• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • KOLKATA SIMLA A BONG POSITIVE THEATER TEAM CELEBRATES 5 ANNIVERSARY WITH ACTOR BASABDATTA CHATTERJEE AND KINJAL NANDA PBD

কলকাতা সিমলা A বং পজেটিভ' নাট্য দলের পঞ্চম জন্মদিনে সামিল বাসবদত্তা চট্টোপাধ্যায়, ও কিঞ্জল নন্দ

বিকাল থেকে আয়োজিত হয়েছিল থিয়েটার নিয়ে এক সেমিনার।

বিকাল থেকে আয়োজিত হয়েছিল থিয়েটার নিয়ে এক সেমিনার।

  • Share this:

    ১ লা আগস্ট 'কলকাতা সিমলা A বং পজেটিভ' নাট্য দলের পঞ্চম জন্মদিন উপলক্ষে হেদুয়ার আর্কহার্ট স্কোয়ারে আয়োজন করা হয়েছিল সারাদিন ব্যাপী নানান রকমের উদযাপন। এই রক্তদান কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত অভিনেতা বাসবদত্তা চট্টোপাধ্যায়, ও কিঞ্জল নন্দ। সঙ্গে বিনামূল্য অক্সিজেন পার্লারের ও আয়োজন করা হয়েছিল।

    এই অনুষ্ঠানের বিষয়ে কিঞ্জল নন্দ জানান, " A বং পজেটিভ নাট্য দল তাদের জন্মদিনে যে রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। তারা থিয়েটার দল হিসেবে ভীষণই ব্যতিক্রমী। থিয়েটার করার পাশাপাশি তারা যে ভাবে নাট্য সমাজের পাশে দাঁড়িয়েছে, এবং বিভিন্ন ভাবে মানুষকে সাহায্য করে চলেছে, তার জন্য তাদের সাধুবাদ জানাই।।" অন্যদিকে বাসবদত্তা চট্টোপাধ্যায় বলেন, " A বং পজেটিভ নাট্য দল যে তাদের জন্মদিন উদযাপনের ক্ষেত্রে রক্তদান শিবির আয়োজন করেছে, অক্সিজেন পার্লারের আয়োজন করেছে বিনামূল্যে, তা সত্যিই খুব ভাললাগার। এই নাট্য দল যে মানুষের পাশে থাকার মধ্যে দিয়েই নিজেদের জন্মদিন উদযাপনের উদ্যোগ নিয়েছে তা আমার খুবই ভাল লেগেছে।"

    বিকাল থেকে আয়োজিত হয়েছিল থিয়েটার নিয়ে এক সেমিনার। করোনা পরিস্থিতিতে সমস্ত ক্ষেত্রে যখন ধীরে ধীরে ছাড় দেওয়া হচ্ছে, থিয়েটার হল গুলো খোলার প্রতি দৃষ্টি নেই কারোর, কাজের অভাবে অসংখ্য শিল্পী নিজেদের পেশা ছেড়ে বাধ্য হচ্ছেন অন্য কাজ করতে, এরকম অবস্থায় কি হতে পারে থিয়েটারের ভবিষ্যত? এই বিষয়ক এই থিয়েটার আলোচনা চক্রে উপস্থিত ছিলেন অনিন্দ্য বন্দ্যোপাধ্যায়, পঙ্কজ মুন্সী, কমল চট্টোপাধ্যায়, ত্রীগুণা শঙ্কর এর মতোন প্রখ্যাত ব্যক্তিত্বরা।

    অভিনেতা অনিন্দ্য বন্দ্যোপাধ্যায় এই সেমিনার বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে জানান, " বর্তমান কঠিন পরিস্থিতিতে জীবিকা নির্বাহের চেয়ে বড় কিছু হয় না, থিয়েটার যদি মানুষকে সেই নিশ্চয়তা না দিতে পারে তবে কর্মী রা সরে যাবেন সেটাই স্বাভাবিক। বর্তমান পরিস্থিতিতে কেবল থিয়েটার না, সমস্ত শিল্প মাধ্যম বিপদের মুখে। এই জায়গা থেকে যদি আমাদের বেরিয়ে আসতে হয় তবে সব থেকে বেশি প্রয়োজনীয় রাজনৈতিক ভেদাভেদ ভুলে শিল্পের জন্য, থিয়েটারের ক্ষেত্রে থিয়েটারের জন্য লড়াই করা। সরকার যদি কোনও রকম পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া এক্ষেত্রে সাহায্য করেন, তবে এই কঠিন পরিস্থিতি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব।"

    বর্ষীয়ান নাট্য ব্যাক্তিত্ব পঙ্কজ মুন্সী A বং পজেটিভ নাট্য দল আয়োজিত এই আলোচনা চক্র বিষয়ে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, "A বং পজেটিভ নাট্য দলের সঙ্গে প্রথম থেকেই আমি যুক্ত। তাদের বিভিন্ন উদ্যমে বারবার তাদের ডাকে আমি সারা দিয়েছি। আজ তাদের পঞ্চম জন্ম বার্ষিকীতে যে তারা করোনা পরিস্থিতিতে থিয়েটারের বিপন্নতা বিষয়ক আলোচনা চক্রের আয়োজন করেছে তার জন্য তাদের সাধুবাদ জানাই।" অন্যদিকে আর এক বর্ষীয়ান নাট্য ব্যক্তিত্ব কমল চট্টোপাধ্যায় এই আলোচনা চক্র বিষয়ে জানান, "বর্তমানে থিয়েটার এবং থিয়েটার কর্মীরা যে ভাবে এই করোনা পরিস্থিতিতে সমস্যার সম্মুখীন, তা সত্যিই খুব চিন্তাদায়ক। অবিলম্বে সরকার থেকে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়া হলে থিয়েটারের অবস্থা আরো বিপন্ন হতে পারে।।" প্রখ্যাত পুতুল নাচ শিল্পী এবং নাট্য কর্মী ত্রীগুণা শঙ্করের কথাতেও উঠে আসে একই আশঙ্কা, তিনি বলেন, "বর্তমান থিয়েটার করোনা পরিস্থিতির কারণে যে পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে তাতে করে আমি খুব ইতিবাচক ভবিষ্যতের কথা ভাবতে পারছি না।। তবে আমাদের প্রচেষ্টা যে A বং পজেটিভ নাট্য দল আয়োজিত এই আলোচনা চক্র থেকে আমরা নিশ্চিত কোনো ইতিবাচক পদক্ষেপ এর দিকে এগোতে পারবো।।"

    A বং পজেটিভ নাট্য দলের সম্পাদক সুরজিৎ তাদের এই অনুষ্ঠান বিষয়ে জানান, "A বং পজেটিভ নাট্য দলের পঞ্চম জন্মদিন উপলক্ষে আমরা মানুষের সহায়তায় এই রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছে। বিকেল থেকে থিয়েটার বিষয়ক একটি আলোচনা চক্রের আয়োজন করেছি আমরা। আমাদের নাট্য দল বরাবরই ব্যতিক্রমী ভাবে মানুষের পাশে থেকে থিয়েটার করে যাওয়ার চেষ্টা করেছে প্রথম থেকে। এই উদ্যোগ তার থেকে আলাদা কিছু না।"

    সমাজসেবী শ্রেয়া পান্ডে (পশ্চিম বঙ্গ সরকারের মন্ত্রী সাধন পান্ডের কন্যা), সমাজ কর্মী বিকাশ জায়েসবাল, জোড়াসাঁকো বিধানসভার বিধায়ক, কে এম সি ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, বোরো -৪ এর চেয়ার পার্সন, ও রাজ্য তৃণমূল মহিলা কংগ্রেসের কার্যকরী সভানেত্রী স্মিতা বক্সি ও বর্ষীয়ান অভিনেত্রী তপতি মুন্সী এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানকে সাফল্যমণ্ডিত করে তুলেছিলেন।

    Published by:Pooja Basu
    First published: