‘জয়ার ভীষণ খিদে...ও ভীষণ আনপ্রেডিক্টেবল’: প্রসেনজিৎ

‘জয়ার ভীষণ খিদে...ও ভীষণ আনপ্রেডিক্টেবল’: প্রসেনজিৎ

আগে কখনও কাজ করেননি এক সঙ্গে, কিন্তু বুম্বাদা ভালই জানেন জয়া কোন মাপের অভিনেতা।

  • Share this:

Sreeparna Dasgupta

#কলকাতা: বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া এহসান । জয়া কোন মাপের অভিনেতা তা বোধ হয় আর বলার অপেক্ষা রাখে না। কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের বিসর্জন বা বিজয়া ছবিতে সেটা প্রমান করেছেন তিনি । এহেন জয়া অনেক দিন ধরে চাইছিলেন প্রসেনজিতের সঙ্গে কাজ করতে।

শেষমেষ ইচ্ছেপূরণ হল জয়ার। পরিচালক অতনু ঘোষের ‘রবিবার’ ছবির হাত ধরে। আগে কখনও কাজ করেননি এক সঙ্গে, কিন্তু বুম্বাদা ভালই জানেন জয়া কোন মাপের অভিনেতা। জানতে চাইলাম, জয়াকে কি বুঝলেন? খানিকটা চুপ থাকার পর উত্তর এল "ওর ভীষণ খিদে। ও ভাল কাজের জন্য যে কোনও এক্সটেন্টে যেতে পারে। ওর সঙ্গে কাজ করে মজা আছে।"

আবার প্রশ্ন করলাম জয়ার অভিনয়ের কোন বিষয়টা সব থেকে বেশি স্ট্রাইকিং ? এবারও খানিকটা চুপ থেকে প্রসেনজিৎ জানালেন " ও ভীষণ আনপ্রেডিক্টেবল। ওর ম্যানারিসম আর বডি ল্যাঙ্গোয়েজ বদলাতে থাকে অভিনয়ের সময়। সেটা হচ্ছে ওর অভিনয়ের ম্যাজিক আর আমার সেটা বেশ ভাল লাগে। এই প্যাটার্ন অফ অ্যাকটিং রেয়ার।"

এ তো গেল প্রসেনজিৎ এর কথা। কিন্তু যিনি তাঁর সঙ্গে কাজ করার জন্য মুখিয়ে ছিলেন তাঁর অভিজ্ঞতা কেমন? জয়া প্রথম থেকেই নার্ভাস ছিলেন। নিজের স্কিল নিয়ে তাঁর ডাউট না থাকলেও প্রসেনজিতের সঙ্গে কাজ করার জন্য যে তাঁকে আউটস্ট্যান্ডিং পারফরম্যান্স দিতে হবে তা বেশ ভালই জানতেন জয়া। নিজেকে সেই ভাবেই তৈরি করেছিলেন তিনি। মানব সম্পর্কের মুখ্য বিষয়গুলোকে পর্দায় ফুটিয়ে তোলার জন্য যে দক্ষতা ও শৈলী প্রয়োজন, তার যাতে বিন্দুমাত্র মিস না হয়, সেই দিকে নজর ছিল জয়ার।

রবিবার বলবে 'আমুর'-র কথা। অর্থাৎ ভালবাসার কথা। প্রাক্তনের ভালবাসার টান এবং জীবনপাতার কিছু না ওল্টানো পৃষ্ঠার লেখা আপনি পড়তে পারবেন এই ছবিতে। পরিচালক অতনু এই ছবিতে যে সাবজেক্ট নিয়ে ডিল করেছেন তা আমাদের চেনা।আমার বা আপনার জীবনেই হয়তো ঘটে যাওয়া বেশ কিছু দৃশ্য আপনি দেখতে পাবেন পর্দায়। কিন্তু সেই চেনা ছবি চেনা মুহূর্তগুলোই আরও জীবন্ত হয়ে উঠবে প্রসেনজিৎ-জয়ার মধ্যে দিয়ে। রবিবার ছকভাঙা গল্প না বলেও,বলে যাবে অনেক না বলা কথা।

First published: 01:06:32 PM Dec 13, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर