corona virus btn
corona virus btn
Loading

ব্রেকআপের পরেও সুশান্তের সব ছবি মুক্তির দিন মানত রাখতেন অঙ্কিতা, করতেন পুজো!

ব্রেকআপের পরেও সুশান্তের সব ছবি মুক্তির দিন মানত রাখতেন অঙ্কিতা, করতেন পুজো!

অঙ্কিতা ওঁর শুধু গার্লফ্রেন্ড ছিল না । ওঁর জীবনে মায়ের অভাব পূরণ করেছিলেন অঙ্কিতা, জানালেন ঘনিষ্ঠ বন্ধু সন্দীপ ।

  • Share this:

#মুম্বই: তাঁর স্মৃতিটাই এখন সম্বল হয়ে গিয়েছে । মাত্র ৩৪ বছরে নিজেকে শেষ করে দিয়ে চলে গিয়েছেন সুশান্ত সিং রাজপুত । কিন্তু তাঁর পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধবদের মনে আজীবনের ক্ষত তৈরি করে দিয়ে গিয়েছেন সুশান্ত । তাই নায়কের স্মৃতিচারণাতেই এখনও মগ্ন তাঁর ঘনিষ্ঠরা । অঙ্কিতা আর সুশান্তের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন প্রযোজক সন্দীপ সিং । তিনিও সুশান্তের মতই বিহার থেকে মুম্বইয়ে পা রেখেছিলেন ২০ বছর আগে । ২০১১ -র সময় সুশান্তের সঙ্গে আলাপ হয় সন্দীপের । তারপর থেকে শেষ দিন পর্যন্ত বেস্ট ফ্রেন্ড ছিলেন তাঁরা । সুশান্ত-অঙ্কিতার সম্পর্কটা খুব কাছ থেকে দেখেছেন সন্দীপ । সম্প্রতি SpotboyE-তে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে মুখ খোলেন সন্দীপ ।

বারবার তাঁর কথায় উঠে আসে অঙ্কিতার প্রশংসা । তিনি বলেন, ‘‘অঙ্কিতা ওঁর শুধু গার্লফ্রেন্ড ছিলেন তাই নয় । ওঁর জীবনে মায়ের অভাব পূরণ করেছিলেন অঙ্কিতা । আমার ইন্ডাস্ট্রিতে এত বছরের জার্নির মধ্যে কখনও আমি অঙ্কিতার মতো আর একটা মেয়েকে দেখিনি । ওঁর কাছে সুশান্তের ভাল থাকা আর সফল হওয়াটাই ছিল সবার আগে । যদি কেউ পারতো সুশান্ত’কে বাঁচাতে, তা হলে সেটা একমাত্র অঙ্কিতা ।’’

সন্দীপ আরও বলেন, ‘‘আঙ্কিতা এমনই রান্না করতেন, যা সুশান্ত পছন্দ করেন । এমনই ইন্টেরিয়র করেছিলেন, যা সুশের পছন্দ হয় । এমনকী ঘরের বইপত্রও সব ছিল সুশান্তের পছন্দ মতো । সুশান্তের জন্য যা যা করা যায়, সব করতেন অঙ্কিতা । সম্পর্কে থাকাকালীন নিজের কেরিয়ার একপ্রকার ছেড়েই দিয়েছিলেন । অথচ, তখন ও ছোট পর্দার কত বড় মুখ । ভাল ভাল ছবিরও অফার আসছিল । কিন্তু সব ফিরিয়ে দিয়েছিলেন অঙ্কিতা ।’’

এমনকী বিচ্ছেদের পরেও সুশান্তের যতগুলো ছবি মুক্তি পেয়েছে, প্রতিটি শুক্রবার অঙ্কিতা মানত রাখতেন, পুজো করতেন । যাতে সুশান্তের জীবনে সাফল্য আসে, জানালেন সন্দীপ ।

কিন্তু যে দিন সুশান্ত আত্মহত্যা করল সে দিন ওই অবস্থায় প্রিয় বন্ধুকে দেখে সন্দীপের সবার প্রথমে মনে হয়েছিল অঙ্কিতার কথা । সুশান্তের বাড়ি থেকে হাসপাতাল, হাসপাতাল থেকে পুলিশ স্টেশন... অঙ্কিতাকে নাগাড়ে ফোন করে গিয়েছেন তিনি । একবারও ফোন ধরেননি অঙ্কিতা । শেষ পর্যন্ত সন্দীপ অঙ্কিতার বাড়ি চলে যান । তাঁকে দেখেই ছুটে এসে তাঁকে জড়িয়ে ধরেন অঙ্কিতা । ‘‘সেই জড়িয়ে ধরা, আমি জীবনে কখনও ভুলবো না । এরপর বেশিক্ষণ আমি সেখানে থাকতে পারিনি । অঙ্কিতার ওই অবস্থা আর দেখতে পারছিলাম না’’, জানালেন সন্দীপ ।

সন্দীপ এ দিন আরও বলেন, সুশান্ত-রিয়ার বিয়ের ব্যাপারে তিনি কিছুই জানতেন না । তিনি বলেন, ‘‘একটাই সম্পর্ক আমি শুধু মনে রাখতে চাই, সেটা হল অঙ্কিতা আর সুশান্তের সেই প্রেম । আমার কাছে তো ওটাই সুশান্তের শেষ সম্পর্ক ছিল । আর আমি শুধু ওই স্মৃতিটাই জীবনে বাঁচিয়ে রাখতে চাই ।’’

Published by: Simli Raha
First published: June 29, 2020, 5:55 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर