বিজ্ঞাপনে দেখানো অ্যাবস আদতে ফটোশপ করা? হৃতিককে নিয়ে এ কী বলছেন ঘনিষ্ঠ বন্ধু!

দাবি তুলেছেন অভিনেতা তোনাঞ্জ কাব্যোঁ (Toranj Kayvon), কেশরী (Kesari) ছবিতে এক ছোট ভূমিকায় যিনি নজর কেড়েছিলেন!

দাবি তুলেছেন অভিনেতা তোনাঞ্জ কাব্যোঁ (Toranj Kayvon), কেশরী (Kesari) ছবিতে এক ছোট ভূমিকায় যিনি নজর কেড়েছিলেন!

  • Share this:

#মুম্বই: বিনোদন দুনিয়ার নিয়মই এই- কোনও কিছু একটা সামনে এলে তা নিয়ে পাবলিসিটি চলতেই থাকে! অনেক দিন পরে জামা খুলে নিজের পেশিবহুল পুরুষালি নির্লোম সৌন্দর্য তুলে ধরেছেন হৃতিক রোশন (Hrithik Roshan) সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি, তার রেশ একদিনেই ফুরিয়ে যাবে, সেটা আশা করা নিতান্ত অন্যায় হবে! তার উপর আবার যে ফ্যাশন ব্র্যান্ডের বিজ্ঞাপনে জামা খুলেছেন হৃতিক, সেটার মালিকও তিনি নিজেই! ফলে চর্চা চলছে লাগাতার, শত্তুরদের মুখে ছাই দিয়ে বলিউডের এই জনপ্রিয় নায়কের শারীরিক কাঠামোর চুলচেরা বিচার সোশ্যাল মিডিয়ায় করছেন তাঁর সেলিব্রিটি বন্ধুরাই!

যেমন, বলিডের জনপ্রিয় অভিনেতা বীর দাস (Vir Das) হৃতিকের সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেল মারফত শেয়ার করা HRX ফ্যাশন ব্র্যান্ডের সেই ভিডিও দেখে মজা করে লিখেছেন যে এই অ্যাবসের বাহার দেখার আগেই তিনি তিনটে বিস্কুট খেয়ে ফেলেছেন! মানে সাফ- তাঁর আর হৃতিকের মতো অ্যাবস পাওয়ার আশা নেই! হৃতিক কিন্তু কম যান না- তিনি বীরকে উত্তরে লিখেছেন যে শুধু বিস্কুট খেয়ে যদি এমন রসবোধ পাওয়া যেত, তাহলে তিনি সেটাই করতেন! মানে সাফ- বীরের আছে ব্রেন আর হৃতিকের আছে অ্যাবস!

কিন্তু মুশকিল হল, হৃতিকের ঘনিষ্ঠ বন্ধুরাই বলছেন যে ওই অ্যাবস না কি ফটোশপ করা! এই দাবি তুলেছেন অভিনেতা তোনাঞ্জ কাব্যোঁ (Toranj Kayvon), কেশরী (Kesari) ছবিতে এক ছোট ভূমিকায় যিনি নজর কেড়েছিলেন! তাঁর বক্তব্য- হৃতিক নিয়মিত পিৎজা খেয়ে থাকেন, ফলে এমন অ্যাবস তাঁর তৈরি হতেই পারে না!

দেখা গেল যে হৃতিক ব্যাপারটাকে বন্ধুর রসিকতা বলে দিব্যি গ্রহণ করেছেন এবং রেগেও যাননি! তিনি এর উত্তরও দিয়েছেন বইকি! সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন যে একমাত্র তোনাঞ্জের সঙ্গে কোথাও বেড়াতে গেলেই তিনি পিৎজা খেয়ে থাকেন, ইচ্ছে করে এমন করেন স্বাস্থ্যসচেতন তোনাঞ্জকে রাগিয়ে দেওয়ার জন্য!

তবে, হৃতিকের এই অ্যাবস দেখে সেরা মন্তব্য করেছেন তাঁর প্রাক্তন স্ত্রী। সুজান খানের (Sussanne Khan) বক্তব্য- হৃতিককে না কি ২১ বছর বয়সী একটা ছেলের মতো দেখতে লাগছে! তা, নায়ককে সেই বয়স থেকেই চেনেন সুজান, বলছেন যখন, তখন কথা সত্যি বলেই মেনে নেওয়া উচিত, তাই না?

First published: