Sushant Singh Rajput : সুশান্তের দিদি প্রিয়াঙ্কাকে ক্লিনচিট নয়, বোম্বে হাইকোর্টের FIR বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট

Sushant Singh Rajput : সুশান্তের দিদি প্রিয়াঙ্কাকে ক্লিনচিট নয়, বোম্বে হাইকোর্টের FIR বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট

বেকায়দায় প্রিয়াঙ্কা সিং Photo-Instagram

গত ১৪ই জুন বান্দ্রার মাউন্ট ব্লাঙ্ক অ্যাপার্টমেন্ট থেকে উদ্ধার হয় সুশান্ত সিং রাজপুতের দেহ, প্রাথমিক তদন্তে এই মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে দাবি করে মুম্বই পুলিশ, যদিও সেই তত্ত্বে সন্তুষ্ট ছিল না এসএসআর ভক্তরা।

  • Share this:

    #নয়া দিল্লি : সুশান্ত সিং মামলায় বেকায়দায় পড়লেন সুশান্তের দিদি প্রিয়াঙ্কা সিং। তাঁর বিরুদ্ধে বোম্বে হাইকোর্টের আদেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে একটি আবেদনে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সুশান্তের দিদি, প্রিয়াঙ্কা। শুক্রবার সেই আবেদনই খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট। এর ফলে প্রিয়াঙ্কার বিরুদ্ধে অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর করা এফ আই আর-টি বজায় রাখল শীর্ষ আদালত।

    শুক্রবার ভারতের প্রধান বিচারপতি এসএ ববদে, বিচারপতি এএস বোপান্না এবং ভি রামাসুব্রামানিয়ানের একটি বেঞ্চে এই মামলার শুনানি হয়। প্রিয়াঙ্কা সিং বম্বে হাইকোর্টের আদেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে একটি আপিল করেছিলেন। প্রিয়াঙ্কার আইনজীবী সিনিয়র অ্যাডভোকেট বিকাশ সিং এদিন  বলেন, সুশান্ত সিং রাজপুতকে ডাক্তার কর্তৃক কোনও অবৈধ ওষুধ দেওয়া হয়নি। তবে আদালত এই আবেদনটি খারিজ করে জানিয়েছে, বিষয়টি এখনও শুনানির দিকে যাচ্ছে না।

    এর আগে সুশান্তের দুই দিদির বিরুদ্ধে আনা রিয়ার এফআইআর থেকে একজনের (মিতু সিং) নাম খারিজ করে বম্বে হাইকোর্ট। তবে প্রিয়াঙ্কা সিংয়ের বিরুদ্ধে আনা রিয়ার অভিযোগকে সম্পূর্নরূপে উড়িয়ে দেয়নি আদালত। জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে বম্বে হাইকোর্টে এই মামলার শুনানি শেষ হয়েছিল। পরে ফেব্রুয়ারি মাসে বম্বে হাইকোর্ট এই মামলার রায়ে মিতু সিংকে ক্লিনচিট দেয়।

    সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সঙ্গে জড়িত মাদককাণ্ডে এনসিবির হাতে গ্রেফতারির কয়েক ঘন্টা আগে, গত ৭ই সেপ্টেম্বর পাল্টা অভিযোগ আনেন রিয়া। অভিনেত্রী, প্রয়াত অভিনেতার দুই দিদির বিরুদ্ধে সুশান্তকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ আনেন। রিয়ার অভিযোগ, ৮ জুন অভিনেতার মৃত্যুর মাত্র ৬ দিন আগ হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে প্রিয়াঙ্কা সিং ‘ভুয়ো’ প্রেসক্রিপশন সুশান্তকে পাঠিয়েছিল। যেখানে নেক্সিটো (৫ মিলিগ্রাম), লিব্রিয়াম (১০ মিলিগ্রাম) এবং লোনাজেপ (০.৫ মিলিগ্রাম) সেবনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। প্রত্যেকটি সাইকোট্রপিক ড্রাগ সমন্বিত ওষুধ এবং এনডিপিএস আইন, ১৯৮৫-এর আওতাধীন।

    সুশান্তের দিদিরা তাঁদের আইনজীবী বিকাশ সিংয়ের মাধ্যমে আদালতকে পালটা জানান, তাঁদের কোনওরকম অপরাধমূলক কাজের জন্য দায়ী করা যেতে পারে না কারণ সেই অভিযোগের ভিত্তি একমাত্র একটি প্রেসক্রিবশন যা এক চিকিত্সকের দেওয়া। রিয়ার এফআইআর সম্পর্কে গত বছর অক্টোবরে বম্বে হাইকোর্টকে সিবিআই জানায়, এটি 'জলঘোলা করার চেষ্টা মাত্র ও সেটি আইনানুগ নয়’।

    গত ১৪ই জুন বান্দ্রার মাউন্ট ব্লাঙ্ক অ্যাপার্টমেন্ট থেকে উদ্ধার হয় সুশান্ত সিং রাজপুতের দেহ, প্রাথমিক তদন্তে এই মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে দাবি করে মুম্বই পুলিশ, যদিও সেই তত্ত্বে সন্তুষ্ট ছিল না এসএসআর ভক্তরা। অগস্ট মাসে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে এই মামলার তদন্তভার যায় সিবিআইয়ের হাতে। প্রায় সাত মাস ধরে তদন্তের পরেও এখনও সিবিআই নিশ্চিতভাবে জানায়নি আত্মহত্যাই করেছিলেন সুশান্ত নাকি এই মামলায় কোনওরকম ফাউল প্লে জড়িয়ে রয়েছে।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: