Jeetu Kamal : বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য কোভিড আক্রান্ত হওয়ায় শোকে মুহ্যমান জীতু কমল, ফেসবুকে মর্মস্পর্শী পোস্ট

জীতু কমল, ফাইল চিত্র-ফেসবুক

জীতুর সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল দেখলে স্পষ্টই বোঝা যায় তাঁর রাজনৈতিক মতাদর্শ ও বিশ্বাস ৷ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে তিনি নিজের ঈশ্বর বলে মনে করেন ৷

  • Share this:
    কলকাতা :  টলিউডে হাতে গোনা যে কয়েক জন শিল্পী বামপন্থার প্রতি আস্থা দেখিয়েছেন সম্প্রতি, তাঁদের মধ্যে অভিনেতা জীতু কমল একজন ৷ সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচনে তাঁকে দেখাও গিয়েছিল বামফ্রন্টকে ফিরিয়ে আনতে সরব হতে ৷ জীতুর সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল দেখলে স্পষ্টই বোঝা যায় তাঁর রাজনৈতিক মতাদর্শ ও বিশ্বাস ৷ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে তিনি নিজের ঈশ্বর বলে মনে করেন ৷ বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য ও তাঁর স্ত্রী মীরা ভট্টাচার্য কোভিড আক্রান্ত হওয়ায় জীতু শোকে মুহ্যমান ৷ মঙ্গলবার বিকেলে তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আমার ঈশ্বরও আজ আক্রান্ত বেশ, স্তব্ধ হলাম... আর কোনো কথা নয়..’৷ পরের দিন বিকেলে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর শারীরিক স্থিতিশীলতার খবর পেয়ে স্বস্তিবোধ করেছেন ৷ সে কথাও শেয়ার করেছেন তিনি ৷ গত ২৯ মার্চ বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে নিয়ে একটি পোস্ট করেছিলেন জীতু ৷ তাঁর সেই পোস্ট শেয়ার করেছিলেন অনেকেই ৷ সেখানে অভিনেতা লিখেছিলেন, ‘আপনাকে ভালোবাসি স্যার.. আপনি বাম রাজনীতি করেন শুধু তাই জন্যে নয়.. আপনি সততার, সত্যের, নিষ্ঠার আরেক নাম..আপনি "বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য"৷’ পোস্টের শেষে জীতু আরও লিখেছিলেন সেই পোস্টের জন্য তাঁর কাজের ক্ষতি হবে, সংসার চালাতে অসুবিধে হবে ৷ প্রচুর অভিযোগ পড়বে ৷ কিন্তু তিনি রাজনীতির ঊর্ধ্বে গিয়ে সত্যের কথা বলেছিলেন ৷ সত্যের পথে থাকার কথা লিখেছিলেন ৷ বামমনস্ক জীতু এ বছর তাঁর ও অভিনেত্রীর নবনীতার বিবাহবার্ষিকীর টাকা দান করেছেন মুখ্যমন্ত্রীর কোভিড ত্রাণে ৷ প্রসঙ্গত গত ১৮ মে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের স্ত্রী করোনা আক্রান্ত হয়ে উডল্যান্ডস হাসপাতালে ভর্তি হন। তাঁর অবস্থা অনেকটাই স্থিতিশীল। তবে অক্সিজেনের মাত্রা ওঠানামা করলেও হাসপাতালে যেতে চাইছেন না রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য।  চিকিৎসকরা অবশ্য বলছেন, করোনা উপসর্গ থাকলে স্যাচুরেশান হ্রাস-বৃদ্ধি  অত্যন্ত স্বাভাবাকি। তবে সতর্কতার জন্য তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করার মত দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু কোনও মতেই হাসপাতালের পথে পা বাড়াতে রাজি নন তিনি ৷ সূত্রের খবর, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে এখনও কোনও হাই ডোজ অ্যান্টিবায়োটিক বা স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ দেওয়া হচ্ছে না। চিকিৎসকরা তাঁর শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছেন প্রতি মুহূর্তে।
    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: