Kareena Kapoor Khan: সইফকে নিয়ে হাসপাতালে ছুটলেন করিনা ! ভাইরাল ভিডিওতে বাড়ছে উদ্বেগ

Kareena Kapoor Khan: সইফকে নিয়ে হাসপাতালে ছুটলেন করিনা ! ভাইরাল ভিডিওতে বাড়ছে উদ্বেগ

kareena kapoor khan

Kareena Kapoor Khan: দেশে এই মুহূর্তে কোভিড ফের আতঙ্ক তৈরি করেছে। হাজার হাজার মানুষ রোজ মারা যাচ্ছে। অক্সিজেন নেই, হাসপাতালে বেড নেই। চোখের সামনে রোগীদের মরতে দেখেও অসহায় ডাক্তাররা। এই অবস্থায় করিনা - সইফের হাসপাতালে ছুটে যাওয়া ফের উদ্বেগ বাড়াচ্ছে।

  • Share this:

    #মুম্বই: করিনা কাপুর খান (Kareena Kapoor Khan)। বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী তিনি। সেই সঙ্গে বেবো নবাবপত্নীও। সইফ আলি খান(Saif ali khan)  ও তাঁর সুখের সংসার। কয়েক মাস আগেই দ্বিতীয় পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন করিনা। তৈমুর আলি খানের (taimur ali khan)  ভাইয়ের ছবি বা নাম কোনও কিছুই মিডিয়ার সামনে আনেননি তিনি। প্রথম সন্তান তৈমুরকে জন্মের পর মিডিয়ার সামনে আনায়, পাপারাৎজিরা যেন পিঁছনে পড়ে যায় তৈমুরের। আর যা ক্ষতি করেছে তৈমুরের বেড়ে ওঠায়। আর ঠিক এই কারণেই ছোট ছেলেকে লোকচক্ষুর আড়ালে রেখেছেন সইফিনা।

    যদিও তাঁদের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন নেট দুনিয়ার মানুষ ও তাঁদের ভক্তরা। তবে সম্প্রতি করিনা ও সইফ আলি খানের একটি ভিডিও ফের ভাইরাল (Viral video) হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। আজ সকালেই করিনা ও সইফ আলি খানকে তড়িঘড়ি ছুটে যেতে দেখা গেল ক্লিনিকে। যে হাসপাতালে করিনা ডাক্তার দেখান, সেখানেই ছুটে গেলেন এই দম্পতি। ভিডিওতে দু'জনকেই রীতিমতো ক্লিনিকের দিকে ছুঁটে যেতে দেখা গিয়েছে। আর যা নিয়েই নানা প্রশ্ন দানা বাঁধছে।

    দেশে এই মুহূর্তে কোভিড ফের আতঙ্ক তৈরি করেছে। হাজার হাজার মানুষ রোজ মারা যাচ্ছে। অক্সিজেন নেই, হাসপাতালে বেড নেই। চোখের সামনে রোগীদের মরতে দেখেও অসহায় ডাক্তাররা। এই অবস্থায় করিনা - সইফের হাসপাতালে ছুটে যাওয়া ফের উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। ভিডিওতে করিনা ও সইফ দু'জনের মুখেই মাস্ক দেখা গিয়েছে। কোভিড নয়। কারণ তাহলে তাঁরা এতক্ষণে জানিয়ে দিতেন। তাহলে কি হতে পারে ভেবে ভক্তরা ওই ভিডিওতে কমেন্ট করছেন। তবে অনেকেই বলছেন রেগুলার চেক-আপের জন্যই গিয়েছেন করিনা ক্লিনিকে। কিন্তু তাঁদের চোখে মুখে চিন্তার ছাপ স্পষ্ট। এই ভিডিওটি ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেছেন ভাইরাল ভায়ানি। যদিও তিনিও এর বেশি কিছু লেখেননি পোস্টে। ফলে ভক্তদের মধ্যে করিনা ও সইফকে নিয়ে চিন্তার ছাপ দেখা গিয়েছে।

    Published by:Piya Banerjee
    First published:

    লেটেস্ট খবর