একটা গোটা বিমানে ছেয়ে গেলেন সোনু সুদ! অভিনেতার মুকুটে এবার নতুন সম্মানের পালক

একটা গোটা বিমানে ছেয়ে গেলেন সোনু সুদ! অভিনেতার মুকুটে এবার নতুন সম্মানের পালক

একটা গোটা বিমানে ছেয়ে গেলেন সোনু সুদ

করোনকালে তিনি যে ভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন সেই বিষয়টিকে সম্মান জানাতেই এবার তাঁকে এই বিশেষ সম্মান জানাল স্পাইসজেট। গোটা বিমানের গায়ে সোনু সুদের বিরাট ছবি লাগিয়েই তাঁকে সম্মান জানানো হল।

  • Share this:

    #মুম্বই: আবারও খবরে সোনু সুদ। একটা গোটা বিমানে ছেয়ে গেলেন অভিনেতা সোনু। করোনকালে তিনি যে ভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন সেই বিষয়টিকে সম্মান জানাতেই এবার তাঁকে এই বিশেষ সম্মান জানাল স্পাইসজেট। গোটা বিমানের গায়ে সোনু সুদের বিরাট ছবি লাগিয়েই তাঁকে সম্মান জানানো হল। এরই মাধ্যমে একটি রেকর্ডও গড়লেন তিনি। তিনিই প্রথম ভারতীয় অভিনেতা, যিনি এই সম্মান পেলেন।

    সোনু সুদ লকডাউনে প্রায় মসিহার ভূমিকা পালন করেছেন। তাই স্পাইসজেটের এই বিমানের গায়ে তাঁর ছবির সঙ্গে লেখা হল, ত্রাতা সোনু সুদকে আমরা স্যালুট জানাই। সে বিমানের ছবি নিজেও শেয়ার করেছেন সোনু।

    এই সম্মান পেয়ে অভিনেতা বলছেন, আমি সত্যিই সম্মানিত বোধ করছি। স্পাইসজেটের পক্ষ থেকে এটি সত্যিই খুব মিষ্টি একটি পদক্ষেপ। আর আমি সত্যিই এমন উপহার পেয়ে খুব খুশি। আমি আশা করি এভাবেই সকলকে আমি গর্বিত করতে পারব। আমি স্পাইসজেটের প্রতিও কৃতজ্ঞ থাকব কারণ তারাও বহু ভারতীয়কে মহামারীর সময়ে দেশে ফিরিয়ে এনেছে।

    লকডাউনের সময়ে সোনু একের পর এক কাজ করে অসহায় মানুষের পাশে থেকেছেন। বহু পরিযায়ী শ্রমিককে তিনি বাড়ি ফিরিয়েছেন ট্রেন, বাস, আবার কখনও একটা গোটা বিমান ভাড়া করে। আর তাই সারা দেশের মানুষই তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। সম্প্রতি শিবরাত্রিতেও তাঁর একটি টুইট মানুষের নজর কাড়ে। মুগ্ধ হন সেই টুইটে অনেকেই।

    তিনি টুইট করেন, 'শিব ঠাকুরের ছবি না পাঠিয়ে যাঁর প্রয়োজন রয়েছে এমন অসহায় কারও পাশে দাঁড়ান। ওম নমঃ শিবায়ে'। তাঁর এই টুইটকে অনেকেই সাধুবাদ জানিয়েছেন।

    প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের অতিমারির লকডাউনে নিজের 'আসল' আবেগকে জনগণের সামনে তুলে ধরেছিলেন অভিনেতা সোনু। অসময়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে রাীতিমতো ত্রাতার মতো বহু মানুষকে বাড়ি পৌঁছনোর ব্যবস্থা করেছিলেন তিনি। প্রায় প্রতিদিনই সংবাদ শিরোনামে এসেছিল সোনুর এই সাহায্যের কথা। বড় বড় বাস ভাড়া করে অসংখ্য পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরানোর বন্দোবস্ত করেছিলেন তিনি। যে কোনও মানুষ সেই সময় সোনুর দেওয়া টোল ফ্রি নম্বরে ফোন করে নিজেদের প্রয়োজনের কথা বলতে পেরেছিলেন। পরেও কারও চিকিৎসার খরচ, বা পড়াশোনার খরচের মতো কাজেও এগিয়ে যেতে দেখা গিয়েছে তাঁকে।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: