এতটাই মারাত্মক আকার নিয়েছে যে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজকে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার আবেদন জানানো হয়েছে ৷

পারথের আরানমোর ক্যাথলিক কলেজ পড়তেন এক হিন্দু মেয়ে ৷ তাঁর নাম সান্যা সিংহল ৷ ১৫ বছরের এই কিশোরী ক্লাস টেনের ছাত্রী ছিলেন ৷ তিনি নাক বিঁধিয়ে স্কুলে যাওয়ার পরেই শুরু হয় গণ্ডগোল ৷

এই স্কুলে ক্লাস ৩ থেকে পড়াশুনো করছেন সান্যা ৷ ওয়েস্ট অস্ট্রেলিয়ান রিপোর্ট নামের একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ি সিংহলের মা জানিয়েছেন হিন্দু ধর্মের রীতি অনুযায়ি একজনের মেয়ে থেকে নারী হয়ে ওঠার চিহ্ন নাক বিঁধনো ৷ অনেক সময় বিয়ের পরিচয়ও বহন করে এই নাক বিঁধনোর বিষয়টি ৷ ধর্মীয় কারণেই সান্যাকে বছরে অন্তত একবার এই নাকছবি পরতে হয় ৷

 মেয়েটি স্কুলে নাকছবি পরে গেলে তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে সেটা খুলে ফেলতে বলা হয় ৷ মেয়েটি তাঁর মায়ের লেখা চিঠি দেখালেও তাঁকে সেটি খুলে ফেলতে বাধ্য করা হয় ৷ পাশাপাশি বলা হয় এই মুহূর্তে স্কুল থেকে চলে যেতে বলা হয় ৷

আরও পড়ুন - #MeToo : অলোকজী এরকম ভাবতে পারিনি, নীরবতা ভেঙে যা বললেন মাধুরী

স্কুলের বিরুদ্ধে ধর্মীয় বৈষম্যের অভিযোগ করেছেন  মা ৷ তিনি আরও জানিয়েছেন মুসলিম মেয়েদের স্কার্ফ দিয়ে মাথা ঢাকতে দেওয়া হয় , খ্রীষ্টান মেয়েদের ক্রস পরতে দেওয়া হয় ৷ সেখানে কেনও একজন হিন্দু মেয়েকে নাকছবি পরতে দেওয়া হবে না ৷

এই ঘটনার জেরে টুইটার ভাইরাল ৷

1 2 3 4 5

First published: 03:07:07 PM Feb 08, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर