ট্রাফিক সিগন্যালে গাড়ি দাঁড়াতেই মিমি চক্রবর্তীকে অশ্লীল ইঙ্গিত, গ্রেফতার যুবক !

সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীকে অশ্লীল ইঙ্গিত করায় গ্রেফতার হল যুবক

সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীকে অশ্লীল ইঙ্গিত করায় গ্রেফতার হল যুবক

  • Share this:

#কলকাতা: সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীকে অশ্লীল ইঙ্গিত করায় গ্রেফতার হল যুবক। ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার বিকেলে ৫ টা নাগাদ গাড়িয়াহাট থেকে বালিগঞ্জের  ট্রাফিক সিগনালে মিমি চক্রবর্তীর গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় তাঁর দিকে কুৎসিত অঙ্গভঙ্গি করেন এক ট্যাক্সি চালক। এরকম ঘটনায় রীতিমতো হতবাক হয়ে পড়েন মিমি। ক্ষুব্ধ মিমি অভিযোগ দায়ের করেন গাড়িয়াহাট থানায়। রাতেই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ ৷

খবর অনুযায়ী, ১৪ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫ টা নাগাদ নিজের গাড়ি চেপে দরকারি কাজে বেরিয়ে ছিলেন সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী ৷ বালিগঞ্জের ট্রাফিক সিগন্যালে গাড়ি দাঁড়াতেই, পাশের এক ট্যাক্সি থেকে মিমিকে কুৎসিত অঙ্গভঙ্গি করে এক ট্যাক্সি চালক ৷ মিমি তৎক্ষণাৎ গাড়ি থেকে নেমে সেই ট্যাক্সি চালককে ধরে ফেলেন । ভিড় জড়ো হতে থাকায় এবং মিমির আরেকটি জায়গায় যাওয়ার তাড়া থাকার সুযোগে ট্যাক্সি চালক ওখান থেকে পালিয়ে গেলে পরে গাড়িয়াহাট থানায় গাড়ির নম্বর দিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন মিমি। ট্যাক্সি চালকের নাম দেবা যাদব ৷

কয়েকদিন আগেই নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায়কে কুর্ণিশ জানিয়েছেন সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। আনন্দপুরের ঘটনা নাড়া দিয়েছে তাঁকে। নীলাঞ্জনা দেবীর মতো মানুষেরা অনেক মেয়ের কাছে অনুপ্রেরণা, বলে মনে করেন মিমি। সাহসীকতার পরিচয় দিয়েছেন নীলাঞ্জনা। নিজের প্রাণ বিপন্ন করেও অপরিচিত একজনকে সাহায্য করতে এগিয়ে এসেছেন তিনি। নির্ভীকতার পরিচয় দিতে গিয়ে, নিজে হয়েছেন ক্ষত বিক্ষত। দুস্কৃতির গাড়ির ধাক্কায় পায়ের হাড় ভেঙে গুড়িয়ে গিয়েছে। তবুও থামেননি তিনি। কঠিন অস্ত্রপ্রচারের পর ফের স্বাভাবিক ভাবে হাঁটতে চেষ্টা করছেন তিনি।  নীলাঞ্জনার সাহসে মুগ্ধ মিমি। তাঁর কথায়, 'সকলে এমনভাবে এগিয়ে আসতে পারেন না। নীলাঞ্জনা পেরেছেন। আমার অতীতের স্মৃতি উস্কে দিল এই ঘটনা। তখন অনেকে সাবাসী দিয়েছিলেন। আবার অনেকে বলেছিলেন দুঃসাহস দেখিয়েছি। তবে নীলাঞ্জনাকে দেখে বুঝতে পারছি আমি ঠিকই করেছিলাম। তবে ওঁর মতো এতটা সাহস বোধহয় আমার নেই।'

বছর তিনেক আগে এমনই একটা ঘটনা ঘটেছিল সাংসদ অভিনেত্রী সঙ্গে। তখন যদিও মিমি সাংসদ হননি। তিনি ফিরছিলেন চাকদা থেকে দেবের সঙ্গে একটা শো করে। তেঘড়িয়ার কাছে আচমকা একটি গাড়ি বেসামাল হয়ে একটি বাইক আরোহীকে ধাক্কা মারে। তাঁর চোখের সামনে ঘটে এই ঘটনা। মিমি সেই গাড়ির পিছু নেন। গাড়িতে থাকা মদ্যপ দুই ব্যক্তিকে পুলিশের হাতে শুধু তুলে দেন। শুধু তাই নয়, তাদের নিজের হাতেও উচিত শিক্ষা দেন মিমি। দেহরক্ষীদের সঙ্গে মিলে মদ্যপ ব্যক্তিদের ঘা কতক দেন তিনি।

নীলাঞ্জনার মতো প্রতিবাদ করা, এগিয়ে আসা খুব প্রয়োজন বলে মনে করেন মিমি। এরকম প্রতিবাদ করলে ধীরে ধীরে সমাজ অনেক পরিষ্কার হবে বলে সাংসদ-অভিনেতার মত। নীলাঞ্জনার আরোগ্য কামনা করলেন মিমি।

দেবপ্রিয় দত্ত মজুমদার

Published by:Akash Misra
First published: