'ফোন থেকে অমিতাভের গলা সরানো হোক', দিল্লি হাইকোর্টের কাছে আবেদন !

'ফোন থেকে অমিতাভের গলা সরানো হোক', দিল্লি হাইকোর্টের কাছে আবেদন !

যদি আপনাকে বার বার অমিতাভ বচ্চনের গলায় করোন সতর্কতা শুনতে হয়, তবে একটা সময় পর বিরক্ত লাগে বইকি। আর এই বিরক্তির জায়গা থেকেই এবার দিল্লি হাইকোর্টে একটি আবেদন পত্র জমা পড়েছে।

যদি আপনাকে বার বার অমিতাভ বচ্চনের গলায় করোন সতর্কতা শুনতে হয়, তবে একটা সময় পর বিরক্ত লাগে বইকি। আর এই বিরক্তির জায়গা থেকেই এবার দিল্লি হাইকোর্টে একটি আবেদন পত্র জমা পড়েছে।

  • Share this:

    #নয়া দিল্লি: কাউকে ফোন করতেই গেলেই বিরক্ত লাগছে আজকাল ! খুব প্রয়োজনের সময় যত তাড়াতাড়ি সেই মানুষটির সঙ্গে যোগাযোগ করা যায় সেটা গুরুত্ব পায় সবার কাছে। কিন্তু সে সময় যদি আপনাকে বার বার অমিতাভ বচ্চনের গলায় করোন সতর্কতা শুনতে হয়, তবে একটা সময় পর বিরক্ত লাগে বইকি। আর এই বিরক্তির জায়গা থেকেই এবার দিল্লি হাইকোর্টে একটি আবেদন পত্র জমা পড়েছে। সেখানে বলা হয়েছে , দয়াকরে এবার ফোন থেকে অমিতাভের গলা সরিয়ে নেওয়া হোক। আর পারা যাচ্ছে না। প্রয়োজনের সময় কাউকে ফোন করতে গেলে সকলের অসুবিধা হচ্ছে।

    প্রসঙ্গত দেশে করোনা ভাইরাস আসার পর মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে অমিতাভের গলায় একটি রেকর্ড করা হয়। সেখানে অমিতাভ বলেছেন করোনা কালে ঠিক কিভাবে আপনি নিজেকে ও পরিবারকে সুরক্ষিত রাখবেন। এত দিন মানুষের বিরক্তি তৈরি হলেও কেউ কিছু বলছিলেন না। এবার সরাসরি আবেদন করা হল তাও হাইকোর্টে। করোনা কম হতেই এবার নানা আবদার শুরু হয়েছে সকলের।

    কিন্তু এই প্রচার মানুষের স্বার্থে দরকার। তাই এই আবেদন কতটা গুরুত্ব পাবে, তা নিয়ে কিছু জানা যায়নি। প্রসঙ্গত কয়েক দিন আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, সেখানে এক ব্যক্তি কল সেন্টারে ফোন করেছেন। যিনি নিজেকে সৈনিক বলে দাবি করছেন। তিনি ওই সেন্টারের কর্মীকে যা তা ভাবে বলছেন অমিতাভের গলার ভয়েস সরিয়ে নেওয়ার জন্য। এমনকি তাঁকে এও বলতে শোনা যাচ্ছে, "অমিতাভের তো নিজেরই করোনা হয়েছিল, তবে উনি কেন এসব বলবেন?" কি অবাক কাণ্ড ! কে বোঝাবে, অমিতাভ কোনও ভাবেই দায়ী নন। সবার সুরক্ষার কথা মাথায় রেকেই এই সতর্কবার্তা ছড়ানো হচ্ছে। যাই হোক দেখার এটাই সত্যিই এই ভয়েস মেসেজ বন্ধ করা হয় কিনা !

    Published by:Piya Banerjee
    First published: