আমি বরাবরই নিজের ছন্দে চলি: পাওলি দাম

Paoli Dam

  • Share this:

    #কলকাতা: কেমন আছেন?

    ''ব্যথাটা এখনও চাগাড় দিচ্ছে!''

    সোফায় হেলান দিয়ে বসলেন! মুখে সবসময়ের সঙ্গী, মিষ্টি সেই হাসি! স্লিপ ডিস্ক-এ কাবু! ডাক্তার এখনও কয়েকদিন বেডরেস্টে থাকতে বলেছেন! কিন্তু তারমধ্যেও সাক্ষাৎকারের সময় দিলেন টলিটাউনের 'মাটি'-র মানুষ--পাওলি দাম!

    এ'বছরটা তো আপনারই! ''শুনেই ভাল লাগছে! সত্যি, বছরটা বেশ কাটছে! 'আহারে মন', 'মাটি' দর্শকের পছন্দ হয়েছে। আমারও খব কাছের ছবি! দুটো ছবির পরিচালকও আমার খুব পছন্দের। বাড়তি পাওনা, দুটো ছবিতেই আদিল (হুসেন) আছে!''

    হঠাৎ আলাদা করে আদিলের নাম...

    '' প্লি-ই-ই-ই-জ! কোনও গসিপ খুঁজবেন না!'' ঠোঁটে হালকা একটা হাসি টানলেন, ''আদিল আমার খুব প্রিয় একজন মানুষ। ও শুধু একজন বড় মাপের শিল্পীই নয়, ওর মতো ভাল মনের মানুষ খুব একটা দেখা যায় না!  ‘মাটি’র সময়ে ভাল বন্ধুত্ব হয়েছিল, ‘আহা রে মন’-এর সময় ওর কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি!''

    বাইরে বৃষ্টি শুরু হয়েছে! এসি-টা দু-ডিগ্রি কমালেন... '' এই বছরটা একটু বেশিই ব্যস্ত হয়ে পড়েছি! খুব স্পেশাল কতগুলো ছবি করলাম। বছরের গোড়াতেই প্রতিমের 'আহারে মন'-এর শুটিং করলাম, তারপর ওর 'ইনক'-এর শুটিংও ছিল! এ'বছর বা পরের বছর রিলিজ করবে! সেপ্টেম্বর-এর প্রথম সপ্তাহে নীলা মাধব পান্ডের 'হলকা' মুক্তি পাচ্ছে!''

    'হলকা'-তে রণবীর শোরের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা কেমন ছিল? ''খুব ট্যালেন্টেড একজন অভিনেতা, অনেককিছু শেখা যায় ওর থেকে! সর্বোপরি, খুব ভাল মনের একজন মানুষ। তবে, আমার 'মৎসপ্রীতি' নিয়ে খুব পিছনে লাগত!

    এ'বছর তো 'কন্ঠ'-রও শুটিং করলেন... ''হ্যাঁ! এখনও শেষ হয়নি, কয়েকদিন বাকি আছে। অগাস্ট মাসে শেষ করব। শিবু (শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়), নন্দিতা দির সঙ্গে এই প্রথম কাজ! শুটিংয়ের প্রতিটা মুহূর্ত খুব স্পেশাল ছিল!''

    শিবপ্রসাদ, নন্দিতা রায়ের ছবি কেমন লাগে? ওঁদের ছবি সমাজের আয়না! সামাজিক সমস্যাগুলো খুব দক্ষতা, সাবলীলতার সঙ্গে ফুটিয়ে তোলেন। শিবু (শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়), নন্দিতা দির ছবির সঙ্গে প্রতিটা মানুষ নিজের জীবন রিলেট করতে পারবে! ওঁদের আর একটা জিনিস খুব ভাল লাগল! গৌতমদা (গৌতম ঘোষ), বুদ্ধদা (বুদ্ধদেব দাসগুপ্ত), ঋতুদা (ঋতুপর্ণ ঘোষ)-র সঙ্গে কাজ করার সময় দেখেছি, ওঁরা শুটিং শুরুর আগে ওয়র্কশপ করান! এখনকার বেশিরভাগ পরিচালকই এই কালচারটায় বিশ্বাসী নয়! সময়ও থাকে না! আবার অনেকে মনে করেন, অভিনেতার মধ্যে থেকে স্পন্টেনিয়াসলি যেটা বেরিয়ে আসবে, সেটাই আসল অভিনয়! আমি কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে ওয়র্কশপ করাটা এনজয় করি! আর 'কন্ঠ' করতে গিয়ে দেখলাম, শিবু, নন্দিতা দি-ও ওয়র্কশপ-এর উপর খুব জোড় দেন!

    সিনিয়র হিসেবে এই প্রজন্মর অভিনেত্রী যেমন মিমি, সোহিনী, নুসরত...এঁদের কাজ নিয়ে কিছু বলবেন... মোবাইলটা বাজল! সাইলেন্ট করে, একটু ঘুরে বসলেন! বাইরে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। এসিটা হালকা কমালেন...''উফফ, ব্যথাটা যা ভোগাচ্ছে! হ্যাঁ কোথায় যেন ছিলাম...?'' এখনকার নায়িকা... ''ও হ্যাঁ! সবাই-ই খুব ভাল! খুব ফোকাসড! তবে, সোহিনী কিন্তু আমারই সমসাময়িক! আসলে ওর ব্রেক থ্রু-টা অনেক পরে হয়েছে! আরও কয়েকজনের কাজ আমার খুব ভাল লাগে--চিত্রাঙ্গদা, সৌরসেনী, ঈশা।

    আচ্ছা, আপনি কি সবসময়ই এমন ডিপলোম্যাটিক উত্তর দিয়ে থাকেন? অনেক্ষণ একটানা হাসলেন! হাতে ধরে রাখা কফি মাগ থেকে খানিকটা কফি চলকে পড়েও গেল কারপেটে!... ''আমি তো কখনওই কারও নামে কিছু বলি না। আমার কাছে যে ভাল, আপনার কাছে সে খারাপ হতেই পারে!'' ভাবছিলাম, পরের প্রশ্নটা করব--'এই মুহূর্তে কাকে প্রতিযোগী মনে করছেন?' থাক ! আর জিজ্ঞেস করছি না ! সেই তো ডিপলোম্যাটিক উত্তর দেবেন! আবারও খিলখিলিয়ে হাসি...'' আমি তো কোনওকালেই কম্পিটিশনে নাম লিখাইনি! আমি বরাবরই  আমার ছন্দে চলি!''

    বিয়ের পরও একটুকু বদলাতে হয়নি? ''লাইফস্টাইলে পরিবর্তণ এসেছে! আদর্শে নয়! হ্যাঁ এখন দায়িত্ব অনেক বেড়েছে, ট্র্যাভেল করতে হয় অনেক বেশি! অর্জুন গুয়াহাটিতে থাকে! কাজেই আমায় সারাক্ষণ কলকাতা-গুয়াহাটি করতে হয়! অর্ধেক সময়টা তো প্লেনেই কেটেই যায়!''

    তারপরেও ঝুলিতে এতগুলো প্রজেক্ট... ওই যে, আপনিই তো শুরুতে বললেন--এই বছরটা আমার!

    First published: