Home /News /entertainment /
Tollywood: টালিগঞ্জে 'সানাই'-এর প্রথম সুর

Tollywood: টালিগঞ্জে 'সানাই'-এর প্রথম সুর

সঙ্গীত পরিচালক হিসাবে প্রথম ছবির মিউজিক লঞ্চের আগে মুখোমুখি সঙ্গীতশিল্পী সানাই

  • Share this:

    #কলকাতা: 'প্রচণ্ড টেনশন। তার সঙ্গে আনন্দ, উৎসাহ। ঠিক বোঝাতে পারব না কী হচ্ছে।' সঙ্গীত পরিচালক হিসাবে প্রথম ছবির মিউজিক লঞ্চের আগে মুখোমুখি সঙ্গীতশিল্পী সানাই

    ‘X=PREM’ এর  মিউজিক লঞ্চ নিয়ে কতটা এক্সাইটেড?

    প্রচণ্ড টেনশন। তার সঙ্গে আনন্দ, উৎসাহ। ঠিক বোঝাতে পারব না কী হচ্ছে।

    অফারটা পেলেন কীভাবে? 

    ২০১৯-এ একটা ইউটিউব চ্যানেলে লঞ্চের সময় কিছু অরিজিনাল গানের দরকার ছিল। আমার ‘সিন্ডেরেলা মন’ একটা গান ছিল, গানটা আমি ওই ইউটিউব চ্যানেলকে দিই। ওই বছরই আমার গান সৃজিতদা শোনেন। ওঁর ভাল লেগেছিল গানটা। সৃজিতদা আমায় ফোন করে আরও কিছু গান পাঠাতে বলেন। তখন আমার কাছে দশটা গান ছিল। সেগুলো সৃজিতদাকে পাঠিয়ে দিই। সবকটা গানই সৃজিতদা ওঁর দুটো ছবির জন্য সিলেক্ট করেন। এসভিএফ-এর ব্যানারে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ছবিতে মিউজিক ডিরেক্টরের ডেবিউ সানাইয়ের কাছে কতটা চ্যালেঞ্জিং?মারাত্মক। আমি চেষ্টা করেছি আমার পুরোটা দেওয়ার।

    একটা গান তো আপনার প্রিওয়েডিং-এর জন্য বানিয়েছিলেন...

    একদম। এই ছবিতে আমার সব গানেরই একটা গল্প আছে।

    কীরকম?

    আমি গান তৈরি করতাম ২০১১-১২ সাল থেকে।  আমার এক দাদা আছেন ধ্রুবজ্যোতি চক্রবর্তী। উনি গান লিখতেন আমি কম্পোজ করতাম। তখন তোনও এক্সপেকটেশন ছিল না। মনের আনন্দে গান বানাতাম। এবার গল্পটা বলি। ২০১৯ এর ডিসেম্বরে আমার বিয়ে হয়। বিয়ের আগে প্রি ওয়েডিং ভিডিও বানানের জন্য ধ্রুবদাকে একটা গান লিখে দিতে বলি। আমার সুরে একটা গান তৈরি হয়, ‘বায়না বিলাসী’। আমি আমার আমার বউ দুজনে ওই ভিডিওতে গেয়েছিলাম। এই গানটা এই ছবিতে সাহানা বাজপেয়ী ও সামন্তক গেয়েছে। এটা আমার কাছে দারুন ব্যাপার।

    'সিন্ডেরেলা মন' গানটা তো ইতিমধ্যেই পপুলার...

    এই গানের সুরটা করি ২০১২। ধ্রুবদাকে গানটা লিখতে বলি। ধ্রুবদার একটা ব্যাপার আছে, সঙ্গে সঙ্গে গান লিখতে পারেন না। উনি সময় নিয়ে গান লেখেন। ওই গানটা লেখা শেষ হয় ২০১৩ সালে। এই গানটা ২০১৪-এ আমরা আপলোড করি। এই গানটাই আমায় পরিচিতি দেয়। ছবিতেও গানটা আমি গেয়েছি। এই ছবিতে দুটো গান আমার গাওয়া। শ্রেয়া ঘোষাল ও অরিজিৎ সিং একটা গান গেয়েছেন এই ছবিতেএই গানেরও একটা গল্প আছে। তখন ছবির চারটে গান কমপ্লিট। কিন্তু পাঁচ নম্বর গানটা বাকি ছিল। সৃজিতদার দরকার ছিল এমন একটা গান যেটা লাভ সং, কিন্ত হালকা বিষাদও থাকবে। দাদা আমাকে অনেক গান পাঠাচ্ছিলেন, কিন্তু আমার কোনও গানই সিচ্যুয়েশনের সঙ্গে মানানসই লাগছিল না। সৃজিতদা আমাকে একটা কথা বলছিলেন , ‘‘তুই পাঁচ নম্বর গানটা ট্র্যাক করতে পারছিস না বল’’ষ কথাটা আণআর খুব লেগেছিল। সেদিনই বাড়ি ফিরে টানা তিন-চার ঘন্টা পিয়ানো বাজিয়ে আমি ট্র্যাকটা তৈরি করি। এই গানের কথা লিখেছেন সুব্রত বারিষওয়ালা। ও এই ছবিতে বারিষ নামেই পরিচিত। লিরিসিস্ট হিসাবে ওরও ডেবিউ।

    এই গানটাই শ্রেয়া ঘোষাল গেয়েছেন?

    যখন টিউনটা তৈরি করছিলাম, তখনই নামটা ভেবেছিলাম। সৃজিতদাও তাই চেয়েছিলেন। এই গানের মেল ভার্সান গেয়েছেন অরিজিৎ সিং। ওদের কাছ থেকে কী ফিডব্যাক পেলেন?অরিজিৎদার সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপেই বেশি কথা হয়। অরিজিৎদার ফিডব্যাক শুনে অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। আমাকে বললেন ‘‘ আমি আবার কী বলব, তোর গান ভাল লাগলেই ভাল। তুই শুনে বল কোথাও কারেকশন করতে হবে কিনা।’’ শ্রেয়াদি তো ভিডিও টুইটে বলেছেন আমি অসাধারণ একটা গান বানিয়েছি। আজকের পর ইন্টারভিউয়ারের লম্বা লাইন থাকবে। ফোনে পাওয়া যাবে তো?এ বাবা না না। আমি মাটিতে পা রেখেই চলতে চাই।

    Syamasri Saha

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published:

    Tags: Tollywood

    পরবর্তী খবর