বিনোদন

corona virus btn
corona virus btn
Loading

সুশান্তের চা কফিতে ‘‌মন্ত্র পড়া’‌ পাউডার মেশাতেন কে?‌ পর্দাফাঁস করলেন সুশান্তের কাজের লোক

সুশান্তের চা কফিতে ‘‌মন্ত্র পড়া’‌ পাউডার মেশাতেন কে?‌ পর্দাফাঁস করলেন সুশান্তের কাজের লোক

তারপরেই সবচেয়ে বড় অভিযোগটি করেছেন সুশান্তের বাড়ির কাজের লোক।

  • Share this:

#‌মুম্বই:‌ সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকেই নানা মহল থেকে নানারকম অভিযোগ উঠে আসছে। সুশান্তের পরিবারের পক্ষ থেকে বিহারে আলাদা করে বেশ কয়েকটি পয়েন্টে সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে অভিযোগ করা হয়েছে। যাতে জড়িয়ে গিয়েছে সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর নাম। সেখানে সুশান্তের বাবা বলেছেন, রিয়া বলেছিলেন, সুশান্তের বাড়িতে ভূত আছে, আর অশুভ আত্মা ঘুরে বেড়ায়। তাই তাঁকে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য করা হয়। সেখানেই রিয়ার বিরুদ্ধে সুশান্তের ওপর ‘‌কালাজাদু’ করার অভিযোগ করা হয়। আর সেই অভিযোগের তির ছিল সুশান্তের বান্ধবী রিয়ার দিকে।

এছাড়াও, সুশান্তের পরিবারের অভিযোগ ছিল, রিয়া ইচ্ছা করে সুশান্তের মাথায় এসব ঢোকাচ্ছিলেন। যাতে সুশান্তের মানসিক স্থিতি নষ্ট হয়ে যায়। এর মধ্যে সুশান্তের বাড়ির কাজের লোকও বলেন, রিয়া ‘‌কালাজাদু’ জানতেন, তাই প্রয়োগ করা হয়েছিল সুশান্তের ওপর। বাড়িতে কোনওদিন তান্ত্রিকের আনাগোনা না থাকলেও, বাইরে রিয়া তান্ত্রিকের সঙ্গে দেখা করতেন। সুশান্তের কাজের লোক বলেছেন, সুশান্তকে অন্য কেউ কোনও খাবার দিতে পারতেন না। কেউ দিতে গেলে তার হাত থেকে নিয়ে সুশান্তকে খাবার দিতেন রিয়া। এমনকি সামান্য চা–ও।

তারপরেই সবচেয়ে বড় অভিযোগটি করেছেন সুশান্তের বাড়ির কাজের লোক। তিনি বলেছেন, সুশান্তের ঘরে চা, কফি পৌঁছে দেওয়ার পরে সেটি আগে রিয়া নিতেন। তারপর সেটার মধ্যে কিসব মন্ত্র পড়া পাউডার মেশাতেন। সেই কারণেই নাকি সুশান্তের মানসিক অবস্থা খারাপ হয়। কাজের লোক আরও দাবি করেছেন, মন্ত্রের সাহায্যে সুশান্তের মাথা বিগড়ে দিয়েছিলেন রিয়া। ইচ্ছা করে এমন করেছিলেন, যাতে সুশান্ত তাঁর নিয়ন্ত্রণে থাকেন। নিজের সমস্ত বিচার বুদ্ধি তাঁর চলে যায় এবং রিয়ার কথায় ওঠেন, বসেন। ‌‌যদিও, একেই একেবারে ধ্রুবসত্য ধরে নেওয়ার কিছু নেই। কারণ, এসবই সুশান্তের অভিযোগ। আদৌ কালাজাদু বলে কিছু বিশ্বাসযোগ্য আছে কি না, সে বিষয়ে বিতর্ক আছে। তাই এই প্রতিবেদনে কোনওরকম অবৈজ্ঞনিক চিন্তাকে তুলে ধরে আমাদের উদ্দেশ্য নয়, কেবল একজনের অভিযোগকে তুলে ধরাই উদ্দেশ্য।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: August 5, 2020, 4:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर