বিনোদন

corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা কালে প্রযোজকদের সাহসী হতে হবে, গালে হাত দিয়ে বসে চিন্তা করলে মার খাবে গোটা ইন্ডাস্ট্রি: আবির চট্টোপাধ্যায়

করোনা কালে প্রযোজকদের সাহসী হতে হবে, গালে হাত দিয়ে বসে চিন্তা করলে মার খাবে গোটা ইন্ডাস্ট্রি: আবির চট্টোপাধ্যায়

করোনার থেকে মুক্তির কোনও পথ এখনই সামনে আসছে না৷ তাই করোনা নিয়ে, সাবধানতার সঙ্গে বাঁচতে শিখতে হবে৷ তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই করতে হবে সব কাজ৷ যার মধ্যে থাকবে হলে গিয়ে সিনেমা দেখাও৷ মত আবির-রুক্মিণীর৷

  • Share this:

#কলকাতা: সময়টা খুব কঠিন৷ করোনার সঙ্গে লড়াই চলছে ঘরে বাইরে৷ কী করতে হবে আর কী করতে হবে না, তা নিয়ে চলছে বিস্তর আলোচনা৷ তবে তার মধ্যেও বাঁচাতে হবে আমাদের দেশের অর্থনীতি৷ ফলে মনের জোর দেখিয়ে নিতে হবে বেশ কিছু সাহসী পদক্ষেপ, যাতে সুরক্ষাবিধি লঙ্ঘন হবে না আবার একই সঙ্গে অর্থনীতির চাকাও গড়াবে৷ এমনই মনে করেন অভিনেতা আবির চট্টোপাধ্যায়৷ অভিনেতা হিসেবে তিনি তাঁর কর্মক্ষেত্রের উদাহরণ দিয়ে পরিস্থিতি বোঝানোর চেষ্টা করেছেন৷

মুক্তি পেয়েছে আবির-রুক্মিণী অভিনীত, সৌভিক কুণ্ডু পরিচালিত, জিৎ প্রযোজিত ছবি সুইৎজারল্যান্ড৷ নিউ নর্মালে ছবি মুক্তি নিয়ে ছিল আলাদা টেনশন৷ কারণ একটাই প্রশ্ন ঘিরে ধরেছিল ছবির সঙ্গে যুক্ত মানুষগুলোর মনে৷ আর সেটা হল, দর্শক হলে আসবে তো? তবে সুরক্ষা ব্যবস্থার আশ্বাস দিয়েছেন হল মালিকরা৷ এবং এখানে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে প্রযোজকদের, মত অভিনেতা আবিরের৷ News18 বাংলার ফেসবুক লাইভে এসে তিনি স্পষ্ট বলেন যে, আমাদের গালে হাত দিয়ে ভাবলে বা গম্ভীর পরিস্থির কথা ভেবে কাজ পিছিয়ে দিলে চলবে না৷ উল্টে পরিস্থিতির সঙ্গে তালে তাল মিলিয়ে এগোতে হবে৷ না হলে বহু মানুষের আয় বন্ধ হবে এবং সমস্যায় পড়বে গোটা ইন্ডাস্ট্রি৷

এই ফেসবুক লাইভে আবির ও রুক্মিণী দু’জনেই ধন্যবাদ জানান তাঁদের ছবির প্রযোজক জিতকে৷ কারণ তাঁরা মনে করেন যে প্রযোজক হিবেসে সাহসী পদক্ষেপ নিতে পেরেছেন জিৎ৷ উৎসবের মরসুমে বাঙালি দর্শকদের সামনে তিনি নিয়ে এসেছেন ছবি৷ অতিমারীর ভয়ে বহু মানুষ বাড়িতে আটকে৷ চিকিৎসকরাও সেই পরামর্শ দিচ্ছেন৷ ফলে অনেক ক্ষেত্রেই হলের বদলে ছবি ওটিটি প্ল্যাটফর্মে ছাড়া হচ্ছে৷ কিন্তু ছবি কোথায় মুক্তি পাবে, হলে নাকি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে, সেই চিন্তা করতে গিয়ে অনেক প্রযোজক অযথা সময় নষ্ট করছেন৷ এতে ছবি মুক্তি যেমন বিলম্বিত হচ্ছে, তেমনই আটকে থাকছে ছবির কাজ৷ যা ইন্ডাস্ট্রি ও ছবির ব্যবসার জন্য সুখকর নয়৷

করোনার থেকে মুক্তির কোনও পথ এখনই সামনে আসছে না৷ তাই করোনা নিয়ে, সাবধানতার সঙ্গে বাঁচতে শিখতে হবে৷ তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই করতে হবে সব কাজ৷ যার মধ্যে থাকবে হলে গিয়ে সিনেমা দেখাও৷ মত আবির-রুক্মিণীর৷ নানা পরীক্ষা-নিরিক্ষার মধ্যে দিয়েই এগোতে হবে সকলে৷ কোনটা ঠিক আর কোনটা ভুল, সেটা জানা যাবে সেই পথে হাঁটলেই৷ স্পষ্ট বললেন আবির৷ হলে মুক্তি পাওয়া ছবি হয়ত খুব বেশি লাভের মুখ দেখতে পারবে না৷ লাভ হবে না জেনেও যদি প্রযোজক সাহস করে ছবি হলে মুক্তির সিদ্ধান্ত নিতে পারেন, তাহলে তাঁকে বাহবা দিতে হবে এবং তাঁর পাশে দাঁড়াতেও হবে৷ বলছেন আবির ও রুক্মিণী দু’জনেই৷ এই সময় দাঁড়িয়ে সুইৎজারল্যান্ড মুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রযোজক জিৎ৷ তাঁর সেই সিদ্ধান্তকে কুর্ণিশ জানিয়ে অন্যান্য প্রযোজকদেরও সেই পথ অনুসরণ করতে অনুরোধ করেন অভিনেতা-অভিনেত্রী৷

Published by: Pooja Basu
First published: November 18, 2020, 4:28 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर