বিনোদন

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

সুশান্ত তোমার হাসির শব্দ শুনতে পাব না, বিশ্বাস হয় না, শেষবার্তায় পরিবার

সুশান্ত তোমার হাসির শব্দ শুনতে পাব না, বিশ্বাস হয় না, শেষবার্তায় পরিবার
সুশান্ত সিং রাজপুতের শ্রাদ্ধ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হল।

গোটা পরিবারের নয়নের মণি ছিলেন তিনি। এই আদর, এত ভালবাসা ফেলে সুশান্ত চললেন অনন্তের দিকে

  • Share this:

#পটনা: অবশেষে শ্রাদ্ধশান্তিক ক্রিয়া সম্পন্ন হল বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের।চোখের জলেই সুশান্তের পারলৌকিক ক্রিয়া সারলেন তাঁর আত্মীয় পরিজনেরা।

বান্দ্রায় নিজের সমুদ্রঘেঁষা ফ্ল্যাটে ১৪ জুন আত্মঘাতী হন সুশান্ত। তাঁর মরদেহ দাহ করা হয় পরদিন বিকেলে। এর ১১ দিনের মাথায় অর্থাৎ ২৫ জুন সুশান্তের পটনার পৈতৃক বাড়িতে হিন্দু সংস্কার অনুযায়ী ক্ষৌরকর্ম সারেন তাঁর পরিজনরা। শুক্রবার ছিল শ্রাদ্ধানুষ্ঠান। অবশেষে আজ ব্রাহ্মণ ভোজনের মধ্যে দিয়ে সুশান্তের শেষ যাত্রা সমাপ্ত হল। চোখের জলে সুশান্তকে শেষবার্তাও দিলেন তাঁর পরিবার পরিজন। কী লেখা সেই বার্তায়?

" আপনাদের আদরের সুশান্ত সিং রাজপুত আর আমাদের প্রিয় গুলশন,

ও ছিল বিরাট হৃদয়ের মানুষ। কথা বলত প্রাণ খুলে। ওর মস্তিস্ক ছিল ক্ষুরধার। সবসময়ে বড় স্বপ্ন দেখত। আর সেই স্বপ্নের পিছনে দৌড়ত। হাসলে ওর গালে টোল পড়ত। পরিবারের বড়রা সবাই ওঁর জন্য গর্বিত ছিল।ওর শখ ছিল টেলিস্কোপে শনির বলয় দেখা। ওর হাসির আওয়াজ আর শুনতে পারব না, এ কথা বিশ্বাস করতেই আমাদের বহু সময় লাগবে। সকলের সামনে বিজ্ঞানের জটিল বিষয় সকলকে আর সহজ করে বোঝাতে চাইবে না ও। ও চলে গেছে। আর য়ে শূন্যস্থানটা রেখে গিয়েছে তা আমাদের বোবা করে দিয়েছে।"

সুশান্ত ওর ফ্যনদের মন থেকেই ভালবাসত। আপনারা ওকে যে অকুন্ঠ ভালবাসা দিয়েছেন তার জন্য কৃতজ্ঞ আমরা। আমরা ওর স্মৃতিটুকু ধরে রাখতে সুশান্ত সিং রাজপুত ফাউন্ডেশান প্রতিষ্ঠা করছি। আমরা চাই সিনেমা, বিজ্ঞান, খেলাধুলোর মতো সুশান্তের প্রিয় বিষয়গুলিতে উদীয়মান প্রতিভাকে সাহায্য করতে। ওর ইন্সটাগ্রাম পেজটিকেও লিগ্যাসি অ্যাকাউন্ট হিসেবে রেখে দিতে চাই আমরা।

সুশান্ত ছিলেন তার ভাইবোনদের মধ্যে কনিষ্ঠতম। তাঁর খুড়তুতো ভাই বিহারের বিজেপি বিধায়ক। বৌদি বিধানসভা পরিষদের সদস্য। গোটা পরিবারের নয়নের মণি ছিলেন তিনি। এই আদর, এত ভালবাসা ফেলে সুশান্ত চললেন অনন্তের দিকে। ভক্তদের জন্য শুধু রইল তাঁর ঝকঝকে চাউনিটা। পরিবারেরর মতোই ভক্তরাও তা কখনও ভুলবে না।

Published by: Arka Deb
First published: June 27, 2020, 9:44 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर