বিনোদন

corona virus btn
corona virus btn
Loading

গানের মধ্যে দিয়ে বলতে চাই, তোমরা কেউ একা নও ! : জোনিতা গান্ধি

গানের মধ্যে দিয়ে বলতে চাই, তোমরা কেউ একা নও ! : জোনিতা গান্ধি

কীভাবে শুরু হল এই জার্নি? কতটাই বা নিজেকে মেলে ধরতে চান জোনিতা ৷ একান্ত সাক্ষাৎকারে উঠে এল সব...

  • Share this:

#মুম্বই: ইন্টারনেটে জোনিতা গান্ধি সার্চ করলেই বেরিয়ে পড়বে কোক স্টুডিও, মিক্সটেপ, প্রচুর সিঙ্গল ৷ লাইকের সংখ্যায় সবাইকে একেবারেই তাক লাগিয়েছেন জোনিতা ৷ তাঁর গাওয়া গান এখন সবার মুখে মুখে ৷ কীভাবে শুরু হল এই জার্নি? কতটাই বা নিজেকে মেলে ধরতে চান জোনিতা ৷ একান্ত সাক্ষাৎকারে উঠে এল সব...

১) কোক স্টুডিও, মিস্কটেপ, ইউটিউব সিঙ্গল এবং জোনিতা গান্ধি ৷ আপনি তো ইন্টারনেটের কোণায় কোণায় ছড়িয়ে রয়েছেন ৷ এই জার্নিটা কেমন লাগছে?

জোনিতা: প্রথমেই ধন্যবাদ জানাবো, খুব সুন্দর করে আমার জার্নিটা আপনি বলেছেন ৷ আর নিজেকে ইন্টারনেটের কোণায় কোণায় পাওয়ার ব্যাপারটা আমাকে আপ্লুত করেছে৷ আমি সত্যিই খুবই লাকি ৷ শুরু থেকে আজ পর্যন্ত এই জার্নিটা স্বপ্নের মতো ৷ দারুণ দারুণ মানুষের সঙ্গে কাজ করেছি ৷ অনেক কিছু শিখেছি ৷ আর সেই শিক্ষা নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছি৷ এটা আমার কাছে বড় পাওনা ছাড়া আর কিছুই না ৷ সবচেয়ে অবাক হই, ছোটবেলা থেকে যে সব রিয়্যালিটি শো দেখে বড় হয়েছি, এখন সেরকমই এক রিয়্যালিটি শোয়ের মেন্টার আমি ! সত্যিই গোটা বিষয়টা আমার কাছে স্বপ্নের মতো ৷

২) সম্প্রতি আপনার ক্রিসমাস রীতিমতো ভাইরাল, তারপরেই অর্জুনের সঙ্গে নতুন সিঙ্গল...

জোনিতা: হ্যাঁ, আমাকেও অনেকে বলেছে আমার ক্রিসমাস গানটি নাকি দারুণ পপুলার হয়েছে ৷ প্রথমেই সবাইকে এর জন্য ধন্যবাদ জানাই ৷ আসলে, আমার অনেক দিন ধরেই ইচ্ছে ছিল চলে আসা ক্রিসমাস গানটিকে নিয়ে কিছু করার ৷ তাই চেন্নাই দুই শিল্পী ডেভিড জোসেফ ও অলোক মেরউইনকে সঙ্গে নিয়ে বানিয়ে ফেললাম ৷ একেবারে আমাদের মতো করেই তৈরি করলাম এই ক্রিসমাস গানটি ৷

অর্জুন আমার অনেক দিনের বন্ধু ৷ বহু কাজ করেছি আমরা একসঙ্গে ৷ তবে ‘কৌন তুঝে’ সিঙ্গলটা একেবারে অন্য ভাবনা থেকে আনা ৷ আমরা আসল গানটি থেকে কিছুটা অংশ নিয়ে বাকিটা নিজেদের মতো করে তৈরি করেছি ৷ নতুন শব্দে, নতুন সঙ্গীতের মধ্যে নতুন রকমের করতে চেয়েছিলাম ৷ আর এর পিছনে উদ্দেশ্য ছিল একটা ৷ এই গানটি সেই সব মানুষদের জন্য যাঁরা মানসিক অবসাদে ভুগছেন ৷ তাঁদেরকে এই গানের মধ্যে দিয়ে বলতে চাই, তোমরা কেউ একা নও !

৩) টরোন্টোতে বড় হওয়া ৷ ছোটবেলা থেকে সঙ্গীতকে কীভাবে পেয়েছেন?

জোনিতা: আমার বড় হওয়াটা একেবারেই টরোন্টোতে ৷ ভারত থেকে অনেকটাই দূরে৷ তবে আমার বাড়ির ভিতরের পরিবেশ, সেটা কখনও বুঝতে দেয়নি ৷ আমাদের বাড়িতে ছোট থেকেই শুনেছি পুরনো হিন্দি ছবি থেকে হালফিলের বলিউডি গান বাজতে ৷ এছাড়াও, আমার বাবা একজন শিল্পী, পেশায় নয়, নেশায় ! বাবা বন্ধুদের নিয়ে একটা ব্যান্ডও খুলেছিল, যার গানের মহড়া আমাদের বাড়িতে হতো ৷ বলতে পারেন, এভাবেই ধীরে ধীরে সঙ্গীত আমার মনে জায়গা করে নিয়েছিল ৷ তাছাড়াও আমি শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিখেছি ৷ পাশ্চাত্য সঙ্গীতের প্রতিও আমার প্রথম থেকেই আলাদা আগ্রহ ছিল ৷ এভাবেই গান এবং সুরে এসে পড়লাম ৷

৪) ভাইরাল হওয়া, লাইকস, ডিজলাইক, ভিউয়ের নাম্বার ! এতে আপনি কি বিচলিত হন?

জোনিতা: দেখুন, বিচলিত হয়নি ৷ তবে কোথাও গিয়ে একটা চিন্তা কাজ তো করে একেবারে যে বিষয়টি নিয়ে ভাবি না, তা নয় ৷ কারণ, এগুলোর পিছনে আমার পরবর্তী কাজটা কেমন হওয়া উচিত তা প্রভাব ফেলে ৷ তাই এই বিষয় গুলোকে নিয়ে দুশ্চিন্তা করি না ৷ বরং ভালো হলে ভালো লাগে, মন্দ হলে, নিজেকে পরেরটার জন্য তৈরি করি ৷

৫) বেশ কিছু বলিউডের গান তো গেয়েছেন ৷ বলিউডে কীভাবে ভাবছে আপনাকে?

জোনিতা: দেখুন, এখনও পর্যন্ত বলিউডের সঙ্গে আমার সম্পর্ক একেবারেই তিক্ত নয় ৷ তবে আমার কোনও তাড়াহুড়ো নেই ৷ বেবি স্টেপে বিশ্বাস করি ৷

৬) অতিমার, সঙ্গীত জগত এবং ডিজিটাল কনসার্ট-- কীভাবে দেখছেন আপনি?

জোনিতা: সময়টা সত্যিই খুব কঠিন ৷ এই সময়ে টিকে থেকে এগিয়ে যাওয়াটাই গুরুত্বপূর্ণ৷ তবে এটা একটা ভালো দিক যে ডিজিটাল দুনিয়ার মাধ্যমে আমরা নিজেদের ফ্যানদের সঙ্গে আলাপ-চারিতা করতে পারছি ৷ আর এই ভাবে আমাদের রোজগারের পথ খুলেছে ৷

Published by: Akash Misra
First published: January 11, 2021, 9:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर