রাত পোহালেই গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলঘোষণা, গোটা দেশের নজর মোদির রাজ্যে– News18 Bengali

রাত পোহালেই গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলঘোষণা, গোটা দেশের নজর মোদির রাজ্যে

এগজিট পোল বিজেপিকে যতই এগিয়ে রাখুক, গুজরাতের ফলের আগে ইভিএম কারচুপির অভিযোগ তুলে ফের বিস্ফোরণ ঘটালেন হার্দিক প্যাটেল।

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Dec 17, 2017 05:09 PM IST
রাত পোহালেই গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলঘোষণা, গোটা দেশের নজর মোদির রাজ্যে
File Photo
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Dec 17, 2017 05:09 PM IST

#নয়াদিল্লি: এগজিট পোল বিজেপিকে যতই এগিয়ে রাখুক, গুজরাতের ফলের আগে ইভিএম কারচুপির অভিযোগ তুলে ফের বিস্ফোরণ ঘটালেন হার্দিক প্যাটেল। টুইটে তাঁর মন্তব্য, জালিয়াতি না করলে রাজ্যে বিরাশিটি আসন পাবে না বিজেপি। পতিদার সম্প্রদায়কে রাতে সতর্ক থাকার বার্তাও দিয়েছেন তিনি। পাস প্রধানের এই অভিযোগকে হাতিয়ার করে ময়দানে নেমেছেন কংগ্রেস নেতারা। তবে এসব অভিযোগ উড়িয়ে দিচ্ছে গেরুয়াশিবির।

সোমবার গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলঘোষণা।

খাতায়কলমে দুই রাজ্যের ফল হলেও, আসলে গোটা দেশের নজর মোদির রাজ্যে। সেখানে বুথ ফেরত সমীক্ষায় সবকটি সংস্থাই বিজেপিকেই কমবেশি এগিয়ে রাখছে।

সমীক্ষায় এগিয়ে বিজেপি

টুডেস চাণক্যের সমীক্ষায় বিজেপি ১৩৫ আসন পাবে বলে দাবি করা হচ্ছে। সংস্থার দাবি, কংগ্রেস পাবে ৪৭ আসন।

Loading...

রিপাবলিক টিভির সমীক্ষায় দাবি করা হয়েছে ১১৫ আসন পাবে বিজেপি। কংগ্রেস পেতে চলেছে ৬৫ আসন। অন্যান্যদের হাতে থাকবে ২ আসন।

ইন্ডিয়া টুডের দাবি, বিজেপির দখলে থাকবে ৯৯ থেকে ১১৩ আসন। কংগ্রেস পেতে পারে ৬৮ থেকে ৮২ আসন। অন্যান্যদের দখলে থাকবে ৩ থেকে ১৫ আসন।

টাইমস নাও জানিয়েছে, বিজেপি পেতে পারে ১০৯ আসন। কংগ্রেসের দখলে থাকবে ৭০ আসন ও অন্যান্যরা পেতে পারে ৩ আসন।

সাহারা সময়ের দাবি, বিজেপি ১১০ থেকে ১২০ আসন পেতে পারে। কংগ্রেসের হাতে থাকবে ৬৫ থেকে ৭৫ আসন। অন্যান্যদের আসন সংখ্যা ৮ থেকে ১০-এর মধ্যে থাকবে।

টিভি-৯-এর দাবি, বিজেপির আসন নেমে দাঁড়াবে ১০৮-এ। কংগ্রেস পেতে পারে ৭৪ আসন।

গুজরাতকে মডেল বলে দাবি করেই ২০১৪ সালে জাতীয় স্তরে মোদির উত্থান। কিন্তু, বিজেপির সেই গড়েই হানা দিয়েছে কংগ্রেস। পতিদার সম্প্রদায়ের ক্ষোভ, গ্রামে পানীয় জল, চিকিৎসা পরিষেবা, কর্মসংস্থানের অভাবের মতো জোরাল দাবি তুলে দিয়েছে হাতশিবির। রাহুলের হাতে হাত মিলিয়েছেন জিগ্নেশ মেবানি, অল্পেশ ঠাকুর বা হার্দিক প্যাটেলরা। সোমবার গুজরাতের ফলঘোষণার আগে ফের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন পাসপ্রধান হার্দিক। টুইটে লিখেছেন,

হার্দিকের বিস্ফোরক টুইট

ভোটে হারবে বিজেপি। তাই রবিবার রাতে ইভিএমে কারচুপি করতে পারে তারা। ইভিএমে জালিয়াতি না হলে বিজেপি মাত্র ৮২ আসন পাবে।

হার্দিক যে হিসেব দিয়েছেন তা সত্যি হলে গুজরাতে সব বুথফেরত সমীক্ষাই ভুল প্রমাণিত হবে। হার্দিকের এই অভিযোগকে হাতিয়ার করেই নতুন করে শোরগোল ফেলে দিয়েছে কংগ্রেস।

গুজরাত ও হিমাচলে জয় নিয়ে আত্মবিশ্বাসী বিজেপি।

উত্তরপ্রদেশ ভোটের পর থেকেই ইভিএম কারচুপির অভিযোগ উঠতে থাকে। গুজরাত নির্বাচনে তা জোরাল হয়। ফলঘোষণার আগেও তা থিতোয়নি। বরং তা নতুন করে বিতর্ক বাধাল।

First published: 05:02:03 PM Dec 17, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर