রিয়ার কথাতেই ড্রাগ কিনেছে সিন্ডিকেটের সদস্য দীপেশ, এনসিবির জেরার মুখে বড় স্বীকারোক্তি

সুশান্ত সিং রাজপুত ও রিয়া চক্রবর্তী ৷ ফাইল ছবি ৷

যতই সময় এগোচ্ছে রিয়ার জন্য পরিস্থিতি ততই জটিল হচ্ছে

  • Share this:

    #মুম্বই: সুশান্ত সিং রাজপুত আত্মহত্মার তদন্তে জোরদার গতিতে এগোচ্ছে সিবিআই, এনসিবি ৷ সিবিআইয়ের জেরার মাঝেই বেআইনি ড্রাগের কারবারের ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই এনসিবি জেরা করতে শুরু করে রিয়া চক্রবর্তীর ভাই সৌভিক চক্রবর্তী, সুশান্তের ঘরোয়া ম্যানেজার স্যামুয়েলা মিরান্ডাকে ৷ বয়ানে অসন্তুষ্ট হওয়ায় এই দু'জনকেই গ্রেফতার করেছে এনসিবি ৷

    তারপরেই গ্রেফতার হয়েছে সুশান্তের পরিচারক ৷ গত ৩৬ ঘণ্টায় একের পর ধরা পড়েছে এনসিবির জালে, গ্রেফতার হয়েছে তারা ৷ গ্রেফতার হওয়া তিনজনকে আদালতে পেশ করে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এনসিবি হেফাজতে নিয়েছে ৷ দীপেশ সাওয়ান্ত ড্রাগ সিন্ডিকেটের একজন সক্রিয় সদস্য এনসিবির জেরার মুখে জানতে পারা গিয়েছে ৷ জেরায় উঠে এসেছে দীপেশ সাওয়ান্তের ড্রাগ সিন্ডিকেটের যোগ ৷ জানতে পারা গিয়েছে হাই সোসাইটির বেশ কয়েকজনকে ড্রাগ পাচার করত দীপেশ ৷ দীপেশ জেরায় জানিয়েছে তাঁকে সৌভিকের থেকে ড্রাগ নেওয়ার কথা বলা হয়েছিল, সৌভিক ও স্যামুয়েল মিরান্ডা মিলে ড্রাগ কিনেছে ৷

    রিয়া চক্রবর্তী তাকে ১৭ এপ্রিল ড্রাগ নিতে বলেছিল ৷ দীপেশ এও জানিয়েছে সুশান্তকে ড্রাগ নিতে দেখা গিয়েছে ৷ রবিবার এনসিবির ম্যারাথন জেরার মুখে পড়েন রিয়া চক্রবর্তী ৷ টানা ছয় ঘণ্টা জেরা করা হয়েছে ৷ অনেকেই মনে করছেন ড্রাগ পাচারের মত অপরাধের সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণে যে কোনও সময়ে রিয়া গ্রেফতার হতে পারেন ৷

    Published by:Arjun Neogi
    First published: