গুজরাতে ৯৯-এ আটকে গেল বিজেপি, হিমাচলে ধরাশায়ী কংগ্রেস

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Dec 18, 2017 06:21 PM IST
গুজরাতে ৯৯-এ আটকে গেল বিজেপি, হিমাচলে ধরাশায়ী কংগ্রেস
Photo: PTI
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Dec 18, 2017 06:21 PM IST

#আহমেদাবাদ: বুথভিত্তিক সংগঠনে ভোটের ফল বদলে দেওয়াটা তাদের বাঁয়ে হাত কা খেল। এবার কী সেই মিথ কিছুটা হলেও ধাক্কা খেল ? গুজরাত দখলে ১৫০ আসনের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিয়েছিলেন অমিত শাহ। বাস্তবে ১০০ আসনের নীচেই থামতে হল গেরুয়া শিবিরকে। উল্টে গেল মোদি-শাহ জুটির সব হিসাব। গ্রামীণ গুজরাতে ধস, ওবিসি ভোটব্যাঙ্কে ফাটল - এসব বোধহয় ভাবতেই পারেননি অমিত শাহরা।

টার্গেট ১৫০ আসন। ভোটের চার মাস আগেই লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিয়েছিলেন বিজেপি সভাপতি। তার ধারেকাছে পৌঁছনো যায়নি। গুজরাতে বছরভরই নাকি সক্রিয় থাকে গেরুয়া শিবিরের ভোট মেশিনারি। বুথ ভিত্তিক সংগঠনে তাঁরাও ডাহা ফেল। ফল গত আড়াই দশকে সবচেয়ে খারাপ ফল।

কোথায় মিলল না মোদি- শাহ জুটির সমীকরণ ?

দক্ষিণ ও মধ্য গুজরাতের আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় ৭টি আসন কমেছে ৷ গ্রামীণ এলাকায় হার ৮টি আসনে ৷ সৌরাষ্ট্রে ১৪ টি আসন হাতছাড়া ৷ এর মধ্যে ১২ টিই কংগ্রেসের দখলে ৷ তবে শহর এলাকায় অটুট গেরুয়া ভোটব্যাঙ্ক ৷

9f14afdad1524a439dde05458db535fb-9f14afdad1524a439dde05458db535fb-0

দলীয় রিপোর্ট কিন্তু জানাচ্ছিল, অসন্তোষ রয়েছে। উন্নয়ন, জাতপাত, সংরক্ষণ, জিএসটি , নোটবাতিল নিয়ে ক্ষোভে ফুটে উঠতে পারে ইভিএমে। সেই মতো ড্যামেজ কন্ট্রোলও শুরু হয়। জিএসটি কমানো, নতুন সংরক্ষণ নীতির প্রতিশ্রুতিতেও লাভ হবে কিনা আশঙ্কা ছিল। তাই শেষপর্যন্ত সত্যিই প্রমাণিত হল ভোটবাক্সে।

পূর্ব সুরাতে আসন হাতছাড়া গেরুয়া শিবিরের

কাজ করেনি মোদি পাক ষড়যন্ত্র তত্ত্ব

পালানপুর আসন হাতছাড়া হয়েছে বিজেপির

এখানে জনসভাতেই পাক ষড়যন্ত্রের অভিযোগে নরেন্দ্র মোদির

জামালপুর-খান্দিয়ার মতো বিজেপির দুর্গে হার

হার প্রধানমন্ত্রীর কেন্দ্র উনঝাতে

সেই মতোই ঢেলে সাজানো হয় বুথভিত্তিক সংগঠন। ক্লান্তিহীন প্রধানমন্ত্রীর একের পর এক জনসভা। পাক যোগের অভিযোগ। তারপরও ভোটের ফল নিয়ে অজুহাত খুঁজতে হচ্ছে অমিত শাহদের। গুজরাতে উতরানো গিয়েছে। মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থানে সহ একাধিক পরীক্ষা আরও কঠিন। ২০১৯ এর দিল্লির রাস্তা যে আরও কঠিন, তা মালুম পাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি-অমিত শাহরা।

PTI12_18_2017_000046B

এদিকে পালাবদল হলেও হিমাচলে নিষ্কন্টক হল না বিজেপির জয়। মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী প্রেমকুমার ধুমল পরাজিত হলেন। ধুমলের ঘনিষ্ঠ দলের রাজ্য সভাপতি সতপাল সাত্তি, ধুমলপুত্র অনুরাগ ঠাকুরের শ্বশুর গুলাব সিংও জয়ের মুখ দেখলেন না। বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী বীরভদ্র সিং জয়ী হয়েছেন। জিতেছেন তাঁর ছেলে বিক্রমাদিত্য সিংও। হিমাচল প্রদেশে ভোট-ভরাডুবির জন্য ইভিএম কারচুপিকেই দায়ী করেছে কংগ্রেস নেতৃত্ব।

হিমাচল প্রদেশ হাতছাড়া হল কংগ্রেসের। পাহাড়ি রাজ্যে পদ্মফুল ফুটলেও মসৃণ জয় পেল না টিম মোদি। আটষট্টি আসনের হিমাচলক প্রদেশে বিজেপি পেল ৪৪ আসন। কংগ্রেস ২০ ও অন্যান্য ৪ ৷

PTI12_18_2017_000090B

হিমাচল প্রদেশের ফলাফল 

মোট আসন- ৬৮

বিজেপি ----- ৪৪

কংগ্রেস ------ ২০

অন্যান্য ----- ৪

তবে বিজেপির কাছে সবচেয়ে বড় অস্বস্তি মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী প্রেম কুমার ধুমলের হার। একই সঙ্গে দলের রাজ্য সভাপতি সতপাল সাত্তি ও গুলাব সিং ঠাকুরের হারেও মুখ পুড়েছে গেরুয়া শিবিরের।

পরাজয়ে অস্বস্তি বিজেপির 

-- প্রেম কুমার ধুমল পরাজিত

-- রাজ্য সভাপতি সতপাল সাত্তি পরাজিত

-- গুলাব সিং ঠাকুর পরাজিত

হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রী কে হবেন এ নিয়ে অবশ্য এখন মাথা ঘামাচ্ছে না গেরুয়া শিবির। কংগ্রেসের দখলে থাকা রাজ্য পুনর্দখলের পর স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত বিজেপি নেতৃত্ব।

মাটি ধরে রাখার লড়াইয়ে কংগ্রেসের পথে কাঁটা হয়ে দাঁড়ায় বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী বীরভদ্র সিংয়ের বিরুদ্ধে পাহাড়প্রমাণ দুর্নীতির অভিযোগ। গুড়িয়া ধর্ষণকাণ্ডের মতো বিস্ফোরক অভিযোগও কংগ্রেসকে অনেকটা ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়েছিল। তবে দল হারলেও ছেলে বিক্রমাদিত্য সিংকে এগিয়ে দিলেন বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী। সিমলা গ্রামীণ কেন্দ্রে জয়ী হলেন বিক্রমাদিত্য। জিতেছেন বীরভদ্র সিং নিজেও।

PTI12_18_2017_000076B

First published: 06:20:04 PM Dec 18, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर