বিনোদন

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

চোখে লঙ্কার গুঁড়ো ছিটিয়ে, অমানবিক অত্যাচার বিগবসের ঘরে ! অপমানিত প্রতিযোগীর স্ত্রী !

চোখে লঙ্কার গুঁড়ো ছিটিয়ে, অমানবিক অত্যাচার বিগবসের ঘরে ! অপমানিত প্রতিযোগীর স্ত্রী !

বুলডোজারের ওপর তুলে দিয়ে সারা গায়ে লঙ্কার গুঁড়ো ছিটিয়ে এক অমানবিক খেলায় মেতেছে বিগবসের সদস্যরা।

  • Share this:

#মুম্বই: বিগবস ১৪র ঘরে অমানবিক অত্যাচার। কয়েক দিন আগেই শুরু হয়েছে বিগবস। সলমান খান সঞ্চালিত এই শোয়ের টিআরপি সব সময় তুঙ্গে থাকে। এবছর শো শুরুর পর তেমন টিআরপি আসেনি। গত বছরের থেকে অনেকটাই পিঁছিয়ে আছে বিগবস। আর সেই জন্যই বিগবসের ঘরে এখন শুরু করা হয়েছে নানা রকম খেলা। এই খেলা গুলি সব ক'টাই ভয়ঙ্কর।

এখন প্রতিযোগীদের মধ্যে ঝগরা মারপিট ছাড়াও এই নতুন খেলাগুলো এবারের বাড়তি আকর্ষণ। বিগবসের সিনিয়র হিনা খান, গহর খান ও সিদ্ধার্থ শুক্লাকে এবার পাঠানো হয়েছে স্পেশাল গেস্ট হিসেবে। বিগবসের ঘরে তাঁরাই প্রতিযোগীদের নানা রকম টাস্ক দিচ্ছেন।

তেমনই এক টাস্ক দেওয়া হল এবারের প্রতিযোগী অভিনব শুক্লাকে। বুলডোজারের ওপর তুলে দিয়ে সারা গায়ে লঙ্কার গুঁড়ো ছিটিয়ে এক অমানবিক খেলায় মেতেছে বিগবসের সদস্যরা। ছটফট করতে শুরু করেন অভিনব শুক্লা। এই ঘরের এবারে তাঁর সঙ্গে গিয়েছেন রুবিনা। তিনি অভিনবের স্ত্রী।

প্রথমটায় চুপচাপ দেখছিলেন তিনি। এর পর যখনই লঙ্কার গুঁড়ো ছিটানোতে চিৎকার শুরু করেন অভিনব, নিজেকে আর সামলাতে পারেননি রুবিনা। তিনি চিৎকার করে সবাইকে বারণ করতে থাকেন। বলেন, এটা কোনও খেলা নয় নোংরামি। কিভাবে কেউ এটাকে খেলা বলতে পারে। শুধু প্রতিবাদ নয় তিনি মারপিট শুরু করেন বাকিদের সঙ্গে। কিছুতেই এই খেলায় তাঁরা অংশ নেবেন না সাফ জানিয়ে দেন। এর পর বিগবসের বাকি সদস্যরা সমালোচনা করেন রুবিনার। তাঁরা বলেন, তুমি এরকম করতে পার না। বিগবসের ঘরে সবাইকেই এই সব খেলায় ভাগ নিতে হবে। সে যতই ভয়ঙ্কর খেলা হোক না কেন। এটাই নিয়ম। তবে সলমান খান এখনও এ ব্যাপারে কিছু বলেননি। এই ধরণের খেলা বন্ধ করা হবে কিনা তাও জানাননি।

প্রসঙ্গত, এবছর করোনা ভাইরাসের জন্য অনিশ্চয়তা ছিল বিগবস শুরু করা নিয়ে। তারপর সব রকম করোনা সতর্কতা মেনেই শুরু হয় শো। তবে ঘরের মধ্যে কিন্তু কাউকেই দেখা যাচ্ছে না মাস্ক পরতে। এমনকি কোনও রকম সোশ্যাল দূরত্বও মানা হচ্ছে না। যদিও তাঁদের করোনা টেস্ট এবং ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনের পরই পাঠানো হয়েছে বিগবসের ঘরে। কিন্তু প্রতিযোগীদের মধ্যে সেই সতর্কতা মানার কোনও চিহ্নই নেই। এভাবে চললে কতদিন সুস্থভাবে শো চালানো যাবে? এই প্রশ্ন উঠছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

Published by: Piya Banerjee
First published: October 9, 2020, 5:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर