এল ডোরাডো সফল হলে শঙ্কু সিরিজ বানাব : সন্দীপ রায়

এল ডোরাডো সফল হলে শঙ্কু সিরিজ বানাব : সন্দীপ রায়

সন্দীপ রায়ের পরিচালনায় ত্রিলোকেশ শঙ্কুর চরিত্রে দেখা যাবে ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়কে

  • Share this:

Arunima Dey

#কলকাতা: শীতকাল মানেই সোয়েটার, কমলা লেবু, নতুন গুড়ের সন্দেশ আর অবশ্যই থ্রিলার কিংবা অ্যাডভেঞ্চার। সেই কথা মাথায় রাখে, অন্তত্য বাঙালি পরিচালকেরা। এই বছরও রয়েছে সেই ঘরনার বেশ কিছু ছবি। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘প্রফেসর শঙ্কু ও এল ডোরাডো’। পর্দায় প্রথমবার আত্মপ্রকাশ করতে চলেছেন প্রফেসর শঙ্কু। সন্দীপ রায়ের পরিচালনায় ত্রিলোকেশ শঙ্কুর চরিত্রে দেখা যাবে ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়কে।

সত্যজিৎ রায়ের কাহিনি অবলম্বনে তৈরি এই ছবি। ফেলুদা করলেও শঙ্কু বানানোর কথা কখনও ভাবেননি সত্যজিৎ রায়। কারণ, তিনি বুঝতে পেরেছিলেন শঙ্কু করতে চাই অত্যাধুনিক প্রযুক্তি। তখন তা সম্ভব ছিল না। তবে আজকের দিনে তা অনায়াসেই পাওয়া সম্ভব। সন্দীপ রায়ের হেঁসেলে তৈরি হতে শুরু করল শঙ্কুর রেসিপি। আগে থেকেই ইচ্ছে ছিল শঙ্কু বানানোর। সঙ্গে প্রযোজকরাও উৎসাহ দেখালেন। ফেলুদা, ব্যোমকেশ অনেক হল। এবার হোক লার্জার দ্যান লাইফ কিছু। যেমন ভাবনা, তেমন কাজ, প্রি প্রডাকশনের কাজ শুরু করলেন সন্দীপ রায়।

এবার মজাটা হল, সত্যজিৎ রায়ের ইলাসট্রেশন ভীষণ নিখুঁত। মাণিক বাবুর আঁকার সঙ্গে পর্দায় শঙ্কুর মুখ না মিললে দর্শক গ্রহণ করবেন কেন? শঙ্কু হিসেবে ধৃতিমানের চেয়ে ভাল কেউ পাওয়া মুশকিল। নকুড়বাবু ও এল ডোরাডো গল্পটিকে নিয়ে তৈরি সন্দীপ রায়ের এই ছবি। নকুড়বাবুর বইয়ের স্কেচগুলো যদি কেউ দেখে, তাহলে বুঝবেন অবিকল শুভাশিস মুখোপাধ্যায় মুখের আদলের সঙ্গে মিল রয়েছে। তাই এই কাস্টিং-এরও অন্য চয়েস থাকা সম্ভব নয়।

ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায় পর্দায় অভিনয় জীবন শুরু করেছিলেন সত্যজিৎ রায়ের সঙ্গে। ৫০ বছর পর তাঁর ছেলে সন্দীপ রায়ের ছবিতে তিনি শঙ্কু হলেন। বিষয়টা অনেকটা বৃত্ত সম্পূর্ণ হওয়ার মতো। এমনিতে কোনও সাহিত্যে নিয়ে ছবিতে অভিনয় করলে ধৃতিমান চিত্রনাট্যটাই পড়েন। নতুন করে আবার গল্প বা উপন্যাসটা পড়েন না। তবে এই ক্ষেত্রে তা হয়নি। ছবিটির প্রস্তাব পাওয়ার পর প্রফেসর শঙ্কুর বেশ কয়েকটি গল্প পড়েন ধৃতিমান, চরিত্র নির্মাণের জন্য।

সন্দীপ রায়ের সঙ্গে ফেলুদা সিরিজে কাজ করেছেন শুভাশিস। তবে এই ছবিটি বিশেষ। সত্যজিৎ রায়ের গল্প, সঙ্গে ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়, সবকিছুই একটা অন্য মাত্রা যোগ করেছে।

ছবিতে প্রচুর গ্রফিক্স-এর ব্যবহার রয়েছে। ব্রাজিলে ছবির খানিকটা অংশের শুটিং হয়েছে। এই ছবি সফল হলে শঙ্কু সিরিজ করার কথা ভাববেন সন্দীপ রায়। আগামী ২০ ডিসেম্বর মুক্তি পেতে চলেছে এই ছবি।

First published: 09:15:24 PM Dec 10, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर