‘উল্কি করালে কি রক্ত দেওয়া যায়?’ রক্তদানের ছবি পোস্ট করে সমালোচিত ইমন

ইমন চক্রবর্তী, ছবি-ফেসবুক

ইমনের উদ্যোগকে বাহবা জানিয়েছেন অনেক শুভার্থীই ৷ কিন্তু পাশাপাশি এসেছে তীব্র কটাক্ষ ৷ গায়িকাকে সমালোচনাবাণে বিদ্ধ করেছেন বহু নেটিজেন ৷

  • Share this:

    কলকাতা : খ্যাতনামীদের সামাজিক পাতায় এখন সমাজেসবার ছবি নিয়মিত ৷ ছবি পোস্ট করা মাত্রই তাঁরা ভেসে যাচ্ছেন অনুরাগীদের শুভেচ্ছাবার্তায় ৷ সঙ্গীতশিল্পী ইমন চক্রবর্তীর বেলায় কিন্তু শুভেচ্ছাস্রোতের সুর কাটল ৷ রক্তদানের ছবি ও ভিডিয়ো ফেসবুকে পোস্ট করে তিনি ট্রোলড হলেন ৷

    রবিবার তিনি ফেসবুকে পোস্ট করেন রক্তদানের ছবি ও ভিডিয়ো ৷ সঙ্গে ক্যাপশন, ‘রক্তদান করছি, সমাজের জন্য কাজ করছি, শুভ রবিবার’ ৷ ইমনের উদ্যোগকে বাহবা জানিয়েছেন অনেক শুভার্থীই ৷ কিন্তু পাশাপাশি এসেছে তীব্র কটাক্ষ ৷ গায়িকাকে সমালোচনাবাণে বিদ্ধ করেছেন বহু নেটিজেন ৷

    অনেকেরই প্রশ্ন, রক্তদান করে তার ছবি পোস্ট করার কী হয়েছে? তাঁদের দাবি, সাধারণ মানুষ যাঁরা নিয়মিত রক্তদান করেন, তাঁদের ছবিতে কোনও উচ্ছ্বাস বা উন্মাদনা আসে না ৷ ইমন বলেই তাঁর ছবি নিয়ে এত হই চই হচ্ছে ৷

    অনেক নেটিজেনের চিন্তা আবার অন্যদিকে ৷ তাঁদের জিজ্ঞাসা, শরীরে উল্কি করালে কি রক্তদান করা যায়? তাঁদের উদ্বেগের উত্তরও এসেছে অনেকের কাছ থেকে ৷ সেই দলের আশ্বাস, উল্কি বা ট্যাটু করানোর ৬ মাস পর থেকে রক্তদান করাই যায় ৷ কিন্তু কেউ কেউ একেবারেই সে কথা মানতে রাজি নন ৷ তাঁদের দাবি, ট্যাটু করানো হলে রক্তদান থেকে বিরত থাকতে হয়৷ তাই ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো ট্যাটু করাননি!

    অনেকে আবার এরমধ্যেও টেনে এনেছেন সারেগামাপা-র ফাইনাল পর্ব এবং তার বিজয়ীকে ৷ তাঁদের কথায়, এ বারের রিয়্যালিটি শো-এর পর তাঁকে আর মেনে নিতে পারছেন না তাঁরা ৷  অর্থাৎ পুরনো ক্ষোভ তারা উগরে দিয়েছেন সম্পূ্র্ণ ভিন্ন প্রসঙ্গে ৷ তবে সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমে এক সাক্ষাৎকারে গায়িকা জানিয়েছেন, ‘সারেগামাপা বিতর্কের’ পরে দীর্ঘ ট্রোলিংয়ে তিনি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন ৷ তাঁকে মানসিক চিকিৎসকের সাহায্যও নিতে হয় ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: