সেলুলয়েডে নেতাজি স্মরণ

সেলুলয়েডে নেতাজি স্মরণ

নানাভাবে, নানা অনুষ্ঠানে স্মরণ করা হয় নেতাজিকে৷ সেলুলয়েডও বারবার মনে করেছে নেতাজিকে৷

  • Share this:

#কলকাতা: ২৩ শে জানুয়ারি নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিন৷ নানাভাবে, নানা অনুষ্ঠানে স্মরণ করা হয় নেতাজিকে৷ সেলুলয়েডও বারবার মনে করেছে নেতাজিকে৷ ঠিক কীভাবে নেতাজি একাধিকবার ফিরে এসেছেন সেলুলয়েডে? সেই খোঁজেই নিউজ 18 বাংলা৷

স্বাধীনতার এত বছর পরেও তাঁকে নিয়ে আগ্রহের শেষ নেই৷ আবেগ-দেশভক্তি- আত্মত্য়াগ আর রহস্য়ে মোড়া নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জীবন৷ এই মানুষটির কথা এখনও কবির কলমে৷ এখনও তাঁকে নিয়ে কত লেখা৷ যাঁর মৃত্য়ু রহস্য়ের কিনারা করতে করতে এখনও নতুন করে তদন্তের দাবি ওঠে৷ তাইহোকু, লেনিনগ্রাদ, ফৈজাবাদের মত জায়গায় গিয়ে এখনও অনেক গবেষক খুঁজে চলেন নেতাজির জীবনের রহস্য়৷ তাঁকে নিয়ে যে সেলুলয়েড বারবার চিন্তাভাবনা করবে, তা তো স্বাভাবিকই৷ অনেক পরিচালকই সুভাষচন্দ্র বসুকে নিয়ে ছবি বানিয়েছেন৷

১৯৫০ সালে শুরু৷ দেশের স্বাধীনতার বয়স মাত্র তিন বছর৷ অশোককুমার অভিনীত ‘সমাধি’ ছবিটিকে নেতাজির বায়োপিক বলা চলে না৷ তবে নেতাজি, আজাদ হিন্দ ফৌজের আদর্শের মত বিষয় উঠে এসেছে এই ছবিতে৷ ব্য়ক্তিগত সম্পর্ক ও দেশাত্মবোধের মিশেলে দেশপ্রেমের গল্প বলে এই ছবি৷

এরপর ১৯৬৬৷  হেমেন গুপ্ত পরিচালিত ও অভি ভট্টাচার্য অভিনীত ‘নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস’৷ একেবারে নেতাজির বায়োপিক৷ ছোট থেকে স্কুল-কলেজ-রাজনীতি৷ নেতাজি হয়ে ওঠার গল্প বলে এই ছবি৷

পরিচালকরা গান্ধিজি, ভগত সিং ও দেশের অন্য সৈনিকদের নিয়েই মেতে ছিলেন কয়েক বছর৷ ২০০৪ সালে নেতাজির কথা মনে করিয়ে দিলেন শ্যাম বেনেগাল৷ তৈরি হল নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস: দ্য ফরগটেন হিরো৷ শ্যাম তাঁর এই ছবিটিকে বায়োগ্রাফিক্যাল ওয়ার ফিল্ম বলেছেন৷ অনেক বছর পর নেতাজির জীবন বড় ক্যানভাসে দেখতে পান দর্শক৷ নেতাজির ভূমিকায় সচীন খেড়েকর অনবদ্য৷ সেলুলয়েডে নেতাজির কথা যখন হচ্ছে,  তখন রঙ্গুন, ও রাগ দেশ ছবিদু’টির কথাও বলতে হবে৷ এই দুই ছবিতে সোজাসুজি নেতাজির কথা বলা হয়নি৷ তবে আজাদ হিন্দ ফৌজের গঠন, ফৌজ তৈরির কারণ  ও সমসাময়িক দিক তুলে ধরার চেষ্টা হয়েছে৷

বাংলা ছবিতে নেতাজি এসেছেন কয়েকবার৷ মহেশ মঞ্জরেকরের ‘আমি সুভাষ বলছি’ মুক্তি পায় ২০১১ সালে৷ তবে এ ছবি নেতাজির বায়োপিক কোনওভাবেই নয়৷ আজাদ হিন্দ ফৌজ বা স্বাধীনতা সংগ্রামের কথাও এছবি বলে না৷ এ একেবারে ভিন্ন ছবি৷ মিঠুন চক্রবর্তী অভিনীত এই ছবি স্য়াটায়ার৷  অনেকটা লগে রহো মুন্না ভাই-এর ধাঁচে বানানো  ‘আমি সুভাষ বলছি’৷

এই কয়েকদিন আগে মুক্তি পেয়েছে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘গুমনামি’৷ প্রধান চরিত্রে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়৷ নেতাজির স্ট্রাগলের থেকেও তাঁর পরিণতির রহস্য খোঁজে এই ছবি৷ মুখার্জি কমিশনের তদন্ত ধরে এগিয়েছে ছবির গল্প৷

এতো গেল বড় পর্দার কথা৷ ওয়েব সিরিজও নেতাজিকে ভোলেনি৷ বোস ডেড অর অ্যালাইভ৷ রাজকুমার রাও অভিনীত এই ওয়েব সিরিজ বেশ ঝকঝকে৷ নেতাজির চরিত্রে রাজকুমার রাও৷ তাঁর অন্তর্ধান ঘিরেই ছবি গল্প ফুটে উঠেছে৷

কবীর খান নিয়ে আসছেন তাঁর ওয়েব সিরিজ দ্য ফরগটেন আর্মি৷ প্রজাতন্ত্র দিবস থেকে স্ট্রিম করবে এই শো৷ ভিকি কৌশলের ভাই সানি-কে দেখা যাবে এক বড় চরিত্রে৷ এই ওয়েব সিরিজে দেখা যাবে আজাদ হিন্দ ফৌজ তৈরি হওয়ার ইতিহাস৷

First published: January 23, 2020, 11:49 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर