'কাজই সব প্রমাণ করবে'! সোশ্যাল মিডিয়া 'ইঙ্গিতবহ' পোস্ট যশ দাশগুপ্তর

'কাজই সব প্রমাণ করবে'! সোশ্যাল মিডিয়া 'ইঙ্গিতবহ' পোস্ট যশ দাশগুপ্তর

ইনস্টাগ্রাম পোস্টের মাধ্যমে পরোক্ষভাবে বোঝালেন, তিনি কাজ করতে প্রস্তুত। কথা নয়, কাজের মাধ্যমেই নিজেকে প্রমাণ করতে চান তিনি। এমনই বার্তা দিলেন যশ।

ইনস্টাগ্রাম পোস্টের মাধ্যমে পরোক্ষভাবে বোঝালেন, তিনি কাজ করতে প্রস্তুত। কথা নয়, কাজের মাধ্যমেই নিজেকে প্রমাণ করতে চান তিনি। এমনই বার্তা দিলেন যশ।

  • Share this:

    #কলকাতা: রীতিমতো চমক দিয়ে সদ্যই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন টলিউড অভিনেতা যশ দাশগুপ্ত। আর কয়েক দিনের মধ্যেই একটি ইনস্টাগ্রাম পোস্টের মাধ্যমে পরোক্ষভাবে বোঝালেন, তিনি কাজ করতে প্রস্তুত। কথা নয়, কাজের মাধ্যমেই নিজেকে প্রমাণ করতে চান তিনি। এমনই বার্তা দিলেন যশ।

    ইনস্টাগ্রামে নিজের একটি ছবি পোস্ট করে তার ক্যাপশনে যশ লেখেন, কাজই সব সময় সব কিছু প্রমাণ করে। কথা দিয়ে কিছু আসে যায় না। নেটিজেনরা মনে করছেন, রাজনীতির ময়দানে নেমে নিজেকে নতুন ভাবে প্রমান করতে উদ্যত হয়েছেন তিনি।

    অভিনেতা বা সেলিব্রিটিরা প্রায়ই সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলড হন। যশেরও সেই অভিজ্ঞতা রয়েছে। রাজনীতিতে আসার আগে যেমন ট্রোলড হয়েছেন। রাজনীতিতে পা রাখার পরেও বহু সমালোচনা ও ট্রোলিং-এর সম্মুখীন হচ্ছেন তিনি। সেই সবের উত্তর দিতেই কি এই পোস্ট যশের? প্রশ্ন উঠছে নেট মাধ্যমে।

    View this post on Instagram

    A post shared by Yash (@yashdasgupta)

    প্রসঙ্গত গত ১৭ ফেব্রুয়ারি বিজেপির পতাকা তুলে নিয়েছেন টলিউড অভিনেতা। এদিন পতাকা তুলে নেওয়ার পরেই রাজ্যে পরিবর্তনের প্রয়োজনের কথা শোনা যায় যশের মুখে। তিনি বলেন, "এই সিদ্ধান্ত হঠাৎ করে নেওয়া নয়। আমার বয়স কম। তাই আমার লক্ষ্যও তরুণ প্রজন্ম। বিজেপি সব সময়ে তরুণ প্রজন্মের উপরেই জোর দিয়েছে। রাজনীতি মানেই পরিবর্তন। আর পরিবর্তন আনতে গেলে সিস্টেমের মধ্যে এসে কাজ করা দরকার।"

    তবে বিজেপি-তে যোগ দিলেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের প্রতি তিনি শ্রদ্ধাশীল বলেই জানিয়েছেন। যশ এদিন বলেন, যে তিনি এখনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে যথেষ্ট শ্রদ্ধা করেন এবং এখনও নিজেকে দিদি-র ভাই বলেই মনে করেন। এদিন যশ এও জানান যে, বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আশীর্বাদও চেয়েছেন তিনি। তাই তাঁর বিরুদ্ধে কিছু বলতে চান না।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: