corona virus btn
corona virus btn
Loading

শুধু টাকা নয়, ড্রাগসের নেশা ও কেনার তথ্য রিয়ার বিরুদ্ধে! তাহলে কি সুশান্তকেও করেছিলেন নেশায় বশ

শুধু টাকা নয়, ড্রাগসের নেশা ও কেনার তথ্য রিয়ার বিরুদ্ধে! তাহলে কি সুশান্তকেও করেছিলেন নেশায় বশ

এখনও পর্যন্ত রিয়ার বিরুদ্ধে শুধু টাকা তছরুপের অভিযোগ ছিল এবার মাদকের ব্যাপারেও সুশান্তের বান্ধবীর নাম জুড়ল৷

  • Share this:

#মুম্বই: সুশান্ত সিং রাজপুত মৃত্যু মামলায় সামনে এল সবচেয়ে বিস্ফোরক তথ্য৷ রিয়া চক্রবর্তীর কিছু ডিলিট করে দেওয়া হোয়াটসঅ্যাপ এবার সামনে উঠে এল৷ যা রীতিমতো চাঞ্চল্যকর৷ ইডি-র সন্দেহ যে রিয়া মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন। হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে রিয়া ও এক মাদক ব্যবসায়ীর কথোপকথন এল উঠে।

সুশান্ত সিং রাজপুত মৃত্যু মামলায় মাদকের সূত্র উঠে এসেছে৷ এই নিয়ে তদন্ত করবে নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো।

আপাতত নজর রাখা যাক সেই হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটে...

-৮ মার্চ, ২০১৭-এ রিয়া এবং গৌরব আর্যের মধ্যে কথা হয়। গৌরব মাদক ব্যবসায়ী বলে পরিচিত। এই চ্যাটে লেখা রয়েছে, 'আমরা যদি হার্ড ড্রাগের কথা বলি তবে আমি তা বেশি ব্যবহার করিনি।' অন্য চ্যাটে আবার রিয়া গৌরবকে জিজ্ঞেস করছেন, 'তোমার কাছে কি এমডি আছে?' এমডি মানে এমডিএমএ। MDMA অর্থাৎ Methylenedioxymethamphetamine। এটি এক ধরণের মাদক যাতে খুব গাঢ় নেশা হয়৷

-২৫ নভেম্বর ২০১৯-এর চ্যাটটি রিয়া এবং জয়া সাহার মধ্যে হয়েছে। এতে জয়া রিয়াকে বলেন, "আমি ওকে শ্রুতির সঙ্গে কো-অর্ডিনেট করতে বলেছি।" রিয়া বলেন, 'অনেক ধন্যবাদ।' জয়া জবাবে বলেন, "আশা করি এতে উপকার হবে"।

-২৫ নভেম্বর ২০১৯-এ অন্য একটি চ্যাটে জয়া রিয়া চক্রবর্তীকে বলেন, 'চা, কফি বা জলে ৫ ফোটা দিয়ে খেতে হবে। ৩০ থেকে ৪০ মিনিটে কিক দেবে।

-১৭ এপ্রিল, ২০২০-তে স্যামুয়েল মিরান্ডা এবং রিয়ার চ্যাটে কথা হয়। এতে মিরান্ডা বলেন, 'হাই রিয়া, স্টাফ প্রায় সব শেষ।' মিরান্ডা রিয়াকে জিজ্ঞেস করেন, "আমরা কি শৌভিকের বন্ধুর কাছ থেকে এই ব্যাপারে সাহায্য নিতে পারি?" তবে তার কেবল হ্যাশ এবং বাড রয়েছে।' হ্যাশ এবং বাড হল কম তীব্রতার মাদক।

আরও একটি চ্যাটে রিয়া লিখেছেন - আপনার কাছে এমডি আছে?

-২০২০ সালের ৮ মার্চ একটি চ্যাটে রিয়া লিখেছিলেন, "আমি বেশি নিচ্ছি না। আমি একবার এমডিএমএ নিয়েছি।"

-জয়া এবং রিয়া ১০০ বার ফোনে কথা বলেছেন, যার মধ্যে ২৯ কল জয়া করেছিলেন এবং বাকি কলগুলি করেছিলেন রিয়া।

-রিয়া এবং জয়া শাহের এই ডিলিট করা চ্যাটে বলা হয়েছে যে-চার ফোটা কফি, চা বা জলে রেখে মাতাল হতে দিন। এর প্রভাব তিরিশ থেকে চল্লিশ মিনিটে দেখা যাবে।এমডি ড্রাগ প্রভাব পড়ে ৩০ থেকে ৪০ মিনিটের মধ্যে।

-উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পরে রিয়া প্রথম কলটি ছিল জয়া শাহকে। সুশান্তের মৃত্যুর খবর দুপুর ২.২৭ মিনিটে আসে এবং ২.৩৩ মিনিটে রিয়া ও জয়ার মধ্যে কথা হয়।

ইতিমধ্যেই ইডি জয়া শাহকে প্রায় ৪ ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তার হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কী এই এমডি ড্রাগ এবং এর কী প্রভাব?

এমডি ড্রাগকে মিয়াও মিয়াও ড্রাগও বলা হয়। কারণ এই ড্রাগ নেওয়ার পরে নাকি যে কেউ ভেজা বিড়ালের মতো গুটিয়ে যান। কিছু করতেই তিনি সক্ষম হন না।

কে জয়া শাহ?

একটি ট্যালেন্ট ম্যানেজমেন্ট সংস্থায় কাজ করেন জয়া শাহ এবং অনেক স্টারদের সঙ্গে সখ্যতা রয়েছে তাঁর৷ জয়া ও রিয়ার বন্ধুত্ব ছিল। জানা যাচ্ছে যে, জয়া শাহ রিয়াকে মাদক সরবরাহ করতেন। এখন মাদকের মামলাটি সামনে আসার পর নারকোটিক্স ডিপার্টমেন্ট সিবিআইয়ের সঙ্গে তদন্ত করবে। এখনও পর্যন্ত রিয়ার বিরুদ্ধে শুধু টাকা তছরুপের অভিযোগ ছিল এবার মাদকের ব্যাপারেও সুশান্তের বান্ধবীর নাম জুড়ল৷

Published by: Pooja Basu
First published: August 26, 2020, 2:03 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर