Home /News /entertainment /
ব্রেকআপের পরেও সুশান্তের সব ছবি মুক্তির দিন মানত রাখতেন অঙ্কিতা, করতেন পুজো!

ব্রেকআপের পরেও সুশান্তের সব ছবি মুক্তির দিন মানত রাখতেন অঙ্কিতা, করতেন পুজো!

অঙ্কিতা ওঁর শুধু গার্লফ্রেন্ড ছিল না । ওঁর জীবনে মায়ের অভাব পূরণ করেছিলেন অঙ্কিতা, জানালেন ঘনিষ্ঠ বন্ধু সন্দীপ ।

  • Share this:

    #মুম্বই: তাঁর স্মৃতিটাই এখন সম্বল হয়ে গিয়েছে । মাত্র ৩৪ বছরে নিজেকে শেষ করে দিয়ে চলে গিয়েছেন সুশান্ত সিং রাজপুত । কিন্তু তাঁর পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধবদের মনে আজীবনের ক্ষত তৈরি করে দিয়ে গিয়েছেন সুশান্ত । তাই নায়কের স্মৃতিচারণাতেই এখনও মগ্ন তাঁর ঘনিষ্ঠরা । অঙ্কিতা আর সুশান্তের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন প্রযোজক সন্দীপ সিং । তিনিও সুশান্তের মতই বিহার থেকে মুম্বইয়ে পা রেখেছিলেন ২০ বছর আগে । ২০১১ -র সময় সুশান্তের সঙ্গে আলাপ হয় সন্দীপের । তারপর থেকে শেষ দিন পর্যন্ত বেস্ট ফ্রেন্ড ছিলেন তাঁরা । সুশান্ত-অঙ্কিতার সম্পর্কটা খুব কাছ থেকে দেখেছেন সন্দীপ । সম্প্রতি SpotboyE-তে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে মুখ খোলেন সন্দীপ ।

    বারবার তাঁর কথায় উঠে আসে অঙ্কিতার প্রশংসা । তিনি বলেন, ‘‘অঙ্কিতা ওঁর শুধু গার্লফ্রেন্ড ছিলেন তাই নয় । ওঁর জীবনে মায়ের অভাব পূরণ করেছিলেন অঙ্কিতা । আমার ইন্ডাস্ট্রিতে এত বছরের জার্নির মধ্যে কখনও আমি অঙ্কিতার মতো আর একটা মেয়েকে দেখিনি । ওঁর কাছে সুশান্তের ভাল থাকা আর সফল হওয়াটাই ছিল সবার আগে । যদি কেউ পারতো সুশান্ত’কে বাঁচাতে, তা হলে সেটা একমাত্র অঙ্কিতা ।’’

    সন্দীপ আরও বলেন, ‘‘আঙ্কিতা এমনই রান্না করতেন, যা সুশান্ত পছন্দ করেন । এমনই ইন্টেরিয়র করেছিলেন, যা সুশের পছন্দ হয় । এমনকী ঘরের বইপত্রও সব ছিল সুশান্তের পছন্দ মতো । সুশান্তের জন্য যা যা করা যায়, সব করতেন অঙ্কিতা । সম্পর্কে থাকাকালীন নিজের কেরিয়ার একপ্রকার ছেড়েই দিয়েছিলেন । অথচ, তখন ও ছোট পর্দার কত বড় মুখ । ভাল ভাল ছবিরও অফার আসছিল । কিন্তু সব ফিরিয়ে দিয়েছিলেন অঙ্কিতা ।’’

    এমনকী বিচ্ছেদের পরেও সুশান্তের যতগুলো ছবি মুক্তি পেয়েছে, প্রতিটি শুক্রবার অঙ্কিতা মানত রাখতেন, পুজো করতেন । যাতে সুশান্তের জীবনে সাফল্য আসে, জানালেন সন্দীপ ।

    কিন্তু যে দিন সুশান্ত আত্মহত্যা করল সে দিন ওই অবস্থায় প্রিয় বন্ধুকে দেখে সন্দীপের সবার প্রথমে মনে হয়েছিল অঙ্কিতার কথা । সুশান্তের বাড়ি থেকে হাসপাতাল, হাসপাতাল থেকে পুলিশ স্টেশন... অঙ্কিতাকে নাগাড়ে ফোন করে গিয়েছেন তিনি । একবারও ফোন ধরেননি অঙ্কিতা । শেষ পর্যন্ত সন্দীপ অঙ্কিতার বাড়ি চলে যান । তাঁকে দেখেই ছুটে এসে তাঁকে জড়িয়ে ধরেন অঙ্কিতা । ‘‘সেই জড়িয়ে ধরা, আমি জীবনে কখনও ভুলবো না । এরপর বেশিক্ষণ আমি সেখানে থাকতে পারিনি । অঙ্কিতার ওই অবস্থা আর দেখতে পারছিলাম না’’, জানালেন সন্দীপ ।

    সন্দীপ এ দিন আরও বলেন, সুশান্ত-রিয়ার বিয়ের ব্যাপারে তিনি কিছুই জানতেন না । তিনি বলেন, ‘‘একটাই সম্পর্ক আমি শুধু মনে রাখতে চাই, সেটা হল অঙ্কিতা আর সুশান্তের সেই প্রেম । আমার কাছে তো ওটাই সুশান্তের শেষ সম্পর্ক ছিল । আর আমি শুধু ওই স্মৃতিটাই জীবনে বাঁচিয়ে রাখতে চাই ।’’

    Published by:Simli Raha
    First published:

    Tags: Ankita Lokhande, Sandip Ssingh, Sushant singh Rajput

    পরবর্তী খবর