ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ হওয়ার পরেই টুইটারকে আক্রমণ কঙ্গনার

ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ হওয়ার পরেই টুইটারকে আক্রমণ কঙ্গনার

টুইটারে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিষিদ্ধ করার পরেই এই দাবি করেছেন অভিনেত্রী।

টুইটারে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিষিদ্ধ করার পরেই এই দাবি করেছেন অভিনেত্রী।

  • Share this:

    #নিউইয়র্ক: টুইটারের সিইও জ্যাক ডোরসিকে এবার নিশানা করলেন অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত। দাবি করলেন, টুইটারের সিইও অসহিষ্ণু এবং ইসলামিস্ট নেশন ও চাইনিজ প্রোপাগান্ডা দ্বারা উদ্বুদ্ধা। টুইটারে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিষিদ্ধ করার পরেই এই দাবি করেছেন অভিনেত্রী।

    টুইটারের সিইও ২০১৫ সালে একটি টুইট করেছিলেন, "টুইটার বাক স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলে। ক্ষমতার দিকে সত্যি কথা তুলে ধরার পক্ষে আমরা।" এই টুইটটি কঙ্গনা শেয়ার করে লিখেছেন, "একদমই নয়। ইসলামিস্ট দেশ এবং চিনের মতাদর্শ দ্বারা আপনারা উদ্বুদ্ধ। নিজেদের সুবিধা নিয়ে আপনারা শুধু কথা বলেন। অসহিষ্ণুতাই দেখাতে পারেন আপনারা। নিজের লোভের দাস ছাড়া আপনারা কিছু নন।"

    সম্প্রতি একটি ডোনাল্ড ট্রাম্পের তিনটি টুইটার অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করা হয়েছে। টুইটারের পক্ষ থেকে বলা হয়, ডোনাল্ড ট্রাম্পের বক্তব্য থেকে হিংসা ছড়িয়ে পড়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। তাই-ই তাঁর অ্য়াকাউন্টগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

    তবে এই ঘোষণার কিছুক্ষণ পরেই অন্য অ্যাকাউন্ট থেকে সক্রিয় হন ট্রাম্প। সেখানে টুইটারকে আক্রমণ করে একের পর এক টুইট করা শুরু করেন তিনি। দাবি করেন, টুইটার নাকি বাকস্বাধীনতা খর্ব করতে চায়। এর পরে কিছুক্ষণের মধ্যে সেই অ্যাকাউন্টটিও বন্ধ করে দেওয়া হয়। এভাবে মোট তিনটি অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে টুইটার।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: