Home /News /entertainment /
International Mother Language Day: আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, গানের অন্দরে লুকিয়ে ইতিহাস

International Mother Language Day: আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, গানের অন্দরে লুকিয়ে ইতিহাস

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

Ekusher Gan: যা তথ্য পাওয়া যায়, তাতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি গানটি রচনা করেন আব্দুল গফফর চৌধুরী।

  • Share this:

    #কলকাতা: গান বয়ে চলে সংগ্রামের ইতিহাস, স্বাধীনতার ইতিহাস। সত্যিই দেশ, কাল, পাত্রর বাইরেও আর্থ-সামাজিক রাজনৈতিক প্রেক্ষিতের সঙ্গে অনেক সময়েই জড়িয়ে যায়, সাহিত্য, গান, নাটক বা কখনও সিনেমা। তেমনই বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে জড়িয়ে গিয়েছে একুশের গান। 'আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি' তেমনই এক ইতিহাসের দলিল।

    যা তথ্য পাওয়া যায়, তাতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি গানটি রচনা করেন আব্দুল গফফর চৌধুরী। প্রথমে গানটিতে সুর দিয়েছিলেন আবদুল লতিফ। পরবর্তী কালে আলতাফ মাহমুদের করা সুরটিই জনপ্রিয়তা লাভ করে। ১৯৫৪ সালের প্রভাতফেরিতে প্রথমবার এই গানটি গাওয়া হয়। এর পর ১৯৬৯ সালে জহির রায়হান জীবন থেকে নেওয়া ছবিতে এই গানটি ব্যবহার করেন। গানটি এখনও পর্যন্ত ১২টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে।

    আরও পড়ুন -  'হঠাৎ রেডিওয় শুনলাম, বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে', ১৯৭১-এর স্মৃতি ফিরল শিল্পী শুভেন্দু মাইতির গলায়

    ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি পুলিশ ভাষা আন্দোনলকারী ছাত্রদের মিছিলে গুলি চালায়। এতে সালাম, বরকত, জব্বর-সহ অনেক পড়ুয়ার মৃত্যু হয়। গানের রচয়িতা আবদুল গফপর চৌধুরী ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে এদের দেখতে যান। তিনি সেই সময় হাসপাতাল মর্গের বাইরে ভাষা আন্দোলনের শহিদ রফিকের একটি লাশ দেখতে পান। সেই সময়ে তৈরি হয় গানটির প্রথম লাইন। তার পর ধীরে ধীরে গান লেখেন তিনি।

    শুরু হয় গান গাওয়া। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গানটি গাওয়া শুরু হয়। এই গানটি গাওয়া ও লেখার অবরাধে ঢাকা কলেজ থেকে ১১ জন পড়ুয়াকে বহিষ্কার করা হয়। এর পর ১৯৫৪ সালে অপর এক মুক্তি সেনা, গানটিতে নতুন করে সুর দেন। ১৯৫৪ সালের প্রভাব ফেরিতে এটি গাওয়া হয়। শহিদদের শ্রদ্ধা জানাতে ২১-এর সকালে হাজারে হাজারে মানুষ শহিদ মিনারে যান, যাওয়ার পথে সকলের মুখে মুখে ফেরে এই গান। সারা পৃথিবীতে সর্বাধিক শ্রোতার হিসাবে এই গানটি শ্রেষ্ট তিনটি গানের একটি স্থান দখল করেছে।

    Published by:Uddalak B
    First published:

    Tags: Bangladesh

    পরবর্তী খবর