• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • শ্রীদেবীর মৃত্যুর পিছনে রয়েছে দাউদের হাত, দাবি পুলিশ অফিসারের

শ্রীদেবীর মৃত্যুর পিছনে রয়েছে দাউদের হাত, দাবি পুলিশ অফিসারের

গোটা দুনিয়া হতবাক হয়ে গিয়েছিল বলিউড ডিভা শ্রীদেবীর মৃত্যুতে ৷

গোটা দুনিয়া হতবাক হয়ে গিয়েছিল বলিউড ডিভা শ্রীদেবীর মৃত্যুতে ৷

গোটা দুনিয়া হতবাক হয়ে গিয়েছিল বলিউড ডিভা শ্রীদেবীর মৃত্যুতে ৷

  • Share this:

    #মুম্বই: গোটা দুনিয়া হতবাক হয়ে গিয়েছিল বলিউড ডিভা শ্রীদেবীর মৃত্যুতে ৷ দুবাইয়ের হোটেলে বাথটবে ডুবে শ্রীদেবীর মৃত্যুর খবর পাওয়ার পর, কিছুতেই যেন গোটা ঘটনাটি মেনে নিতে পারছিল না তামাম দুনিয়ার মানুষজন ৷ সঙ্গে রটে গিয়েছিল শ্রীদেবীর মৃত্যু নিয়ে নানা খবর ৷ তবে এবার গুঞ্জন নয়, বরং মুম্বইয়ের পূর্বতন পুলিশ অফিসার বেদ ভূষণ জানালেন, শ্রীদেবীর মৃত্যু দুর্ঘটনা নয়, শ্রীদেবীকে হত্যা করা হয়েছে ৷ আর পিছনে হাত রয়েছে দাউদের !

    তবে নিজের মন্তব্যে সঠিক কোনও প্রমাণ দেখাতে পারেননি পুলিশকর্তা বেদ ভূষণ ৷ এটি নিছকই তাঁর অনুমান ৷ যেহেতু দুবাই জুড়ে দাউদের গুণ্ডরাজ চলে, সে কারণেই এই ধরণের অনুমান করেছেন পুলিশকর্তা ৷

    আরও পড়ুন 

    পরিকল্পনামাফিক খুন করা হয়েছে শ্রীদেবীকে! মাথাচাড়া দিল নতুন রহস্য!

    ২৪ ফেব্রুয়ারি দুবাইয়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন বলিউডের প্রথম মহিলা সুপারস্টার শ্রীদেবী। হোটেলের বাথরুমের বাথটাবে পাওয়া যায় তাঁর নিথর দেহ। ফরেনসিক রিপোর্টে দুবাই পুলিশ জানায়, দুর্ঘটনাক্রমে জলে ডুবে মৃত্যু হয়েছে নায়িকার। সরকারি পক্ষের আইনজীবী জানিয়েছিল, সংজ্ঞা হারিয়ে পড়ে যান শ্রীদেবী ৷ তারপরে বাথটাবের জলে ডুবে মৃত্যু হয় তাঁর ৷পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রণালয় বা 'মিনিস্ট্রি অফ এক্সটারনাল অ্যাফেয়ার্স'-এর পক্ষ থেকেও জানানো হয়, শ্রীদেবীর মৃত্যুর মধ্যে রহস্যজনক কিছু নেই।

    কিন্তু, তাও শ্রীদেবীর মৃত্যু ঘিরে রহস্যর মেঘ কেটেও কাটছে না! ফের শুরু হল জল্পনা-কল্পনা। সূত্রপাত-- বেদ ভূষণ নামে এক অবসরপ্রাপ্ত পুলিসকর্তার দায়ের করা অভিযোগ। তাঁর দাবি, স্বাভাবিক মৃত্যু নয়, পরিকল্পনা করে খুন করা হয়েছে শ্রীদেবীকে। বেদ ভূষণ দিল্লিতে একটি বেসরকারি গোয়েন্দা সংস্থা চালাতেন।

    একটি ইংরেজি সংবাদপত্রে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ''কাউকে বাথটাবের মধ্যে ডুবিয়ে মারা খুব সহজ। সেক্ষেত্রে অনেকসময়ই কোনও প্রমাণ মেলে না! কাজেই, সহজেই দুর্ঘটনা হিসাবে প্রমাণ করা যায়। শ্রীদেবীর ক্ষেত্রেও এমনটাই ঘটেছে।''

    আরও পড়ুন 

    পর্দায় নতুন সানি! দেখুন তাঁর আইটেম ডান্স

    তিনি আরও জানান, শ্রীদেবীর মৃত্যুর পর তদন্তের স্বার্থে তিনিও 'জুমেরিয়াহ এমিরেটস টাওয়ার'-এ গিয়েছিলেন । অথচ, যে ঘরে শ্রীদেবী ছিলেন, সেই ঘরে তাঁকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। তবে, সেই ঘরের পাশের ঘরে তিনি থাকেন এবং নায়িকার মৃত্যু পরবর্তীকালীন সমস্ত ঘটনা পর্যবেক্ষণের চেষ্টা করেন। তখনই অস্বাভাবিক, অসামঞ্জস্যপূর্ণ কিছু ঘটনা তাঁর নজরে আসে। মনে হয়, কিছু যেন লোকানো হচ্ছে।

    কিছুদিন আগে শ্রীদেবীর মৃত্যু স্বাভাবিক নয়, তাঁকে খুন করা হয়েছে এই দাবি তুলেছিলেন পরিচালক সুনীল সিং-ও। সুনীল সিংয়ের প্রশ্ন ছিল, শ্রীদেবীর উচ্চতা ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি। আর বাথটাবটি ছিল ৫ ফুটের। তাহলে কীভাবে তাঁর বাথটাবে ডুবে মৃত্যু হতে পারে? পাশপাশি, শ্রীদেবীর নামে ওম্যামে ২৪০ কোটি টাকার একটি লাইফ ইন্স্যুরেন্স ছিল। ইন্স্যুরেন্সের শর্ত ছিল, টাকাটা তাঁর পরিবার তখনই পাবে, যদি একমাত্র দুবাইতে তিনি মারা যান এবং ঘটনাচক্রে দুবাইতেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন শ্রী।

    সুনীল সিং প্রথমে দিল্লি হাইকোর্ট এবং পরবর্তীকালে সুপ্রিম কোর্টে পুনরায় তদন্তের আবেদন করেন । যদিও দিল্লি হাইকোর্ট ও শীর্ষ আদালত সেই আবেদন খারিজ করে।

    First published: