ধারা ৩৭০ নিয়ে ছবি করলেন রাখির ভাই রাকেশ সাওয়ান্ত

ধারা ৩৭০ নিয়ে ছবি করলেন রাখির ভাই রাকেশ সাওয়ান্ত

এই সিরিয়াস ছবিতেও রাখির একটি আইটেম নাম্বার রয়েছে।

  • Share this:

ARUNIMA DEY

#মুম্বই: থিয়েটার কিংবা চলচ্চিত্রকে সমাজের আয়না বললে ভুল বলা হয় না। মারাঠা হোক, মুঘল সাম্রাজ্য, খেলোয়াড়ের বায়োপিক বা গ্যাংরেপ। সেলুলয়েড এই সব ঘটনা উঠে এসেছে বার বার। ‍‘মুদ্দা ৩৭০ জে অ্যান্ড কে’, এই ধারারই একটি ছবি। পরিচলক রাকেশ সাওয়ান্ত। এই ভদ্রলোকটির সঙ্গে আমাদের বিশেষ পরিচয় নেই ঠিকই। তবে তাঁর দিদি, ড্রামা কুইন রাখি সাওয়ান্তকে চেনে না এমন কেউ খোঁজা মুশকিল। এই ছবিটিতেও ভাই দিদিকে অভিনয় করতে অনুরোধ করেছিল। কিন্তু রাখি ঠিক অভিনয় করার মুডে নেই। তিনি আইটেম সং করতে চান। এই সিরিয়াস ছবিতেও রাখির একটি আইটেম নাম্বার রয়েছে। অভিনয় না করে তিনি ভাল করেছেন না খারাপ সেই প্রশ্নটা আপনাদের জন্যই রইল।

এই প্রসঙ্গে একটা কথা বলে রাখা ভাল। ছবির বিষয় প্রচণ্ড রিলেটেবল। বিশেষ করে ধারা ৩৭০ কাশ্মীর থেকে উঠে যাওয়ার পর। তবে পরিচালকের কথায়, ছবির কাজ শুরু হওয়ার বহু পর, এই ধারা তুলে নেওয়া হয় কাশ্মীর থেকে। তাই ঘটনাটি কাজে লাগিয়ে ছবি হিট করানোর কোনও ইচ্ছে ছিল না রাকেশ সওয়ান্তের। তিনি জানালেন, কাকতালিয় ভাবে ঘটনাটা ঘটেছে। এবং ছবির প্রযোজকদের কপালে ভাঁজ পরে গিয়েছিল যখন শ্যুটিংয়ের মাঝ পথে ৩৭০ ধারা উঠে যায়। প্রযোজকদের মনে হয়েছিল এই ঘটনা ছবির ব্যবসায় প্রভাব ফেলবে।

ছবির মুখ্য চরিত্রে রয়েছেন হিতেন তেজওয়ানি। ছবিতে কাশ্মীরি পণ্ডিত পরিবারের একজন হিতেন। ছোট পর্দার জনপ্রিয় মুখ তিনি। মহিলা মহলে হিতেন অনেকরই ক্রাশ। বলিউড থেকে ডাক পেয়েছেন বহু বার। রাকেশ সাওয়ান্তের ছবি দিয়েই বলি বাজারে পা রাখলেন, এতে একটু অবাক হওয়া স্বাভাবিক। হিতেনের কথায়, টেলিভিশনে যাঁরা কাজ করেন তাঁদের অন্য কিছুর জন্য সময় বের করা অসম্ভব একটা ব্যাপার। তিনি বড় পর্দায় কাজ করতে চান না, এমনটা নয়। ‘মুদ্দা ৩৭০ জে অ্যান্ড কে’-র আইডিয়া হিতেনকে মুগ্ধ করেছিল। ছবিটি করার আগে তিনি এই নিয়ে বিশেষ কিছু জানতেন না। তবে অভিনেতার কথায়, শ্যুটিং করতে গিয়ে তিনি দেখেছিলেন ওখানকার স্থানীয় বাসিন্দারা অত্যন্ত ভাল। তাঁদের সাহায্য ছাড়া এই ছবি বানানো সম্ভব ছিল না। এবং নরেন্দ্র মোদীর এই ধারা তুলে নেওয়ায় খুশি হিতেন।

ছবিতে রয়েছেন প্রবীন অভিনেতা জারিনা ওয়াহাব। কাশ্মীরের সৌন্দর্যর পিছনে লুকিয়ে থাকা কালো বাস্তবটা অনেকে জানেন না। তিনি নিজেও এই ছবি করার আগে বিশেষ জানতেন না। তবে ৩৭০ ধারা উঠে যাওয়ায় খুশি জারিনা। পাল্টে যাওয়া সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ছবিও ধরনও পাল্টাচ্ছে। তাতে খুশি তিনি। অনেক নতুন পরিচালক, নতুন ধরেনর কাজ করছেন। এবং এই সময় সেলুলয়েডে সবচেয়ে ভাল নারী চরিত্র তৈরি হচ্ছে, বলে দাবী করলেন জারিনার।

First published: December 17, 2019, 8:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर