বিনোদন

corona virus btn
corona virus btn
Loading

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি, যা জানাচ্ছেন ডাক্তাররা

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি, যা জানাচ্ছেন ডাক্তাররা

সমস্ত গুজবকে ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে কোনির খিদ্দা এর শারীরিক অবস্থা বরং আগের থেকে কিছুটা উন্নতি হয়

  • Share this:

#কলকাতা: মঙ্গলবার দুপুর থেকেই ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপে ঘোরাফেরা করছিল চরম দুঃসংবাদ। দিশেহারা বিভিন্ন চিকিৎসকরা। বেলভিউ হাসপাতালের রিসেপশনে একের পর এক ফোন। জবাব দিতে দিতে ক্লান্ত প্রত্যেকেই। সংবাদমাধ্যমের অফিসগুলোতে একের পর এক ফোন এই খবরের সত্যতা নিয়ে। সমস্ত গুজবকে ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে কোনির খিদ্দা এর শারীরিক অবস্থা বরং আগের থেকে কিছুটা উন্নতি হয়। এখনই ভেন্টিলেশনের কোনো প্রয়োজন নেই বলে জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। ফুসফুসের সংক্রমণে আগের থেকে কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। বুধবার করণা আক্রান্ত হওয়ার 14 দিনের মাথায় আবার তার নভেল করোনাভাইরাস এর পরীক্ষা করা হবে। নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর গত মঙ্গলবার মিন্টো পার্কের বেলভিউ ক্লিনিকে ভর্তি হন অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। শুক্রবার থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইটিইউতে স্থানান্তরিত করা হয়। রবিবার রাতেও তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হয়। যে কোন সময় ভেন্টিলেশনে দিতে হতে পারে বলে চিন্তা ভাবনা করেন চিকিৎসকরা। পরপর দু'দিন তাকে প্লাজমা দেওয়া হয়। সোমবার রাতে নতুন করে শ্বাসকষ্ট শুরু হলে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় কে বাইপাপ ভেন্টিলেশন দিতে হয়। মঙ্গলবার সকালে পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছায় যে একসময় তাকে মেকানিকাল ভেন্টিলেশনে দেওয়ার ভাবনা আসে চিকিৎসকদের। যদিও দুপুরের পর লক্ষণীয় পরিবর্তন হয় সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় এর। বাইপাপ মেশিন খুলে চিকিৎসকরা পরীক্ষা করেন শ্বাস-প্রশ্বাস কতটা স্বাভাবিকভাবে নিতে পারছেন সৌমিত্র বাবু। এরপরই চিকিৎসকরা জানান, এই মুহূর্তে ভেন্টিলেশনের কোন দরকার নেই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় এর। তবে তার সোডিয়াম পটাশিয়াম এর মাত্রা খুব ওঠানামা করায় উদ্বিগ্ন রয়েছেন চিকিৎসকরা। এরই সঙ্গে স্নায়ুবিক সমস্যার এখনো কোনো সুসমাধান না হওয়ায় সেটাও ভাবিয়ে তুলেছে চিকিৎসকদের। তবে সবই তো বাবুর মূত্রনালীর সংক্রমণ আগের থেকে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে এবং স্নায়বিক সমস্যা সামান্য উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

Published by: Akash Misra
First published: October 13, 2020, 10:19 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर