বিনোদন

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিল্লু বারবার থেকে হালের লক্ষ্মী বম্ব, চাপের ঠেলায় বদলেছে সিনেমার নাম

বিল্লু বারবার থেকে হালের লক্ষ্মী বম্ব, চাপের ঠেলায় বদলেছে সিনেমার নাম

শেক্সপিয়র বলেছিলেন, হোয়াটস ইন আ নেম! অর্থাৎ নাম নিয়ে অত মাথা ঘামানোর কোনও প্রয়োজন নেই।

  • Share this:

#মুম্বই:  শেক্সপিয়ার বলেছিলেন, হোয়াটস ইন আ নেম! অর্থাৎ নাম নিয়ে অত মাথা ঘামানোর কোনও প্রয়োজন নেই। সত্যিই কি তাই? নাম যদি এতই হেলাফেলার বস্তু হত, তা হলে কি আর ছায়াছবির নাম নিয়ে প্রতিবাদ এবং তা পাল্টানোর জেহাদে সামিল হত এ দেশ?

অস্বীকার করা যায় না, হালফিলে যেন চল হয়েছে সিনেমার নাম পাল্টে দেওয়া, তা-ও আবার জোর করে। নাম ঠিক হয়ে গিয়েছে, সেই নামে পোস্টারে ছেয়ে গেছে দেশের অলিগলি, টিভিতে প্রোমো দেখানো শুরু হয়ে গেছে। আপনিও মনে মনে ভাবছেন অমুক ছবিটা দেখতে যাবেন। ও মা, আচমকা দেখলেন, রুমাল কখন যেন বেড়াল হয়ে গিয়েছে! মানে রাতারাতি ছবির নাম পাল্টে দেওয়া হয়েছে। কখনও রাজনৈতিক চাপে, আবার কখনও কারও মনে আঘাত লাগবে সেই ভেবে ছবির নাম রাতারাতি পাল্টে দেওয়া হয়।

যেমন সম্প্রতি অক্ষয় কুমার অভিনীত লক্ষ্মী বম্ব ছবিটি কর্নি সেনার রোষে পড়েছে। লক্ষ্মীর সঙ্গে বম্ব থাকলে না কি দেবীকে অপমান করা হয়। এই অভিযোগের চাপেই বম্ব সরিয়ে আর নায়িকা কিয়ারা আদবানিকে বিশেষ করে প্রকাশ্যে এনে সাজানো হয়েছে ছবির নয়া পোস্টার।

যদিও এটা প্রথমবার নয়, এর আগেও বহুবার এই কাণ্ড ঘটেছে। এক ঝলকে দেখে নেওয়া যাক কোন কোন ছবির নাম বদল হয়েছে বলিউডে!

১. পদ্মাবত সঞ্জয় লীলা বনশালির এই ছবি ২০১৮০তে মুক্তি পায়। ছবির মূল নাম ছিল পদ্মাবতী, যা চিতোরের রানি পদ্মাবতীর জীবনের উপর আধারিত। কর্নি সেনা ধরে নিয়েছিল যে ছবিতে হিন্দু রানি পদ্মাবতীর সঙ্গে মুসলমান শাসক আলাউদ্দিন খিলজির প্রেম দেখানো হবে, তাই শুরু হয়েছিল প্রতিবাদ। অতএব বাধ্য হয়ে ছবির নাম পদ্মাবতী থেকে পদ্মাবত করা হয়। ২. জাজমেন্টাল হ্যায় কেয়া ২০১৯-এ মুক্তিপ্রাপ্ত কঙ্গনা রানাউত আর রাজকুমার রাও অভিনীত এই ছবিটির আদতে নাম ছিল মেন্টাল হ্যায় কেয়া! পোস্টারে জিভের উপর ব্লেড নিয়ে কঙ্গনা আর রাজকুমারকে দেখা মাত্রই প্রতিবাদের আগুন জ্বলে গেল। অভিযোগ উঠল ছবির নাম আর পোস্টার না কি মানসিক রোগীদের অপমান করছে, অগত্যা নাম বদলে দেওয়া হল! ৩. বিল্লু সেই ২০০৯ সালের ইরফান খান, শাহরুখ খান অভিনীত এই ছবিও নিষ্কৃতি পায়নি। ছবির নাম ছিল বিল্লু বারবার। কারণ ছবিতে এক নাপিতের ভূমিকায় ছিলেন ইরফান। হেয়ার স্টাইলিস্ট অ্যাসোশিয়েশন বলল এই বারবার শব্দ তাঁদের পেশার অপমান। অতএব সেটা ছেঁটে দেওয়া হল! ৪. ম্যাড্রাস কাফে হাই-ভোল্টেজ এই রাজনৈতিক ড্রামার নাম ছিল জাফনা। এক আর্মি অফিসারের এক গোপন অভিযান, যা তাঁকে জাফনায় নিয়ে যায়, এই ছিল গল্প। তবে জাফনা নাম নিলে শ্রীলঙ্কার মর্যাদা ক্ষুণ্ণ হবে, সেই জন্য নাম বদল করা হয়। ৫. টোটাল সিয়াপা আলি জাফর আর ইয়ামি গৌতম অভিনীত এই ছবির মূল নাম ছিল অমন কি আশা। আলি ছিলেন পাকিস্তানি অমনের ভূমিকায় যিনি ভারতের আশা আকা ইয়ামির প্রেমে পড়েন। তবে এই নামের কপিরাইট ছিল পাকিস্তানি জং গ্রুপ ও টাইমস অফ ইন্ডিয়ার কাছে। কারণ এই নামে তাঁরা একটি সামাজিক প্রয়াস নিয়েছিলেন। তাই নাম বদলে দেওয়া হয়।

Published by: Akash Misra
First published: November 2, 2020, 7:51 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर