Home /News /entertainment /
Web Series : রহস্যের সমাধান হবে? তরুণ পুলিশ ও কিশোর দাবাড়ুর জুটি 'জনি বনি' কি সফল হবে?

Web Series : রহস্যের সমাধান হবে? তরুণ পুলিশ ও কিশোর দাবাড়ুর জুটি 'জনি বনি' কি সফল হবে?

ওয়েব সিরিজে দেবাশিস, স্বস্তিকা ও অঙ্কিত।

ওয়েব সিরিজে দেবাশিস, স্বস্তিকা ও অঙ্কিত।

Web Series: তরুণ পুলিশ আধিকারিক ও কিশোর দাবাড়ুর গল্প নিয়ে আসছে নতুন ওয়েব সিরিজ জনি বনি।

  • Share this:

    #কলকাতা: তরুণ পুলিশ আধিকারিক ও কিশোর দাবাড়ুর গল্প নিয়ে আসছে নতুন ওয়েব সিরিজ জনি বনি। অভিজিৎ চৌধুরী পরিচালিত এই ওয়েব সিরিজ আসছে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম 'ক্লিক'-এ। তরুণ পুলিশ অফিসার জনার্দন দাস ওরফে জনি চায় বড় কোনও ইনভেস্টিগেশন কেসের দায়িত্ব পেতে।  তবে বড় কেস তো দূর, জনির পোস্টিং হয় স্থানীয় পলিটিশিয়ান প্রমোদ সেনের বাড়ির নিরাপত্তার তদারকির দায়িত্বে। প্রমোদ সেনের স্ত্রী সুরমা, জনিকে বাড়ির ছেলে হিসেবে ভালোবাসেন বলে দাবি করে। প্রমোদের আপত্তি থাকা সত্ত্বেও, বাড়ির বাজার করা থেকে পোষ্য কুকুরের দেখাশুনো, সবরকমের গৃহস্থালি কাজ করাই জনির প্রধান দায়িত্ব হয়ে দাঁড়ায়। বার বার চেষ্টা করা সত্ত্বেও জনি কিছুতেই থানা থেকে ডিউটি চেঞ্জ করতে পারে না। জনিকে ওর স্ত্রী আঁখির কাছে ডিউটি নিয়ে মিথ্যে গল্প দিতে হয়, কারণ আর যাই ঘটুক জনি কিছুতেই আঁখির চোখে ছোটো হতে পারবে না।

    এর মধ্যে আঁখির দিদির ছেলে, ১৩ বছরের বনি, দুর্গাপুরে ওর বাড়ি থেকে পালিয়ে  জনার্দনদের বাড়িতে এসে হাজির হয়। কলকাতায়  একটা দাবা টুর্নামেন্ট খেলবে বলে। জনি এবং বনির মধ্যে সম্পর্কটা একটু গোলমেলে। অনেকটা টম এন্ড জেরির মতো। জনি চায় বনি বড়দের শাসন মেনে কাজ করুক। কিন্তু বনি কিছুতেই বিশ্বাস করে না ছোটরা বড়দের থেকে কম বোঝে। জনি আঁখিকে ডিউটি নিয়ে যেই গল্প দিতে যায়, বনি সেগুলো গুল হিসেবে ঘোষণা করে দেয়।

    জনির ভাগ্যচক্রে হঠাৎ পরিবর্তন আসে যখন তিনজন দুষ্কৃতী প্রমোদ সেনের বাড়িতে অকস্মাৎ হামলা করে এবং জনি অসীম সাহসিকতার পরিচয় দিয়ে নিজে গুলি খেয়ে প্রমোদ সেনদের বাঁচিয়ে দেয়। কিন্তু ঘটনার পর থেকে প্রমোদ সেনের মেয়ে রিমিরও খোঁজ পাওয়া যায় না। অবশেষে জনি একটা রোমাঞ্চকর মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায়। জনি তদন্ত করতে শুরু করে ক্রমশ বুঝতে পারে অত্যন্ত পাওয়ারফুল কিছু মানুষ গোটা ঘটনাটার সঙ্গে জড়িয়ে এবং লোকাল থানা আসলে চায় না কেসটার সমাধান হোক। একই সঙ্গে বনির দাবা টুর্নামেন্ট শুরু হয়।

    জনি কি পারবে তার কেরিয়ারের প্রথম মামলার সমাধান করতে?  বনি কি পারবে দাবা টুর্নামেন্টে জিতে নিজেকে প্রমাণ করতে?  নাকি দুজনকে লক্ষ্য পূরণ করতে একে অন্যের সাহায্য নিতে হবে। পরতে পরতে রহস্য, দাবার চাল, অলীক স্বপ্ন ছুঁতে চাওয়া এক পুলিশ অফিসার এবং এক কিশোরের আখ্যান নিয়েই গল্প 'জনি বনি'।

    সিরিজের অনেকাংশ ঘিরে রয়েছে দাবা খেলার দৃশ্য। সেইগুলিতে নাকি সাহায্য করেছেন খ্যাতনামা দাবাড়ু দিব্যেন্দু বড়ুয়া। পরিচালক বলছেন, "জনি একজন তরুণ পুলিশ অফিসার এবং বনি একজন কিশোর দাবা খেলোয়াড়। তাই সিরিজিটিতে একদিকে যেমন আমাদের দেশের পুলিশি ব্যবস্থার বিভিন্ন দিক ও প্রসঙ্গ উঠে এসেছে, অন্যদিকে দাবা খেলার প্রচুর খুঁটিনাটি একইসঙ্গে সিরিজিটির গল্পে এসেছে। বেশ কিছু প্রাক্তন পুলিশ অফিসার যেমন আমাদের সাহায্য করেছেন, পুলিশের সঙ্গে সমাজের বিভিন্ন অংশের অংশের সমীকরণ বুঝতে একইভাবে কিছু খ্যাতনামা দাবাড়ু আমাদের সাহায্য করেছেন দাবা খেলাকে নিখুঁতভাবে গল্পে চিত্রায়ন করতে। বিশেষত আমরা অত্যন্ত কৃতজ্ঞ গ্র্যান্ডমাস্টার দিব্যেন্দু বড়ুয়া এবং তাঁর চেস অ্যাকাডেমির কাছে, আমাদের নানাভাবে সাহায্য করার জন্য।"

    ওয়েব সিরিজে জনির চরিত্রে দেখা যাবে দেবাশিস মণ্ডলকে। বনির চরিত্রে রয়েছে অঙ্কিত মজুমদার। জনির স্ত্রী অর্থাৎ আঁখির চরিত্রে স্বস্তিকা দত্ত। এছাড়াও মিল্রকি ওয়ে ফিল্ম প্রযোজিত এই ওয়েব সিরিজে অভিনয় করেছেন কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়, লোকনাথ দে, অনির্বাণ ভট্টাচার্য, যুধাজিৎ সরকার, শুভস্মিতা মুখোপাধ্যায়, পুষ্পিতা মুখোপাধ্যায়, জয়তী চক্রবর্তী, অভ্যুদয় দে এবং তুষিতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সিরিজে সঙ্গীত আয়োজন করেছেন আকিব হায়াত।

    দেবাশিস এই চরিত্রে কাজ করা নিয়ে বলছেন, "জনার্দন দাসের চরিত্রটির সঙ্গে আমি অনেকাংশেই মিল খুঁজে পেয়েছি। ভাবনাচিন্তা, আদর্শ, ব্যক্তিগত জীবন ও পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতিগত টানাপোড়েনের যে মানসিক অবস্থার মধ্যে দিয়ে জনি ওরফে জনার্দন যায় তার সঙ্গে বহু অংশেই আমি সমানুভূতি অনুভব করি। যথেষ্ট চাপের মধ্যে শুটিং হলেও জনার্দন চরিত্রটি করা আমার জন্য একটি অনবদ্য যাত্রা ছিল। চরিত্রটি এই সিরিজের চিত্রনাট্যকার এবং পরিচালক অভিজিৎ চৌধুরীর ভাবনা থেকে উঠে এসেছে । তাই তার সঙ্গেই এই গল্প নিয়ে আলোচনার সময় বুঝতে পারি, এই চরিত্রের মূল দ্বন্দ্ব, যা আমাদেরই সামাজিক এবং ব্যক্তিগত জীবনের থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে তৈরি। যে কারণে এই চরিত্রের সঙ্গে অনেকটাই একাত্ম হতে পেরেছিলাম। বাকিটা কল্পনার ভিত্তিতে এই চরিত্রটিকে একটি বাস্তবিক রূপ দিতে সাহায্য করেছে। সহ অভিনেতা-অভিনেত্রীদের নির্মিত সহচরিত্রের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলতে সাহায্য করেছে। স্বস্তিকা, অঙ্কন কমলেশ্বর বাবু সহ আরও অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সঙ্গে এবং বিশেষত ক্লিকের সঙ্গে এটি আমার প্রথম কাজ। এই সিরিজটি আমার অভিনয় জীবনের একটি উল্লেখযোগ্য কাজ হয়ে থাকবে।"

    আরও পড়ুন- দম আটকে আসত! ২২০ কিলো থেকে ওজন কমিয়ে এখন ৬৫ কিলো, আদনান সামির ডায়েট চার্ট জানুন

    এই সিরিজে কাজ করার অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন স্বস্তিকাও। স্বস্তিকা বলছেন, "জনি বনি নিয়ে আমি খুব এক্সাইটেড কারণ এই প্রথম কোনও ডিটেক্টিভ থ্রিলারের অংশ আমি। ক্লিকের সঙ্গেও এটা আমার প্রথম কাজ।অভিজিৎ স্যরের সঙ্গে কাজ করাও একটা দারুণ অভিজ্ঞতা। এর জন্য আমি কৃতজ্ঞ।"

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    Tags: Bengali Web series

    পরবর্তী খবর