১৩ বছর বয়সেই বুঝেছিলাম, সকলে অদ্ভুত চোখে দেখে আমায়: প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

১৩ বছর বয়সেই বুঝেছিলাম, সকলে অদ্ভুত চোখে দেখে আমায়: প্রিয়াঙ্কা চোপড়া
কেন নিজের অটোবায়োগ্রাফির নাম এমন রাখলেন প্রিয়াঙ্কা, জেনে নিন

কেন নিজের অটোবায়োগ্রাফির নাম এমন রাখলেন প্রিয়াঙ্কা, জেনে নিন

  • Share this:

    #মুম্বই: লকডাউনের জেরে ছ মাস আটকে ছিলেন বিদেশের বাড়িতে। আটকে পড়া, শব্দটার সঙ্গে তখন যেন নতুন করে আলাপ হল প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার। "আজীবন এক্সট্রোভার্ট আমি নতুন করে ভাবতে শিখলাম, কী করব জীবনে। কখনও ডায়েরি লিখিনি সেভাবে। টুকরো টুকরো স্মৃতি লিখে রাখতাম। ভাবতে বসলাম, এগুলোকে জুড়ে ফেলা যায় না?" বলেছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।

    আজ যাঁর খ্যাতি বিশ্বজোড়া। আকাশছোঁয়া উচ্চতায় ওঠা এক সাধারণ মেয়ের। অতীব সাধারণ হয়ত নয়, কিন্তু অনন্য সাধারণ তো বটেই। "এ পর্যন্ত আমাকে নিয়ে লেখাহয়েছে। হেডলাইন হয়েছে। আমার বলা শব্দ লিখেছে অন্যজন। কিন্তু একান্ত নিজের কথা নিজের মতো করে বলার পেছনে একটা অপার স্বাধীনতা আছে। কুড়ি বছর হল ইন্ডাস্ট্রিতে। কেমনভাবে এসেছিলাম, আর আজ কেমন হয়ে গেছি। যত ভাবি, ততই বিস্মিত হই। ল্যাপটপে যখন লিখতে বসলাম, দেখলাম আমি খুব স্লো টাইপার। চিন্তা আর লেখা একসঙ্গে হচ্ছে না। আমার সাহায্য করতে এল আমার এক টিম। মেরুদণ্ডের মতো। আমার এডিটর শেখালেন কী করে এপিসোডিক স্ট্রাকচারে স্টোরিগুলো ভাঙতে হবে। স্টোরিটেলিং এর যে একটা জ্যামিতি আছে, শিখলাম প্রথম।" এক নিঃশ্বাসে বলে চললেন প্রিয়াঙ্কা ।

    তাঁর লেখা 'আনফিনিশড' দেখছে দিনের আলো। কেন নিজের অটোবায়োগ্রাফির নাম এমন রাখলেন ? "প্রথমত এটা আরও কয়েক দশক পর ফিনিশ করব। কারণ এখনও আমার জীবনে অনেকটা পথ বাকি। এই বইটা আমার টেস্টিমনি অফ অ্যাচিভমেন্ট নয়। আমার দর্শন। প্রতিটি আনন্দকে কাটাছেঁড়া করে দেখা। প্রতিটি দুঃখ কষ্ট বেদনাকে কাটাছেঁড়া করে দেখা। আমার ভিতরের একটা চুপ করে থাকা সত্তা হঠাৎ কথা বলতে চাইল। তাই এই বই।"


    তেরো বছর বয়সে প্রথম বুঝতে পেরেছি, আমি সকলের চেয়ে আলাদা। আলাদা মানে, সবাই আমায় একটু অদ্ভুত চোখে দেখে। কালো ত্বক, সাধারণ চেহারা। তারপর যখন ১৬ বছর বয়সে ফিরে এলাম বরেলিতে, তখনও যেন আরও অদ্ভুত চোখে দেখত আত্মীয় স্বজন। তার পর মডেলিং দুনিয়ায়। সেখানেও আমার পিঠে স্ট্যাম্প পড়ল, আমি ডাস্কি, আনকনভেনশনাল। আস্তে আস্তে এই খোঁচা গুলোই আমায় শক্ত ভিতে দাঁড় করাল। আমার মা-বাবা সব সময়ে আমাকে নিজস্ব মতামত নিজস্ব ভঙ্গিমায় পেশ করতে উৎসাহ দিতেন। সেটাই আমায় আজ প্রিয়াঙ্কা চোপড়া হতে সাহায্য করেছে। আমি শুধু মেয়ে বলেই চুপ করে থাকব, সেটা আমার বাবা মা কখনও পছন্দ করতেন না।"

    শর্মিলা মাইতি
    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: